রবিবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সিটি কর্পোরেশন চালাতে অভিজ্ঞতা বড় বিষয় নয়, প্রয়োজন শিক্ষা ও উপযুক্ত পরিকল্পনা: এমপি বাহার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১, ২০২৪
news-image

স্টাফ রিপোর্টার :

কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি বলেন, একসময় ‘ ঐতিহ্যের কুমিল্লাকে বলা হতো কুইন সিটি অব ইন্ডিয়া’। কুমিল্লায় সেই ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে চাই। অনেক স্বপ্ন নিয়ে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন তৈরী করেছি। ১৩ বছরেও সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়নি। আজ অটোতে ধাক্কা খেয়ে মানুষ মরে, এক ঘন্টার বৃষ্টিতে শহর তলিয়ে যায়। সিটি কর্পোরেশন চালাতে অভিজ্ঞতা বড় বিষয় নয়, প্রয়োজন শিক্ষা ও উপযুক্ত পরিকল্পনা। সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হচ্ছেন যুগ্ম সচিব মর্যাদার কর্মকর্তা। ১০-১২ জন প্রথম শ্রেনির কর্মকর্তা রয়েছেন। তাদের চালাতে যোগ্যতা প্রয়োজন। আমাদের এই কুমিল্লার এক সময় প্রতিনিধিত্ব করত বাবু ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত, নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানী, উস্তাদ আয়াত আলী খাঁ, অচীন রায়ের মতো লোক। আমরা তাদের উত্তরসূরী। আমি এমপি না হলে হয়ত নতুন প্রজন্ম তাদের ভুলে যেত। আমি তাদেরকে জাগিয়ে তুলেছি। নতুন প্রজন্ম যেন তাদের নিয়ে গর্ব করতে চায়। অনেকে বলেন, রাজশাহী সিটি অনেক সুন্দর সিটি। আর আমিও বলি ,কুমিল্লা এগুলে এগুবে বাংলাদেশ। সকলে মিলে কুমিল্লাকে এগিয়ে নিতে হবে। শেখ হাসিনার বাংলাদেশে এখন টাকার কোন প্রবলেম নয়। কুমিল্লায় নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে হবে।

শুক্রবার ( ১ মার্চ ) রাতে নগরীর শিল্পকলা একাডেমিতে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কুমিল্লা মহানগর আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি এসব কথা বলেন। আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার টানা চতুর্থবারের মতো এমপি নির্বাচিত হওয়ায় এ সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। এতে নগরীর ৯১ টি পূজা মন্ডপের প্রতিনিধিসহ প্রায় দেড় সহস্রাধিক সনাতন ধর্মাবলম্বী অংশ নেন।

সংবর্ধনায় হাজী বাহার এমপি আরও বলেন, কুমিল্লার মানুষ যেমন আমাকে ভালোবাসে আমিও তাদেরকে ভালোবাসি। আমার বিরুদ্ধে যখন চক্রান্ত তখন সকলে মিলে মোকাবেলা করে। গত নির্বাচনে আমার মনোনয়ন নিয়ে বড় ষড়যন্ত্র হয়েছে, মনোনয়নের পরও চক্রান্ত থামেনি। গত ২৭ ডিসেম্বর কুমিল্লা অনেক মানুষ আমার জন্য বিনিদ্র রজনী কাটিয়েছে। আমিও আপনাদের ভালোবাসা শক্তি নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সাহসী সন্তানের মতোই মোকাবেলা করেছি।

এ ষড়যন্ত্রের সাথে কিছু হিন্দু যেমন জড়িত তেমনি কিছু মুসলিমও জড়িত। যেসব হিন্দুরা আমার জন্য অভয় আশ্রম বিক্রি করতে পারেনি তারা তো চক্রান্ত করবেই। আমি রাজনীতির মানুষ, হিন্দু- মুসলিম নয়, মানুষ হিসেবে আমি সকলকে ভালোবাসি। বিগত ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে মুসলিমসহ কুমিল্লা সনাতন ধর্মাবলাম্বীরা বাক্স ভরে আমাকে ভোট দিয়েছে ,আজ তারা হৃদয় ভরে ফুলেল সবংর্ধনা দিচ্ছে। আপনাদের ভালোবাসা নিয়েই আগামীর কুমিল্লাকে সাজাতে চাই। সেই ১৯৮৪ সালে তরুণ বয়সে কুমিল্লা পৌরসভায় নির্বাচনের সময় বলেছিলাম,কুমিল্লার হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে চাই। দূনীর্তির করাল গ্রাসে সকল অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কুমিল্লাবাসী। যদি দুর্ণীতিমুক্ত একটি স্বচ্ছ প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারি তাহলে কুমিল্লা হবে বাংলাদেশের একটি শ্রেষ্ঠ জায়গা।

মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবু শিবু প্রসাদ রায়ের সভাপতিত্বে মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অচিন্ত্য দাশ টিটুর সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় কমিটির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজমুল হাসান পাখি, চান্দিনা উপজেলা চেয়ারম্যান বাবু তপন বকশী, নারী নেত্রী পাপড়ী বসু, প্রবীণ আইনজীবি এড. তপন বিহারী নাগ, পূজা উদযাপন পরিষদের নেতা নির্মল ঘোষ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী প্রদীপ নন্দী প্রমুখ।

আর পড়তে পারেন