শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

হাজীগঞ্জে ওয়ার্ডবয় ও দোকানের কর্মচারী এখন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ! জনমনে আতংক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৩, ২০১৭
news-image

সুজন দাস, হাজীগঞ্জ ঃ
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে দুইটি প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে গত সপ্তাহে দুইজন ভূয়া বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জেলাজুড়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। সাধারণ মানুষ উপজেলার প্রতিটি প্রাইভেট হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের সনদপত্র যাচাই করার দাবি জানিয়েছেন।
গ্রেপ্তার হওয়া দুইজনের একজন ওয়ার্ডবয় ও একজন ঔষধের দোকানের কর্মচারী ছিলেন। তাঁরা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সেজে দেশের বিভিন্ন স্থানে চেম্বার খুলে রোগী দেখতেন। তাঁদের চিকিৎসাপত্রে অনেকেই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে। দুই ভূয়া চিকিৎসক গ্রেপ্তার হওয়ার পর অন্যান্য হাসপাতালগুলি থেকে অনেকে গা ডাকা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।
এ ঘটনার প্রেক্ষাপটে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনোয়ারুল আজিম উপজেলার বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের কাগজপত্র সংরক্ষনের জন্য লিখিত নির্দেশ দিয়েছেন। নির্দেশনায় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, গত কয়েকদিন ধরে অত্র উপজেলার বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে ভূয়া চিকিৎসক ধরা পড়ছে। এই প্রেক্ষিতে সিভিল সার্জন মহোদয়ের নির্দেশে আপনারা হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে কর্মরত চিকিৎসকগনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ১৫ দিনের মধ্যে সংরক্ষণ করতে হবে। কর্তৃপক্ষ যে কোন সময় চিকিৎসকগনের কাগজপত্র যাচাই করে দেখবে।
হাজীগঞ্জ থানা ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ অক্টোবর হাজীগঞ্জ পূর্ব বাজারে অবস্থিত সেন্টাল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে নাক, কান ও গলা রোগ বিশেষজ্ঞ পরিচয়দানকারী ভূয়া বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মো. আকতারুজ্জামানকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। পুলিশ তাঁর কাছ থেকে দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র ও তিনটি ভিজিটিং কার্ড উদ্ধার করে। এ ঘটনায় সেন্ট্রাল হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. জহিরুল ইসলাম বাবুল বাদী হয়ে প্রতারণার অভিযোগে হাজীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
এ ঘটনার চারদিন পর ১৭ অক্টোবর হাজীগঞ্জ টাওয়ারে অবস্থিত ইসলামিয়া মডার্ন হাসপাতাল থেকে মেডিসিন, চর্ম, যৌন ও কসমেটিক্স বিশেষজ্ঞ পরিচয়দারী এসএম জামান চৌধুরীকে তার সহযোগিসহ পুলিশ গ্রেপ্তার করে। জামান চৌধুরী ৬ মাস ধরে সেখানে রোগী দেখেন। থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) একেএম হাসান মাহমুদুল কবির বাদী হয়ে জামানসহ তিনজনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
ভূয়া চিকিৎসক ধরার পেছনে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুইজন ও বেসরকারী হাসপাতালের দুইজন চিকিৎসক মূখ্য ভূমিকা রেখেছেন। এরা হলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) মো. সাইফুল ইসলাম, বর্তমান আরএমও আহমেদ তানভীর হাসান, শাহমিরান হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের গাইনি সাজন একেএম আজাদ ও ফাতেমা গনি ডেন্টাল সেন্টারের দন্ত চিকিৎসক মোঃ জামাল হোসেন।
সেন্ট্রাল হাসপাতাল ও থানায় করা মামলা সুত্রে জানা গেছে গ্রেপ্তার হওয়া মো. আক্তারুজ্জামানের প্রকৃত নাম মো. আখতার হোসেন সরকার। আখতার হোসেন সিরাজগঞ্জ জেলার বাসিন্দা। তার বাবার নাম চাঁদ আলী সরকার এবং মাতার নাম তারিফজান বেগম। আখতার হোসেন এইচএসসি পাশ করেছেন। তিনি ঢাকার কাজীপাড়া এলাকায় ব্রাদার্স ফার্ণিচার সংলগ্ন লাইফ এইড স্পেশালাইজড হসপিটালের নাক, কান, গলারোগ বিশেষজ্ঞ ও হেড নেক সার্জন পদে কর্মরত। তিনি দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রাইভেট হাসপাতালগুলোতে নিয়মিত চেম্বার করেন। মাদারীপুর জেলায় চেম্বার খুলে চিকিৎসক পরিচয়ে তিনি সেখানে বিয়ে করেন।
