Tag Archives: আলোচিত ৩ হত্যা মামলায় দুই কাউন্সিলর কারাগারে ও রিমান্ডে ১

আলোচিত ৩ হত্যা মামলায় দুই কাউন্সিলর কারাগারে ও রিমান্ডে ১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লায় আলোচিত তিন হত্যা মামলায় কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের দুই কাউন্সিলর কারাগারে রয়েছেন আর ১ রিমান্ডে। কুমিল্লা মহানগরীর চৌয়ারা এলাকায় জিল্লুর রহমান চৌধুরী ওরফে জিলানী হত্যা মামলার প্রধান আসামি কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল হাসানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (১৫ মার্চ) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আতাব উল্লাহ্ তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে এ আদেশ দেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম সেলিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগেই একই মামলার দ্বিতীয় আসামি ২৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিল আবদুস ছাত্তার গ্রেফতারের পর বহুল আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় বর্তমানে পিবিআই হেফাজতে রিমান্ডে রয়েছে। আর ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন চাঙ্গিনী এলাকায় সংঘটিত ব্যবসায়ী আক্তার হোসেন হত্যা মামলায় কারাগারে রয়েছেন।

জেলা পিবিআই সূত্রে জানা যায়, যুবলীগ নেতা জিলানী হত্যা মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামি কাউন্সিলর আবুল হাসান দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিলেন। এরই মাঝে তিনি উচ্চ আদালত থেকে অন্তবর্তীকালীন জামিনে লাভ করেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী সোমবার তিনি জেলা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। এর আগে এ হত্যা মামলার এজাহারনামীয় ২ নম্বর আসামি কুসিকের ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুস সাত্তারকে গত ২৬ জানুয়ারি ঢাকার শাহবাগ এলাকা থেকে গ্রেফতারের পর জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। বর্তমানে কাউন্সিলর আবদুস ছাত্তার দেলোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় ৪ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেলোয়ার হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই কুমিল্লার পরিদর্শক মতিউর রহমান।

সোমবার সন্ধ্যায় জিলানী হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পিবিআই কুমিল্লার পুলিশ পরিদর্শক বিপুল চন্দ্র দেবনাথ বলেন, মামলার তদন্তের স্বার্থে এ হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে রিমান্ডে আনার আইনগত পদক্ষেপ নেব। এছাড়াও পলাতক অপর আসামিদের গ্রেফতারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, চৌয়ারা বাজারে আধিপত্য ও রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের সূত্র ধরে গত বছরের ১১ নভেম্বর সকালে সন্ত্রাসীরা যুবলীগ নেতা জিলানীকে নগরীর চৌয়ারা পুরাতন বাজার এলাকায় পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় তার ভাই ইমরান হোসেন চৌধুরী বাদী হয়ে ২৪ জনকে আসামি করে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় কাউন্সিলর আবুল হাসানকে ১ নম্বর ও আবদুস সাত্তারকে ২ নম্বর আসামি করা হয়। থানা পুলিশের পর বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে পিবিআই।

এদিকে, কুমিল্লা নগরীর চাঙ্গিনী এলাকায় চাঞ্চল্যকর ব্যবসায়ী আক্তার হোসেন হত্যা মামলার প্রধান আসামি ও সিটি কর্পোরেশনের ২৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আলমগীর হোসেনকে জেলহাজতে রয়েছেন। গত ৪ ফ্রেব্রয়ারী আক্তার হত্যা মামলার প্রধান আসামী কাউন্সিলর আলমগীর কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক মো. আতাবুল্লাহ তার জামিন না মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত বছরের ১০ জুলাই শুক্রবার বেলা দুইটার দিকে মসজিদ থেকে টেনে-হিঁচড়ে বের করে শত শত মানুষের সামনে কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন ও ভাইয়েরা আক্তার হোসেনকে রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেন। এ ঘটনায় আরও ছয়জন আহত হয়েছিলো। ঘটনার পর দিন ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী রেখা বেগম বাদী হয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় এই মামলা করেন। মামলায় আলমগীর হোসেনকে প্রধান করে ১০ জনকে আসামি করা হয়।