শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

হিলারি ক্লিনটন কী রাজনীতি থেকে বিদায় নিচ্ছেন ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২২, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট : গত বছরের ৮ নভেম্বরের রাতটি উত্তর আমেরিকায় হিলারি ক্লিনটনের মতো অনেককেই দুঃস্বপ্নের রোদনে ভাসিয়েছে। সে রাতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের ফলাফলে তারা সকলে মোহভ্রষ্ট হন। এমনকি কানাডা সরকারের অভিবাসন ওয়েবসাইটে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারীদের হিড়িক পড়ায় তা বিকল হয়ে পড়ে এবং অনুরূপ হিড়িকের ঘটনা পরিলক্ষিত হয় নিউজিল্যান্ড সরকারের অভিবাসন ওয়েবসাইটে। সে ঘটনাগুলো বাহ্যিক প্রতিক্রিয়া হলেও সমর্থকদের কান্না ও পরবর্তীতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ‘নট মাই প্রেসিডেন্ট’ প্ল্যাকার্ড হাতে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বত্র বিক্ষোভ করেছে লাখো মানুষ। তাই ওই ঘটনাগুলোর মূল্যায়নে হিলারির জনপ্রতিনিধিত্বের বিষয়টিই সর্বজনবিদিত। কেননা তার জীবনের অধিকাংশ সময়ই ‘পাবলিক সার্ভিস’ বা জনসেবায় কেটেছে। তিনি যেমন তার স্বামীকে আইনের শিক্ষার্থী থেকে আরকানসা অঙ্গরাজ্যের গভর্নর থেকে প্রেসিডেন্ট হওয়ায় প্রভূত অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন, তেমনি ফার্স্ট লেডি হিসেবে অপ্রতিরোধ্যহীনভাবেই জনস্বাস্থ্য পরিচর্যার উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছেন। এমনকি স্বামী বিল ক্লিনটনের স্ক্যান্ডালজনিত অভিশংসন প্রয়াসটিও তাকে নীরবে সহ্য করতে হয়েছে। এ কারণে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন যখন তার দ্বিতীয় মেয়াদ শেষে কার্যত রাজনীতি থেকে স্বাভাবিকভাবে বিদায় নেন, হিলারি তখন রাজনীতিতে সদর্পে এগিয়ে আসেন। তার একাগ্রচিত্তের ধীমানসুলভ প্রকৃতি ও অভিব্যক্তি দ্রুতই তাকে পরবর্তীতে নিউইয়র্ক স্টেট সিনেটর ও প্রেসিডেন্সিয়াল প্রার্থীতে রূপান্তর করে। তবে ২০০৮ সালে শিকাগো থেকে বারাক ওবামার উত্থান না ঘটলে, তিনিই সে সময় ডেমোক্রেট) প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হতে পারতেন। তবু হারিয়ে না গিয়ে তিনি ‘সেক্রেটারি অব স্টেট’ বা পররাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন এবং ৬৮ বছর বয়সে ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্সিয়াল প্রার্থিতার জন্য অপেক্ষা করেছেন। ভাবা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ পত্রিকা হিলারিকে সমর্থন সত্ত্বেও তিনি হেরেছেন। এমনকি যে পরাজয় মেনে নেবার বক্তৃতাটি তিনি রেখেছেন, তা বোধ করি আধুনিক রাজনীতির ইতিহাসে একটি মর্মন্তুদ ব্যক্তিগত ঘটনা বলেই চিহ্নিত হয়েছে।

পক্ষান্তরে ডোনাল্ড ট্রাম্প তার নারীঘটিত বিষয়াবলী থেকে মিথ্যাচার ও করফাঁকির মতো ঘটনাগুলো ঘটিয়েও যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশের প্রেসিডেন্ট হতে পেরেছেন। এখন সেই নির্বাচনের ক্ষেত্রে রাশিয়ার পরোক্ষ সম্পৃক্ত ছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। জোর ধারণা চলছে, ট্রাম্পের ওই ঘটনাবলীর সত্যাসত্য যখন ফুঁসে উঠবে, তখন হয়তো তিনি আখের গুছিয়ে নিজের নতুন ভাগ্যান্বষেণে যুক্ত হবেন।

