সোমবার, ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে চাঁদপুরের ৩ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৪, ২০২৪
news-image

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ

চাঁদপুরের দুই উপজেলার তিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা কোনোভাবেই মোবাইল ফোন আনতে বা ব্যবহার করতে পারবে না বলে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ভিন্ন ভিন্ন বিজ্ঞপ্তিতে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেন প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, গত শনিবার (১ জুন) চাঁদপুর সদর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শাহতলী জিলানী চিশতি কলেজের সকল শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম সরোয়ার। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কলেজ ক্যাম্পাসে কোন প্রকার (এন্ড্রয়েড কিংবা বাটন) মোবাইল ফোন নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না। মোবাইল ফোন নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলে তা জব্দ করে আর ফেরত দেয়া হবে না। এছাড়াও কলেজ গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান সোহেল রুশদীর নির্দেশনায় অত্র কলেজে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি ইচ্ছুক কিংবা ভর্তিকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতি-নাতনীদের পড়াশোনার খরচ সম্পূর্ণ মওকুফ করা হবে। এ নিয়ে সোমবার (৩ জুন) আরেকটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। উপরোক্ত এই দুইটি উদ্যোগের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক জুড়ে মহতী উদ্যোগ বলে সম্বোধন করেন ব্যবহারকারীরা।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার হাজীগঞ্জ মডেল সরকারি কলেজের সকল শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ মোশাররফ হোসেন। বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য বলা হয়, কলেজ ক্যাম্পাসে কোন প্রকার মোবাইল (এন্ড্রয়েড/ বাটন ফোন) নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না। মোবাইল ফোন নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলে মোবাইল ফোন জব্দ করা হবে। যা অফেরতযোগ্য। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এর আগে গেল ১৮ মে শনিবার হাজীগঞ্জ সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ, চাঁদপুর ফেসবুক গ্রুপ থেকে একই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উক্ত প্রতিষ্ঠানের ষষ্ঠ থেকে একাদশ শ্রেনীর সকল ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরেরদিন থেকে যেকোন মোবাইল ফোন পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হোক। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে স্ব স্ব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন সচেতন মহল।

আর পড়তে পারেন