মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

স্মৃতির ক্যানভাসে আজো অমলিন ভিক্টোরিয়া কলেজ রোভারিং

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৩, ২০১৭
news-image

হালিম সৈকত ঃ
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপ বাংলাদেশ স্কাউটস রোভার অঞ্চলের আওতায় যতগুলো দল রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম। নেতৃস্থানীয় দল গুলোর একটি। ভিক্টোরিয়া কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের যাত্রা ১৯৭৪ সালে। যাত্রার পর থেকে অদ্যবদি অসংখ্য নেতৃত্ব তৈরি হয়েছে এ দল থেকে। বলা যায় নেতৃত্ব তৈরির এক কারখানা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপ। রোভার স্কাউট গ্রুপের ইতিহাসে প্রথম সিনিয়র রোভার মেট আমাদের সকলের প্রিয় মোঃ মোস্তাফিজুল কাদের ভাই। যিনি বর্তমানে একজন এডভোকেট। যিনি হিসাবে পাক্কা, কথায় টাটকা। সকলের সাথে খুব সহজে মিশতে পারেন। একজন নিরহংকার ব্যক্তি।
তারপরে দায়িত্ব পান মোঃ আব্দুল মতিন, অতপর মোঃ মোস্তাক আহমেদ। ৪র্থ সিনিয়র রোভার মেট মোঃ আবদুল কুদ্দুস। যিনি পেশায় একজন কাপড় ব্যবসায়ী। তিনি একজন হাসোজ্জ্বল মানুষ। সর্বদা মুখে হাসি লেগেই থাকে। স্কাউট ছেড়েছেন সেই ১৯৮০ সালে কিন্তু যার রক্তে মিশে আছে স্কাউট তিনি কি করে স্কাউট ছাড়বেন ? তাই তিনি তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়েছেন ’ক্যাটস প’।


