শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সাংসদ লতিফকে মারার হুকুমের আসামি হতেও রাজি মহিউদ্দিন চৌধুরী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৬

চট্টগ্রাম : বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির দায়ে চট্টগ্রামের বন্দর-পতেঙ্গা আসনের সরকার দলীয় সাংসদ এম এ লতিফের ওপর যদি হামলা হয় এবং সেই হামলায় তিনি মারা গেলে তার জন্য আসামি হয়ে আদালতের কাটগড়ায় যেতে রাজি আছেন বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। সোমবার বিকেলে ঐতিহাসিক লালদীঘির মাঠে লতিফের বিচারের দাবিতে ‘চট্টগ্রাম নাগরিক মঞ্চে’র ডাকা সমাবেশে তিনি একথা জানান।

চট্টগ্রামে এম এ লতিফকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘জাতির জনকের ছবি বিকৃতির মাধ্যমে লতিফ যে মহা অন্যায় করেছে, সেকারণে চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুর অনুসারীরা ক্ষোভে ফুঁসছেন। তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, সেটি আইনগতভাবে নিষ্পত্তি হবে। তবে জনগণের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে যদি সে (লতিফ) হামলার শিকার হয়। জনগণের হামলায় সে মারাও যেতে পারে। তাই যদি বাঁচতে চায় তাহলে সে যেন চট্টগ্রামের মাঠিতে পা না রাখে।’2016_02_15_19_30_29_WxoHkCYhpHM3z8NSkZCpLRZReFNQHa_original

তিনি আরো বলেন, ‘এখানে এনএসআই, ডিজিএফআই, সাংবাদিক সকলেই আছেন। লতিফের ওপর যে কোনও সময় চট্টগ্রামে হামলা হতে পারে। ওই হামলায় সে মারাও যেতে পারে। এজন্য আমাকে যদি হুকুমের আসামি করা হয় এবং সেই আসামি হিসেবে কাটগড়ায়ও যেতে মহিউদ্দিন চৌধুরী রাজি অাছে। তবু এই কুলাঙ্গার লতিফকে চট্টগ্রামের মাটিতে নামতে দেয়া হবে না। চট্টগ্রামবাসীকে লতিফকে প্রতিহত করার আহ্বান জানাচ্ছি। তাকে এই লালদীঘির মাঠে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করলাম।’

মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘আমি এই লালদীঘির মাঠে বিভিন্ন ইস্যুতে সামরিক বাহিনীসহ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। আজকে এসেছি, বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতিকারী পাকিস্তানি মনোভাবাপন্ন জামাতের চর লতিফের বিচারের দাবিতে। তার সংসদ সদস্য পদ বাতিলসহ গ্রেপ্তার করে তার বিচারের ব্যবস্থা করা না হলে আগামী ১৫ দিন পর এই লালদীঘির মাঠে অাবার দেখা হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি অতীতেও এই লালদীঘির মাঠে বিভিন্ন দাবি নিয়ে এসেছিলাম। সামরিক বাহিনীসহ বিভিন্নজনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে দেরিতে হলেও সফল হয়েছি। এবার এসেছি বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতিকারী জামাতি চর লতিফের বিচার ও গ্রেপ্তারের দাবি নিয়ে। অবিলম্বে লতিফের সংসদ সদস্য পদ শূণ্য ঘোষণা করে তাকে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে বিচার নিশ্চিত করতে হবে।’

মহিউদ্দিন আরো বলেন, ‘বন্দরকে জিম্মি করে মাফিয়া চক্রের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করছে লতিফ। সে কোন কারণে বলে থাকে সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্র বন্দর লাগবে না। সে একজন ইয়াবা ব্যবসায়ী, চোরাকারবারী ও কোকেন পাচারকারী। তার মত টাউট-বাটপার চট্টগ্রামে নেই। তাকে এখনো যারা সহযোগিতা করছেন, তাদের বলছি, আবেগ নিয়ে খেলবেন না। লতিফের পাশ থেকে সরে যান। বঙ্গবন্ধুকে অবমাননাকারীকে কোন রকমের ছাড় দেয়া যাবে না।’

সাবেক মেয়র বলেন, ‘লতিফের বিরুদ্ধে যে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আদালতে দায়ের করা হয়েছে সেটি এখন তদন্ত চলছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পেলে সেটি সরাসরি মামলা হিসেবে গণ্য হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করব, অভিযোগটি দ্রুত যাতে সরাসরি রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হিসেবে নেয়ার ব্যবস্থা করা হবে।’

এসময় নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি খোরশেদুল আলম সুজন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী নিয়ে কেউ কিছু বললে কিংবা লিখলে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করে। কিন্তু লতিফ এই ধরণের একটি অন্যায় করলেও তার বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের পুলিশ কেনও এখনো চুপ করে আছে। আমি পুলিশ কমিশনারকে বলব, আপনি বাদি হয়ে লতিফের বিরুদ্ধে দ্রুত একটি মামলা করেন।’

তিনি বলেন, ‘আশা করছি আগামী ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে লতিফ চুরা সংসদ থেকে বিদায় নেবে। প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবি আবেগের বিষয়টি বুঝে যাতে এ বিষয়ে লতিফের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নেন সমাবেশ থেকে সেই দাবি করছি।’

নাগরিক মঞ্চের আহ্বায়ক ও নগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এ কে এম বেলায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে ১৪ দলসহ নগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগের অসংখ্য নেতাকর্মী সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

বাংলামেইল

আর পড়তে পারেন