বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শাহরাস্তিতে সমবায় কর্মকর্তার প্রতারনা। গ্রাহকদের হয়রানি ॥

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৯, ২০১৭
news-image

 

সিদ্দিকুর রহমান নয়ন ঃ

চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলায় সমবায় কর্মকর্তার প্রতারনার কারনে গ্রাহকেরা হয়রানির স্বীকার হচ্ছে- এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানাযায়, ওই উপজেলার সমবায় কর্মকর্তা মোঃ হাফিজুর রহমান গ্রাহকদেরকে বিভিন্ন খাতে ঋণ পাইয়ে দেয়ার নাম করে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। প্রক্ষান্তরে, ঋণ সুবিধা পাওয়ার নাম গন্ধও নেই। যে কারনে গ্রাহকরা সিমাহীন দুর্ভোগের স্বীকার হচ্ছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের পুত্র আবুল কালাম বলেন, দীর্ঘ সাত মাস পূর্বে আমাদের নিজ গ্রামে সমবায় অফিস কর্তৃক গ্রাম সমিতির এক বৈঠকে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান গ্রাহকদেরকে বিভিন্ন খাতে ঋণ দেয়ার কথা বলে আশ্বস্থ করেন। তার বক্তব্যের আলোকে আমি একটি ঋণ গ্রহণের ব্যাপারে আলাপ করলে তিনি আমাকে ঋণ পাইয়ে দিবেন বলে ২৫ হাজার টাকা দাবি করেন। তার দাবীকৃত টাকা তিন বারে পরিশোধ করি এবং ঋণ উত্তোলনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তিনি গ্রহণ করেন। কিন্তু দীর্ঘ ছয় মাসেও ঋণ বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমি সমবায় কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করি। তিনি তার রুঢ় আচরনের মাধ্যমে হুমকি ধমকি প্রদান করেন। তখন এই বিষয়টি উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রকাশনা সম্পাদক জেড এম আনোয়ার, টামটা উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ওমর ফারুক দর্জি, শাহরাস্তি প্রেস ক্লাবের সভাপতি কাজী হুমায়ুন কবির সহ বিভিন্ন জনকে অবহিত করি। তখন জেড এম আনোয়ারের মাধ্যমে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তার কার্যালয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বিভিন্ন কথাবার্তার আলোকে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। চলতি বছরের ২৮ জুলাই ঋণ দেয়া বাবদ গৃহিত টাকা ফেরত দিবেন বলে আশ্বস্থ করেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনি উক্ত টাকা ফেরত দেননি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, হাফিজুর রহমান নেশাগ্রস্থ একজন অফিসার। এরই মধ্যে এধরনের ঘটনার শিকার হওয়া গ্রাহকগন অফিসে যোগাযোগ শুরু করেছেন। কিন্তু হাফিজুর রহমানকে অফিসে পাওয়া যায় না এবং ফোন করলে তিনি তা রিসিভ করেন না। এ ছাড়াও বিভিন্ন সময় হাফিজুর রহমান চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি, চাঁদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য ড. শামছুল হক ভূঁইয়ার ভাগিনা বলে পরিচয় দিয়ে প্রভাব বিস্তার করে ক্ষমতার অপব্যবহার করেন। এ ধরনের দূর্নীতিগ্রস্থ অফিসারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের উর্দ্বতণ কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।
উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রকাশনা সম্পাদক জেড এম আনোয়ার বলেন, বিষয়টি নিয়ে বসে সুরাহা করতে চেয়েছিলাম, হাফিজ সাহেব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন এবং উক্ত টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্র“তি দেন তিনি।
শাহরাস্তি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী হুমায়ুন বলেন, গ্রাহকের কথা শুনে বিষয়টি জানতে গিয়ে হাফিজ সাহেবের সাথে কথা বলি। আলোচনায় টাকা লেনদেনের কথাটি উঠে এসেছে এবং তিনি টাকা গ্রহণ করেছেন বলে জানতে পারি।
ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ওমর ফারুক দর্জি বলেন, সমবায় অফিসে এ বিষয়ে আলোচনা কালে টাকা গ্রহণ করার সত্যতা পাওয়া যায় এবং উক্ত টাকা ফেরত দিবেন বলে স্বীকার করেন হাফিজুর রহমান। তিনি আরো বলেন, একজন সরকারী কর্মকর্তা হয়ে সাধারন গ্রাহকের সাথে এ ধরনের প্রতারনা অত্যন্ত নেক্কারজনক। যা উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নজর দেয়া অত্যন্ত জরুরি বলে তিনি মনে করেন।
সমবায় কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান বলেন, আমি ঋণ দেয়ার কথা বলে টাকা নেইনি। আমার অফিস কোন ঋণ দেয়না। আমি অভিযোগকারী কালামের কাছ থেকে ৪ হাজার টাকা গ্রহণ করি। আমার বিরুদ্ধে ২৫ হাজার টাকা গ্রহণের অভিযোগটি ভিত্তিহীন।

আর পড়তে পারেন