সোমবার, ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিক্ষকের সাথে ‘ঔদ্ধত্যপূর্ণ’ আচরণের বিচারের দাবিতে কুবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৫, ২০২৪
news-image

 

চাঁদনী আক্তার, কুবি প্রতিনিধি:

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের মিডিয়া ল্যাবে বিনা অনুমতিতে প্রবেশ ও বিভাগীয় প্রধান সহকারী অধ্যাপক কাজী এম. আনিছুল ইসলামের সাথে ‘ঔদ্ধত্যপূর্ণ’ আচরণের অভিযোগ এনে বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এ মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন তারা।

এসময় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের কমিউনিকেশন ক্লাবের ভিপি বিশ্বজিত সরকার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠার কারণেই আজ জুনিয়র শিক্ষকেরা এধরণের ঘৃণ্য আচরণের সুযোগ পেয়েছে। আমাদের বিভাগীয় প্রধানের সাথে যেই ধরনের খারাপ আচরণ করা হয়েছে এইটার বিচার হওয়া দরকার। আমরা যদি এর সুষ্ঠু বিচার না পাই। তাহলে পরবর্তীতে আমরা শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে বড় পরিসরে আন্দোলন শুরু করবো।

তবে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ল্যাবে বিনা অনুমতিতে প্রবেশ ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের বিষয়ে অস্বীকার করেন গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার আসণবিন্যাস কমিটির সদস্য সচিব ও সহকারী প্রক্টর আবু ওবায়দা রাহিদ। তিনি বলেন, জার্নালিজমের ল্যাবে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমরা গত ২৮শে মার্চ সকল বিভাগীয় প্রধানকে আসন সংক্রান্ত বিষয়ে মেইল করি। কিন্তু তিনি (কাজী এম. আনিছ) কোনো রিপ্লাই দেননি। পরবর্তীতে আমি এবং ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাইদুল আল-আমিন স্যার ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান রাহাত স্যারসহ ডিন অফিসের দুইজন কর্মকর্তাকে নিয়ে ওই ল্যাবে যাই এবং ল্যাব খালি থাকা সাপেক্ষে সেখানে ভর্তি পরীক্ষার আসন বিন্যাসের জন্য অন্তর্ভুক্ত করি।

কিন্তু আনিছ স্যার পুরো বিষয়টির জন্য আমাকে দায়ী করছেন। যা দুঃখজনক। তিনি ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের যে কথাটি বলছেন সেটিও সত্য নয়। এবিষয়কে কেন্দ্র করে আমাদের মধ্যে বাগবিতন্ডা হয়েছে এটা ঠিক। কিন্তু বর্তমানে একপার্শ্বিকভাবে আমার নামে মিথ্যাচার করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, এ ঘটনার জের ধরে পদত্যাগ করেছেন সহকারী প্রক্টর কাজী এম. আনিছুল ইসলাম। সিনিয়র হওয়া সত্ত্বেও জুনিয়র শিক্ষক কর্তৃক হেনস্তার যথাযথ বিচার পাননি দাবি করে তিনি পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করেন।

আর পড়তে পারেন