Tag Archives: ইউএনও

সংসদ নির্বাচন: আরও ১৫৮ ইউএনওকে বদলির অনুমোদন

ডেস্ক রিপোর্ট:

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আরও ১৫৮ জন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) বদলি করা হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ২০৫ জন ইউএনওকে নির্বাচন কমিশনের অনুমতিস্বাপেক্ষে বদলি করল সরকার।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ১৫৮ জন ইউএনওকে বদলির পৃথক দুটি প্রস্তাব পাঠালে তাতে সম্মতি দেয় ইসি। এর মধ্যে গতকাল বুধবার ১১০ জন ও আজ বৃহস্পতিবার ৪৮ জন ইউএনওকে বদলির তালিকা ইসিতে পাঠায় মন্ত্রণালয়।

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম ধাপে ৪৭ জন ইউএনওকে বদলির অনুমোদন দেয় ইসি। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ২০৫ জন ইউএনওকে বদলি করা হয়েছে।

এদিকে আজ দেশের ৩৩৮ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) বদলির অনুমোদন দিয়েছে ইসি। আজ সকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয় সংস্থাটি।

এর আগে দেশের সব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) পর্যায়ক্রমে বদলির জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছিল ইসি। তার ধারাবাহিকতায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ৩৩৮ থানার ওসির বদলির তালিকা পাঠানো হয় ইসিতে।

উল্লেখ্য, গত ৩০ নভেম্বর দেশের সব ইউএনও ও ওসিকে বদলি করার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেয় ইসি। এজন্য কাদেরকে বদলি করা হবে সেই প্রস্তাব পাঠানোর জন্য বলে সংস্থাটি। সেই নির্দেশনার আলোকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় প্রস্তাব পাঠালে প্রথম ধাপে ৪৭ জন ইউএনওকে বদলির অনুমোদন দেয় ইসি।

এবার ১১০ ইউএনও বদলির প্রস্তাব নির্বাচন কমিশনে

ডেস্ক রিপোর্ট:

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে ১১০ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বদলির জন্য নির্বাচন কমিশনে (ইসি) প্রস্তাব দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ১১০ জন ইউএনও বদলির জন্য প্রস্তাব আমাদের কাছে এসেছে। এখনো কমিশন অনুমোদন দেয়নি।

এর আগে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে সব ইউএনও বদলির জন্য নির্দেশনা দিয়ে প্রস্তাব পাঠানোর জন্য নির্দেশনা দেয় ইসি।

প্রসঙ্গত, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে সারা দেশে প্রার্থীদের জমা দেওয়া মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষ হয়েছে গত সোমবার (৪ ডিসেম্বর)। সারা দেশে ১৯৮৫ জন প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ৭৩১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র। আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইউএনও-ওসিদের বদলি কেন, জানিয়েছেন ইসি

ডেস্ক রিপোর্ট:

দেশের সব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) বদলির কারণ জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ। তিনি বলেছেন, মাঠ পর্যায়ের তথ্যের ভিত্তিতেই তাদের বদলির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ বদলির কারণে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে না।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন অশোক কুমার দেবনাথ।

তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া স্বতন্ত্রসহ সব প্রার্থীর নিরাপত্তায় ব্যবস্থা নিচ্ছে ইসি।

উল্লেখ্য, মাঠপ্রশাসন ও পুলিশে বড় ধরনের রদবদল করতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এরই অংশ হিসাবে দেশের সব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) পর্যায়ক্রমে বদলি করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগে পৃথক চিঠি দিয়েছে কমিশন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এসব চিঠি পাঠানো হয়।

প্রথম পর্যায়ে উপজেলায় এক বছরের বেশি সময় থাকা ইউএনওদের বদলির প্রস্তাব নির্বাচন কমিশনে পাঠাতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি একই থানায় ছয় মাসের বেশি থাকা ওসিদের তালিকাও পাঠাতে বলা হয়েছে। আগামী ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে পৃথক দুই তালিকা ইসিতে পাঠাতে হবে। নির্বাচন কমিশন ওই প্রস্তাব অনুমোদন করলে বদলির আদেশ জারি করবে স্ব-স্ব কর্তৃপক্ষ। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব প্রার্থীর জন্য ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ (সবার জন্য সমান সুযোগ) তৈরির লক্ষ্যেই মূলত এ রদবদলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া কয়েকজন ডিসি ও এসপিকে প্রত্যাহার করার জন্য বলেছে ইসি। তাদের বিরুদ্ধে প্রার্থী পক্ষপাত ও বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। সামনে যেসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে একই ধরনের অভিযোগ প্রমাণিত হবে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আরও জানা গেছে -বর্তমান মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সংসদ-সদস্যদের বেশিরভাগই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী হয়েছেন। মাঠপ্রশাসন ও পুলিশের অনেক কর্মকর্তা একই জায়গায় দীর্ঘদিন থাকার কারণে তাদের অনেকের সঙ্গে সখ্য তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে জড়িয়েছেন। এ অবস্থায় প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তাদের নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে নির্বাচন কমিশন এ পদেক্ষপ নিয়েছে। ৭ জানুয়ারি ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আর প্রচার শুরু হবে ১৮ ডিসেম্বর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশন সচিব মো. জাহাংগীর আলম বলেন, আমরা কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছি। দু-এক দিনের মধ্যে বিষয়টি আপনারা জানতে পারবেন। এর বেশি মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