সেই বিবেচনায় সাংবাদিক জোনাথন অ্যালেন ও অ্যামি পারনেসের সাম্প্রতিক প্রকাশিত ‘শ্যাটার্ড’ গ্রন্থটি অমঙ্গলের আত্মপলব্ধিতে টাইটানিক জাহাজের মতো হিলারি ক্লিনটনের নিমজ্জনকে তুলে ধরেছে। কিন্তু বাস্তবেই কী তিনি রাজনীতির মাঠে নিমজ্জিত হয়েছেন? অথবা ডেমোক্রেট দলীয় উদারপন্থী রাজনীতি কী তাকে বিদায় জানাতে পারবে? নাকি জনপ্রিয়তার মানদ-ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের তুলনায় যে ২ দশমিক ১ শতাংশ অর্থাৎ ২৮ লাখ ৬৫ হাজার ৭৫টি ভোট বেশি পেয়েছেন, সেটিকে তিনি দায়িত্ববোধ থেকে উপেক্ষা করতে পারবেন?

সম্ভবত সে বিদায় এখনও অত্যাসন্ন নয়। কেননা অতি সতর্ক ও ধীর গতিতে জনসমক্ষে তার উপস্থিতি ঘটছে। তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিষেকে হাস্যোজ্জ্বলভাবেই স্বামী বিল ক্লিনটনের সঙ্গে উপস্থিত হয়েছেন। এরপর ব্রডওয়ে মিউজিক্যালেও এই দম্পতিকে দাঁড়িয়ে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। একটি বই লিখছেন, সে কথাও জানা গেছে। অপরা উইনফ্রে বা ইলেন ডিজেনেরেসের মতো টিভি শো করেও ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রয়াসটি জাগ্রত করবেন বলে ধারণা। এই এপ্রিলের শেষ নাগাদ নিউইয়র্কে সমকামিদের ‘এলজিবিটি সেন্টার’ এবং মে মাসে তার নিজের শিক্ষাপাদপীঠ ওয়েসলি কলেজের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবার সম্ভাবনাও রয়েছে। কেউ বলছেন, তিনি নিউইয়র্ক সিটির মেয়র হতে পারেন এবং একই সঙ্গে কন্যা চেলসি ক্লিনটনকে নিজের নিউইয়র্ক আসনের জন্য উৎসাহিত করবেন। এ দুটো প্রচেষ্টাই যথার্থ অর্থে পরিপূর্ণ হওয়া সম্ভব। কারণ, নিউইয়র্কের বর্তমান মেয়র বিল ডি ব্লাসিও ডেমোক্রেট দলীয় হওয়ায় তার নিজস্ব গুণেই স্থলাভিষিক্ত হওয়া সম্ভব এবং পাশাপাশি পশ্চিমা বিশ্বে অর্থনীতিবিদ সেথ স্টিফেন্স- ডেভিডোউইচের প্রণীত সংখ্যাতত্ত্বের মতে চেলসির জন্য সিনেটর হওয়াটা ৮০০০ ভাগ অবিসম্ভাবী। তবে হিলারি আদৌ নিউইয়র্ক সিটির মেয়র হতে ইচ্ছুক কিনা কিংবা ২০২০ সালে প্রেসিডেন্ট পদের জন্য আবারও লড়বেন কিনা, সেটি সব কিছুর বাইরে তার প্রকাশিতব্য বইয়ের উপরই নির্ভর করছে। কী হবে তার টাইটেল, কিংবা কী বিষয়বস্তুর আলোকে তিনি নিজেকে আবারও আবেদনময়ী বা দায়িত্বশীল করে তুলবেন, সেটাই দেখার বিষয়। মনে রাখতে হবে তার পরাজয় বাণীতে তিনি বলেছেন, ‘আই নো উই হ্যাভ স্টিল নট শ্যাটার্ড দ্যাট হাইয়েস্ট অ্যান্ড হার্ডেস্ট গ্লাস সিলিং, বাট সামডে, সামওয়ান উইল, অ্যান্ড হোপফুলি সুনার দ্যান ইউ মাইট থিঙ্ক রাইট নাও। লেট আস নট গ্রো ওয়েরি ইন ডুয়িং গুড, ফর ইন ডিউ সিজন, উই শেল রিপ ইফ উই ডু নট লুজ হার্ট’। অর্থাৎ আমি জানি, এখনও আমরা সর্বোচ্চ কঠিন আচ্ছাদনটি চূর্ণ-বিচূর্ণ করতে পারিনি, তবে কোনো একদিন কেউ পারবে, সেটি এখনকার ভাবনার চেয়েও দ্রুত ঘটবে। তাই মৌসুমের ভালো কাজে ক্লান্ত হবেন না, আমরা ফসল তুলবো যদি হতোদ্যম না হই।

আর পড়তে পারেন