এরপর দায়িত্ব অর্পিত হয় ফরিদ উদ্দিন সিদ্দিকীর উপর। যিনি একজন জাত স্কাউট। স্কাউট কাকে বলে, কত প্রকার কি কি তাকে দেখে শিখতে হবে। একজন পুরোপুরি স্কাউট যাকে বলে, তিনি হচ্ছেন আমাদের সকলের প্রিয় মুখ ফরিদ ভাই। ফরিদ ভাই বলেই আমরা তাকে ডাকি। ফরিদ ভাই একজন নরম মনের অমায়িক ব্যক্তির নাম। কখনো কারো সাথে রাগ করে কথা বলেছেন বলে আমার চোখে পড়েনি। স্কাউটিং শিখতে হলে তাঁকে ফলো করতে হবে। বলতে গেলে বলা যায় কুমিল্লার স্কাউট আন্দোলনকে তিনিই ্ আগলে রেখেছন। স্কাউটের এমন কোন প্রোগ্রাম নাই যেখানে তাঁর পদচারনা নেই। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ স্কাউটস কুমিল্লা অঞ্চলের সহকারি কমিশনার (সংগঠন),কুমিল্লা রোভার অঞ্চলের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। কুমিল্লার এমন কোন সংগঠন নেই সেখানে ফরিদ উদ্দিন সিদ্দিকীকে পাওয়া যাবে না। তিনি কুমিল্লা কালচারাল কমপ্লেক্সের সম্পাদক। সবচেয়ে বড় কথা হলো বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রাক্তন রোভারদের নিয়ে এক্স রোভার এসোসিয়েশন গঠন করা হয়। এই এক্স রোভার এসাসিয়েশনের তিনি সভাপতি ।
১৯৮১-১৯৮৩ দায়িত্ব পান মোঃ আনোয়ার হোসেন এবং শরিফ আহমেদ দিদার ভাই পান তার পরেই।
মোঃ আবুল খায়ের ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রথম প্রেসিডেন্টস রোভার স্কাউট এবং ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে নির্বাচন করে চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রথম সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি হিসেবে জয় লাভ করেন। এর আগে অনেকে নির্বাচন করেও পাশ করতে পারেননি। তাছাড়া ৯ম এক্স এসআরএম। একজন অত্যন্ত দক্ষ রোভার ছিলেন তিনি। কথা বলেন অল্প, করেন কাজ না স্বল্প। তিনি আমাদের খায়ের ভাই, বাংলাদেশ স্কাউটসে গেলে তাঁকে পাই। সারা দেশের রোভারদের কাছে তিনি একজন অনুকরনীয় ব্যক্তিত্ব। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ স্কাউটসের উপ-পরিচালকের দায়িত্বে রয়েছেন।
কথায় বলে আগের লাঙল যেভাবে যায় পরেরটাও সেভাবে যায়। খায়ের ভাইয়ের সেই দক্ষতার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পেরে ছিলেন সাংবাদিক মাসুক আলতাফ চৌধুরী। তাঁর প্রধান বৈশিষ্ট হলো পরিকল্পনা মাফিক কাজ করা। যতটুকু শুনেছি এবং দেখেছি তিনি একজন ঘাড় ত্যাড়া মানুষ। তবে নিখাঁদ একজন স্পষ্টবাদী মানুষ, সেই অর্থে ত্যাড়া। তিনিও চট্টগ্রাম বিভাগীয় সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি ও এসআরএম ছিলেন। এখন তিনি দৈনিক সমকালের স্টাফ রিপোর্টার এবং কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সভাপতি। কুমিল্লায় যে কয়জন প্রথিতযশা সাংবাদিক রয়েছেন তাদের অন্যতম।
একাদশ তম সিনিয়র রোভার মেট শাহাদাৎ হোসেন সরকার। তাইতো বলি তাঁর মতো এমন রোভার আরো বেশি দরকার। বর্তমানে তিনি কসবা টি আলী কলেজের লেকচারার।
শুনেছি ইকবাল হোসেন ভাই খুব রাগী, তিনি কখনো কাজে দেন না ফাঁকি। রোভারের সর্বোচ্চ এ্যাওয়ার্ড পিআরএস পেয়ে ভিক্টোরিয়া কলেজকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়।
আবু তাহের ভাইকে দেখিনি কখনো,দেখার ইচ্ছা আছে মনে এখনো। ২০০০-২০০১ এসআরএম হন মোঃ মিজানুর রহমান। এরপরে আসেন আবু ইউসুফ মোঃ আরিফুজ্জামান। প্রেসিডেন্টস রোভার অব বাংলাদেশ স্কাউটস। বাংলাদেশের ইতিহাসে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত এক সাথে দুই ভাই পিআরএস। আবু ইউসুফ আরিফুজ্জামান এবং কুমিল্লা বার্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মোঃ আঃ মান্নান উভয়ই পিআরএস। মান্নান ভাই একজন সজ্জন মানুষ।
মোতাহের হোসেন ভাই আসলে দলে, কর্মচাঞ্চল্য ফিরে দলে। সদা হাসোজ্জ্বল জিয়াউল করিম জাবেদ ভাই, প্রতিটি ক্ষেত্রে এখনো তার তুলনা নাই।
অতপর পাঠশালা কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মনিরুল ইসলামের উপর দায়িত্ব অর্পিত হয়। তাঁবু জলসায় তার জুড়ি পাওয়া ভার। তিনি একজন মজার মানুষ। গানে তার গলা রয়েছে । সবাইকে আনন্দ ফূর্তিতে মাতিয়ে রাখাই তার অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

আলী আকবর ভাইয়ের গাঁয়ের রং কালো কিন্তু তিনি মানুষ হিসেবে বেশ ভালো। আমি যখন ভিক্টোরিয়া কলেজে রোভার স্কাউট গ্রুপে ভর্তি হই তখন তিনি সিনিয়র রোভার মেট ছিলেন। একজন পরিশ্রমী মানুষ তিনি। দক্ষ ও নিষ্ঠাবান রোভার হিসেবে তাকে দেখতে পাই।
আতাউর- জুনায়েদ একটি জুটি। বাংলাদেশ স্কাউটসে তাদের নাম ছিল সবার মুখে মুখে। তাঁদেরকে চেনে না এমন লোক খুজে পাওয়া যাবে না। আতাউর-জুনায়েদ নাম দুটি ছিল এক অপরের পরিপূরক। দলে সকল রোভারদের কাছে তাঁদের জনপ্রিয়তা ছিল আকাশছোঁয়া।
এই জুটির পর নেতৃত্বের পালা বদলে সিনিয়র রোভার মেট আসনে অধিষ্ঠিত হন মোঃ কবির হোসেন। অভিমানী ছেলে। রান্নাবান্নায় তাঁর জুড়ি নাই। ২০০৭ সালে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমুদ্র সৈকতের পাড়ে অনষ্ঠিত সেন্টেনারী কমডেকাতে তাঁর নেতৃত্বেই অংশগ্রহণ করি। সাত দিন ছিলাম সাত দিনই কবির ভাই রান্না করে খাইয়েছেন। অল্পতেই তার চোখে পানি চলে আসে। কবির ভাই চট্টগ্রাম বিভাগের শ্রেষ্ঠ রোভার নির্বাচিত হয়েছিলেন।