ছদ্মবেশী রোগীর হাতে ভুয়া চিকিৎসক ধরা

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীতে রোগী সেজে এক ভুয়া চিকিৎসককে হাতেনাতে আটক করেছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত এম ইউ সবুজ (৪০)। আদালতের আদেশের পর সুধারাম থানা-পুলিশের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (১০ মে) দুপুরে শহরের জহুরুল হক মিয়ার গ্যারেজ এলাকা থেকে ওই ভুয়া চিকিৎসককে আটক করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, শহরের জহুরুল হক মিয়ার গ্যারেজ এলাকায় এম ইউ সবুজ নামে এক ব্যক্তি চিকিৎসক সেজে চেম্বার খুলে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসার নামে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন। গোপন সূত্রে এ তথ্য পেয়ে আজ সকালে ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমেদ নিজেই ওই ব্যক্তির মুঠোফোনে যোগাযোগ করে সিরিয়াল দেওয়ার অনুরোধ করেন। তখন তাকে বলা হয়, ‘সিরিয়াল লাগবে না, ডাক্তার সাহেব চেম্বারে আছেন। ওই তথ্যের ভিত্তিতে দুপুর ১২টার দিকে ইউএনও নিজেই পুলিশ নিয়ে ওই ব্যক্তির চেম্বারে গিয়ে অভিযান চালান।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, অভিযানের সময় ওই ব্যক্তি নিজেকে চিকিৎসক হিসেবে পরিচয় দিলেও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের কোনো সনদ তিনি দেখাতে পারেননি। ভুয়া চিকিৎসক সেজে চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেছেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

চান্দিনায় খালে বাঁধ দিয়ে পানি চলাচল বন্ধ করে মাটি পরিবহন, বিপাকে শতশত কৃষক

 

চান্দিনা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার চান্দিনায় ইটভাটায় মাটি পরিবহনের জন্য ৩শ গজ ব্যবধানে একটি খালে দুইটি বাঁধ দিয়ে পানি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে স্বার্থন্বেসী ইটভাটার মালিক। দুই বছর যাবৎ খালটিতে মাটি ভরাট করে বাঁধ নির্মাণ করায় পানি নিস্কাশনে বিপাকে পড়েছে এলাকার শতশত কৃষক।

চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া ইউনিয়নের ভাগুচি-কাশিমপুর এলাকার মাধাইয়া-নবাবপুর সড়কের পাশের খালে পরপর দুইটি বাঁধ দিয়ে পাশ্ববর্তী ‘মনোয়ারা ব্রিক্স ম্যানুফ্যাকচারার’ নামের একটি ইটভাটায় ওই মাটি সরবরাহ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ওই সড়কের পূর্ব পাশে মাধাইয়া, কাশিমপুর, কলাগাঁওসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের বিশাল ফসলী মাঠ। ওই ফসলী মাঠের পশ্চিম পাশে মাধাইয়া-নবাবপুর সড়ক সংলগ্ন রয়েছে খাল। কৃষকরা খালটিকে ওই ফসলী মাঠের পানি সরবরাহ এবং পানি নিস্কাশনে ব্যবহার করে আসছে। ব্যক্তিস্বার্থে মাটি খেকো একটি মহল ফসলী মাঠ থেকে ইটভাটায় মাটি সরবরাহ করতে মনগড়া ভাবে খালের মাঝে পরপর দুইটি বাঁধ দেয়। এতে মারাত্মক বিপাকে পড়েছে কয়েক গ্রামের কৃষক।

কাশিমপুর গ্রামের কৃষক মো. গিয়াস উদ্দিনসহ অনেকেই জানান, বর্ষাকালে বিশাল এই ফসলী মাঠের পানি দ্রুত ওই খাল দিয়ে সরে যেত। আবার ওই খালের পানি দিয়ে জমিতে সেচ করে ফসল ফসল করতাম। ইটভাটায় মাটি নেওয়ার জন্য বিশাল এই খালে পরপর দুইটি বাঁধ দেওয়ায় এখন বর্ষা কালে পানি সরছে না, এমকি খাল থেকে পানিও সেচ করতে পারছি না। দ্রুত খালের ওই বাঁধ অপসারণের দাবী জানান এলাকার কৃষক।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) তাপস শীল জানান, বিষয়টি যেহেতু জেনেছি আমরা খুই শীঘ্রই ওই বাঁধ অপসারণ করবো।