মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

হঠাৎ কুমিল্লায় বেড়েছে ধর্ষণ ও গণধর্ষণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১০, ২০১৯
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

কুমিল্লায় ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মত ঘটনা অহরহ ঘটছে। এসব ঘটনায় পৈশাচিকতার নানা উদাহরণ তৈরি করেও আইনের ফাঁক দিয়ে অনেক সময় অপরাধীরা ছাড় পেয়ে যাচ্ছে। আর দেহ ভোগী পিপাসু নরপশুরা আইনের ফাঁকে ছাড়া পেয়ে নতুন নতুন শিকারে নেমে পড়ে। এতে করে ফের ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মত নানা ঘটনার জন্ম হয়। অন্যদিকে ধর্ষিতা সহ তার পুরো পরিবারকে সারা জীবন কলঙ্কের বোঝা হয়ে বেড়াতে হয়।

১ থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ধর্ষণের ঘটনার চিত্র তুলে ধরা হল।

৪ জানুয়ারিঃ লাকসামে পিতার কর্মস্থলে কন্যা ধর্ষিত অভিযোগে তাজুল ইসলাম মজুমদারকে গ্রেফতার করেছে লাকসাম থানা পুলিশ। স্থানীয় সূত্র ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই কিশোরীর পিতা বেশ কিছুদিন ধরে কৃষ্ণপুর এলাকায় তাজুল ইসলাম মজুমদারের (৪২) মাছের পুকুরে পাহারাদারের কাজ করতো। পুকুরের পাশেই একটি টিনের ঘরে পিতা-মাতা ও এক ভাইসহ বসবাস করতো ওই কিশোরী। গত ৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টার দিকে পুকুরের মালিক তাজুল ইসলাম মজুমদার কৌশলে ঘরের উত্তর পাশে নিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ করে। এ সময় কিশোরীর মা ঘুমিয়ে ছিলেন এবং পিতা পুকুর পাহারায় ব্যস্ত ছিলো। ঘটনার পর কিশোরী কান্নাকাটি করতে থাকে।

৭ জানুয়ারিঃ কুমিল্লার বুড়িচংয়ের পশ্চিমসিংহ এলাকায় বন-রুটির লোভ দেখিয়ে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায় কাজী ইউনুস (৫৫) নামে এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার ভারেল্লা উত্তর ইউনিয়নের পশ্চিমসিংহ (মোল্লা বাড়ীর) এলাকায় মসজিদ ভিত্তিক শিশু শিক্ষা স্কুলেন প্লে শ্রেণির ছাত্রী (০৫) তাঁর বাড়ির উঠানে খেলা করছিল। এসময় পাশের বাড়ির মৃত. কালা মিয়ার ছেলে কাজী ইউনুস (৫৫) তাঁকে দোকান থেকে বন-রুটি কিনে দেয়ার লোভ দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী একটি পরিত্যাক্ত জমিতে নিয়ে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এ সময় শিশুটি চিৎকার করলে লম্পট ইউনুস শিশুটিকে ছেড়ে দেয়। শিশুটি বাড়ীতে গিয়ে তাঁর মায়ের কাছে ঘটনাটি বলে। পরে পরিবারের লোকজন শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

৯ জানুয়ারিঃ কুমিল্লায় নারী নির্যাতনের মামলার রায় পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক নারী। ধর্ষণের ঘটনায় বুধবার (৯ জানুয়ারি) দুপুরে মামলা দায়েরের পর আনিছুর রহমান নামে এক আইনজীবীর সহকারী ও আরেক আইনজীবীর বাড়ির দারোয়ান লিটন বিশ্বাসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, জেলার দেবিদ্বার উপজেলার চাঁনপুর গ্রামের চার সন্তানের জননী তার স্বামী আবদুল মালেকের বিরুদ্ধে আদালতে নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করেন। এ মামলার রায় পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে কুমিল্লার আদালতের আইনজীবী সহকারী জহিরুল ইসলাম (৩৫) ওই নারীকে গত ২৮ ডিসেম্বর (শুক্রবার) শানিচোঁ গ্রামের এক আইনজীবীর নির্জন বাড়িতে নিয়ে আসে। সেখানে তাকে দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আটকে রেখে বাড়ির দারোয়ান লিটন বিশ্বাস (৩৮), আরেক আইনজীবী সহকারী আনিছুর রহমান (৩৫) মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘একের পর এক ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মত ঘটনা ঘটে চলেছে। কিছুতেই এই পৈশাচিকতার লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছেনা। এতে করে বারবার এসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। আর নরপশুরা পৈশাচিকতার সীমা ছাড়িয়ে আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছে। বিশেষ করে আইনের ফাঁক দিয়ে এসব নরপশুরা ছাড়া পেয়ে আরো নতুন নতুন ধর্ষণ ও গণধর্ষণের ঘটনার জন্ম দিচ্ছে। এতে করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর জনগণের আস্থা দিন দিন কমে যাচ্ছে।’

আর পড়তে পারেন