তারপরে ২৩তম সিনিয়র রোভার মেট হন মোঃ খালেকুজ্জামান। গেজেটের রাজা বলা হত তাঁকে। গেজেটগুলো তার হাতের ছোঁয়ায় নিপুনভাবে ফুটে ওঠত। ফলে সকাল বেলার পাখি/মনিং বার্ডে বরাবরই ভিক্টোরিয়া কলেজ প্রথম হতো। বর্তমানে ভিক্টোরিয়া কলেজে আমরা যে রোভার সংগীতটি গাই, সেই গানের গীতিকার ও সুরকার তিনিই। আমারা সকলে আমরা রোভার ভাই/ সেবাই মোদের মূল মন্ত্র । একজন কঠোর মনের মানুষ। তবে কুটরে লুকায়িত রয়েছে তার বিশাল মায়ার সমুদ্র্র।

কলেজ পরিচালনায় দক্ষ মহিউদ্দিন লিটন, কত আর করব তাঁর গুণকীর্তন। প্রোগ্রাম করায় তার জুড়ি নেই। কুমিল্লা শহরের এমন কোন এলিট পার্সন নেই যে তাঁকে কোন না কোনভাবে কোন একটি প্রোগ্রামে নিয়ে আসেননি। তার রয়েছে যতেষ্ট ম্যানেজ ক্ষমতা। খুব সহজে সকলের সাথে মিশতে পারেন। বর্তমানে তিনি কুমিল্লা মডেল কলেজের অধ্যক্ষ।
আতাউর-জুনায়েদ এর পর আবার আমরা খুজে পাই রিমন-মাইনুদ্দিন জুটি। দিদারুল হক রিমন গানের পাখি বলা চলে। গান আর সুরের মুর্ছনায় মাতিয়ে রাখতো পুরো ডেন। দুজনেই দুটি কলেজের প্রভাষক । মাইনুদ্দিন খন্দকার হাজী আক্রাম উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজে এবং রিমন ভাই আছেন আনছার আলী মেমোরিয়াল বিএম কলেজে। রিমন ভাই একজন পিআরএসও।
২৭ তম সিনিয়র রোভার মেট ছিলেন আলাউদ্দিন সরকার। আকারে ছোট হলেও ভেতরে ছিল দারুন প্রতিভা তার। চুটকি বলায় সে ছিল ওস্তাদ। ২০০৮ সালে আমি, পিআরএস ফখরুজ্জামান খন্দকার জুয়েল, ওবায়েদুল হক ভূইয়া এবং আলাউদ্দিন সরকার পাঁয়ে হেটে ১০০ মাইল র‌্যাম্বলিং করে ছিলাম। আমাদের ডেস্টিনেশন ছিল কুমিল্লা থেকে হাজীগঞ্জ হয়ে নোয়াখালীর রায়পুর পর্যন্ত।
অতপর শান্ত স্বভাবের ছেলে ওমর ফারুক আসে নেতৃত্বে। কথা কম কাজ বেশি এই হলো ফারুকবাজী।
ওমর ফারুকের পর পরই দায়িত্বের ভার পরে আমার উপর। ২৯তম সিনিয়র রোভার মেট হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে আমি পড়েছিলাম এক মহা সংকটের মুখোমুখি। সেই সংকট ও বাঁধাকে পায়ে ঠেলে আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি নিপুনতার সাথে।
আমার পরে আসে এমদাদুল হক। একজন অনুগত রোভার কাকে বলে। অমায়িক ও কোমল মনের একজন রোভার ছিল সে। অর্পিত দায়িত্ব পালনে সে ছিল আপোষহীন।
সময়ের পরিক্রমায় দায়িত্ব পায় জিয়াউল হক মোহন। তারপরে মাহবুবুল আলম। কোন প্রোগ্রামের কমিটি গঠন করা হলে খাবারের দায়িত্বটা যে পাবে সে আর কেউ না রোভার মাহবুব।
এরপরে দায়িত্বের ভার পরে আ, ছ, ম ছামচুছ সালেকীনের হাতে। রোভারদের কাছে সে একজন প্রিয় মুখ। বর্তমান সিনিয়র রোভার মেট কায়েদ আহমেদ চৌধুরী। তারা দুজনই সহচর থাকা অবস্থায় আমার কাছে পরীক্ষা দিয়ে সদস্য স্তরে উত্তীর্ণ হয়েছিল। রোভারিংয়ে সালেকিনের আগ্রহ ছিল প্রচুর।
আমার বাসার সাথেই ছিল তার বাসা যে কোন বিষয়ে প্রশ্নের অবতারনা হলেই চলে আসত আমার কাছে। ভাইয়া এটা কি, ওটা কি। পত্তনেই বুঝা যায় ঘুড়ি উড়বে কি উড়বে না ? তাই তো আজ সে সিনিয়র রোভার মেট হতে পেরে ছিল। ছেলে ভালো হলেও মনে সব সময় সন্দেহের দানা বেধে রাখে সে।
