বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সদর দক্ষিণে ম্যাটস মেডিসিন বিভাগের ছাত্রের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৬, ২০১৯
news-image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
চার বছরের একটি শিশুকে ধর্ষন ও মেরে ফেলার ঘটনা নি:সন্দেহে জঘন্যতম অপরাধ। এধরণের অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক বিচার না হলে সমাজে অনাচার, অপরাধ বাড়তে থাকবে। কিন্তু প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করে নিরাপরাধ কাউকে ধরে নিয়ে জোর করে স্বীকারোক্তি আদায় করাও বিচার বহির্ভূত। আইনের সঠিক শাসন, বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হলে পুলিশকে নিরপেক্ষভাবে সবধরণের মামলা তদন্তে ভূমিকা রাখতে হবে। যাতে কোন নিরাপরাধ মানুষ হয়রানীর শিকার না হয়, বিনাদোষে জেল ঘাটতে না হয়। শিশু নাবিলা হত্যা ও ধর্ষনের ঘটনা তাঁর পরিবারের মতো আমাদেরকেও পীড়া দেয়। আমরাও কষ্ট পাচ্ছি। কারণ আমরা তাদের প্রতিবেশি, আপনজন।
কিন্তু শিশু নাবিলা ধর্ষন ও হত্যা মামলায় জেলহাজতে অন্তরীন ম্যাটস’র মেডিসিন বিভাগের ছাত্র মেহরাজ হোসেন তুষার ষড়যন্ত্রের শিকার। গতকাল শনিবার দুপুরে কুমিল্লা নগরীর চকবাজারে একটি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তুষারের পিতা কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার গলিয়ারার কৃষ্ণনগর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক আলী আশরাফ উপরের কথা বলে সন্তানের নির্দোষ প্রসঙ্গে দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, কুমিল্লা শহরতলীর কনেকশতলা এলাকার আবদুল ওহাবের ছেলে পুলিশের সোর্স জামাল হোসেনের সাথে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ থাকায় সে তারই প্রতিবেশি প্রবাসী আবুল কালামের চার বছর বয়সী কন্যা নাবিলাকে ধর্ষন ও হত্যা মামলায় তার ছেলে তুষারকে ফাঁসিয়েছে। জামাল নিহত নাবিলার পিতার বন্ধু। অথচ নাবিলার পরিবারের পক্ষে দাদা হাজী আবদুল আজিজ কর্তৃক ঘটনার বিষয়ে সদর দক্ষিণ থানায় যে এজহার করা হয়েছিল তাতে কারো নাম ছিল না। কিন্তু ঘটনার প্রায় দেড় মাস পর গত ২৯ জানুয়ারি দুপুরে তুষারকে নগরীর কুচাইতলী এলাকার বি-বাড়িয়া ম্যাটস থেকে ক্লাশ শেষে বাড়ি ফেরার পথে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়।

সংবাদ সম্মেলনে তুষারের পিতা আলী আশরাফ দাবী করেন গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর শিশু নাবিলার লাশ কৃষ্ণনগর গ্রামের যে নির্মানাধীন ভবনের কক্ষ থেকে উদ্ধার করা হয় সেই ভবনের মালিক রাজমিস্ত্রী হাবিব ওরফে হাবু পুলিশ আটক করে পরদিন ছেড়ে দেয়। ছাড়া পাওয়ার এক সপ্তাহের মাথায় হাবু ওমানে পাড়ি জমায়। আর ঘটনার দেড়মাস পর তার ছেলেকে ডিবি পুলিশ আটক করে জোর পূর্বক স্বীকারোক্তি নিয়ে তাকে জেল হাজতে পাঠায়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত ১এপ্রিল দুর্বৃত্তরা তার বসত ঘরেও আগুন দেয়। আগুনের ঘটনায় নগদ টাকাসহ মূল্যবান জিনিষপত্র পুড়ে যায়। তিনি শিশু নাবিলা হত্যা ও ধর্ষনের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক প্রকৃত দোষীদের বিচার এবং তার নির্দোষ সন্তানের মুক্তি দাবী করেন। সংবাদ সম্মেলনে ম্যাটস ছাত্র তুষারের মাতা রৌশনারা বেগম, বড় দুই বোন শিরিন আক্তার, তাসলিমা আক্তার ও গ্রামের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

আর পড়তে পারেন