সেন্ট্রাল হাসপাতালের অংশীদার মিরাজুল ইসলাম বলেন, গত ৬ অক্টোবর হাসপাতালে এসে আখতার নিজেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পরিচয় দেন। ১৩ অক্টোবর তাকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ হাসপাতালে আসতে বলা হয়। হাজীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক আরএমও সাইফুল ইসলাম ও শাহমিরান হাসপাতালের গাইনী সার্জন একেএম আজাদ ওনার সাথে কথা বলে তার সনদপত্র দেখতে চান। তিনি পরে সনদপত্র দিবেন বললে বিষয়টি তাঁদের সন্দেহ হয়। পরে পুলিশকে খবর দিয়ে আখতারকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আখতার হোসেন ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ওয়ার্ডবয় হিসেবে কর্মরত ছিলেন বলে জানান।
এ দিকে ইসলামিয়া মডার্ন হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার হওয়া জামান চৌধুরী মাত্র ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। তিনি ৬ মাস ধরে প্রতি সোমবার সেখানে রোগী দেখতেন। ভিজিটিং কার্ড ও ইসলামিয়া মর্ডান হাসপাতালে সার্টনো সাইনবোর্ডে জামান চৌধুরী ডিগ্রি লেখায় অসামঞ্জস্য ছিল। তিনি মেডিসিন, চর্ম, যৌন ও কসমেটিক্স বিশেষজ্ঞ পরিচয় লিখেন।
জামানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ পাদ্রীমিশন হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার সাইফুল ইসলাম বছর খানেক আগে ইসলামিয়া মডার্ণ হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। তিনি জামান চৌধুরীকে সেখানে চেম্বারের ব্যবস্থা করে দেন। ডিগ্রিতে অসামঞ্জস্য থাকায় ১৭ই অক্টোবর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও আহমেদ তানভীর হাসান, শাহ্মিরান হাসপাতালের গাইনী সার্জন একেএম আজাদ ও ফাতেমা গনি ডেন্টাল সেন্টারের মো. জামাল হোসেন তার চেম্বারে যান। তাঁরা তাঁর ডিগ্রি ও চিকিৎসা সনদ সম্পর্কে জানতে চান। এ সময় জামান চৌধুরী কৌশলে পালানোর চেষ্টা করেন।
এ প্রসঙ্গে আরএমও আহমেদ তানভীর হাসান বলেন, ইসলামিয়া মডার্ণ হাসপাতালের সাইনবোর্ড ও ভিজিটিং কার্ডে লেখা ডিগ্রি গুলো নিয়ে আমাদের সন্দেহ হয়। সে জন্য ১৭ অক্টোবর আমরা তাঁর চেম্বারে যাই। এ সময় তার চেম্বারের সামনে ১৫/১৬ জন রোগী ছিল। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জামান পালানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, মেডিসিন ও চর্ম, যৌন এবং কসমেটিক্স ডিগ্রি সম্পূর্ণ আলাদা। তাছাড়া জামান নিজে প্রেসক্রিপশন লিখতে জানেন না। লেখার জন্য সহযোগি হিসেবে এমরান হোসেনকে রেখেছেন।
আরএমও আরো বলেন, ৮ম শ্রেণি পাশ করে ভূয়া চিকিৎসক সেজে আমাদের মান সম্মান নষ্ট করেছেন। সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। তাদের কারণে আমরা লেখাপড়া করে যারা চিকিৎসক হয়েছি তাঁরা এখন জনগনের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হচ্ছে।
থানার ওসি (তদন্ত) আবদুল মান্নান জানান, জিজ্ঞাসাবাদে জামান চৌধুরী ঢাকা মিডফোর্ড এলাকায় একটি ঔষধের দোকানের কর্মচারী ছিলেন। সেখান থেকে ঔষধের নাম জেনে তিনি চিকিৎসক বনে যান। পরে দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রাইভেট হাসপাতালে চেম্বার করেন। জামানের বাড়ি চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার বাজপ্তি গ্রামে। নদী ভেঙ্গে নিয়ে যাওয়ার পর টঙ্গী এলাকার কলেজ গেইটে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন।
আবদুল মান্নান আরো জানান, এ ঘটনায় জামান চৌধুরী, তার সহযোগি এমরান হোসেন ও ডাক্তার সাইফুল ইসলামসহ তিনজনকে আসামী করে থানায় মামলা করা হয়েছে। জামান ও এমরান জেল হাজতে রয়েছেণ। সাইফুল ইসলামকে এখনো গ্রেপ্তার করা যায়নি।
জামান চৌধুরীর কাছে চিকিৎসা নেওয়া মাতৈন গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর হোসেন বলেন, তিন মাস আগে চর্ম রোগের জন্য পাঁচশত টাকা ভিজিট দিয়ে তাকে দেখিয়েছেন। কিন্তু সুবিধা না হওয়ায় সোমবার আবার তার কাছে গিয়েছেন। এর আগেই তাকে ধরে ফেলা হয়েছে। তিনি তার দৃষ্টান্তমূলক শান্তি দাবী করেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনোয়ারুল আজিম বলেন, ডাক্তারদের প্রয়োজনীয় সনদপত্র সংরক্ষনের জন্য উপজেলার ২৪টি প্রাইভেট হাসপাতালে লিখিত চিঠি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।
থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাবেদুল ইসলাম বলেন, গত সপ্তাহে দুটি প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে দুইজন চিকিৎসক ও একজন সহযোগিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তারা জেল হাজতে রয়েছেন।

আর পড়তে পারেন