কায়েদ তো হারিয়েই গিয়েছিল। রোভারিংয়ে আসতো না বললেই চলে। আমি তাকে সচল করেছি। আজ তার নেতেৃত্বে চলছে দল।
সবশেষে একজন রোভাররের কথা বলে লেখা শেষ করব তিনি সিনিয়র রোভার মেট হতে না পারলেও একজন দক্ষ ও যোগ্য রোভার ছিলেন মাজহারুল আলম রাসেল। আমার রোভার জীবনে তার মতো এতো কর্মঠ, পরিশ্রমী, দক্ষ রোভার পাইনি। তিনি ছিলেন শাপলা কাব এ্যাওয়ার্ড ও পিএস পাওয়া একজন রোভার।
আর মেয়েদের মধ্যে নাহিদা খুবই একজন ভালো রোভার ছিল। রিপা,সালমা,শিলা, মাহিন, রোকসানা,আয়েশা তানি,ইভানা,ফাতিহা,আয়েশা নুর, রাজলক্ষী পাল, ফাতিহা সুলতানা তারাও ছিল বেশ।
বোভারদের মধ্যে সাজাহান সাজু, ইমরান, শরীয়ত উল্লাহ, আঃ রহমান, আফজাল, মামুন, শরীফ, সাইফুজ্জামান,এবায়েদুল হক, রাসেল মিয়া, অনুপ পোদ্দার, জাহিদ,হাজারী,নাজির ভাই, একরামুল হক,মিঠুনসহ আরো অনেকের কথা মনে পড়ে প্রায়ই।
সবশেষে বলব প্রিয় রোভার স্কাউট লিডার শাহ্ মোঃ মাছুম বিল্লাহ স্যারের কথা। তিনি একজন দক্ষ ও তীক্ষè বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন লিডার ছিলেন। তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের রোভার দলকে দীর্ঘ এক যুগ নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। নিয়ে গিয়েছিলেন এক অনন্য উচ্চতায়। সারা বাংলাদেশে যে কয়টা প্রথম সারির রোভার দল রয়েছে তার মধ্যে প্রথম দশটির একটি দলে পরিনত করেছিলেন তিনি এই দলটিকে। তাঁর নেতৃত্বে প্রেসিডেন্ট রোভার স্কাউট এ্যাওয়ার্ড পেয়েছিল ২ জন রোভার। তিনি দলে প্রচুর সময় দিতেন। কখনো না বলতেন না। তিনি সব সময় ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে দল পরিচালনা করতেন। তিনি চট্টগ্রাম বিভাগের শ্রেষ্ঠ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। বর্তমানে তিনি জেলা রোভারের কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আমাকে সহযোগিতা না করলে আজকের আমি আর আমি হয়ে উঠতে পারতাম না। তার নেতৃত্বেই আমরা পুরো উত্তরবঙ্গ ঘুরে এসেছিলাম। পর্যবেক্ষণ করেছিলাম বঙ্গবন্ধু সেতু, রংপুরের ভিন্নজগৎ, দিনাজপুরের কান্তজীর মন্দির, স্বপ্নপুরী, রামসাগর, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, বড়পুকুরিয়ার কয়লাখনিসহ আরো কিছু স্থান। যা ভুলবার মতো নয়। ২০০৭ সালে কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতে ইন্টারন্যাশনাল সেন্টেনারী কমেডেকায় কাটিয়েছিলাম ৭ দিন। সেই সব স্মৃতি আজো ভেসে ওঠে স্মৃতির ক্যানভাসের রঙিন জানালায়।
—মোঃ আবদুল হালিম
লেখক: সাবেক সিনিয়র রোভার মেট,কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপ
সাবেক সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি, কুমিল্লা জেলা রোভার অঞ্চল |

আর পড়তে পারেন