Tag Archives: ইউক্রেন

রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলায় ইউক্রেনে ৩১ জন নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট:

কিয়েভসহ ইউক্রেনের বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালিয়েছে রুশ বাহিনী। এই হামলায় অন্তত নিহত হয়েছেন ৩১ জন এবং আহত হয়েছেন ১৬০ জনেরও বেশি মানুষ। নিহতরা সবাই বেসামরিক নাগরিক।

শুক্রবার রাতভর রুশ বাহিনী ইউক্রেনের বিভিন্ন জায়গায় এই হামলা চালায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টেলিগ্রামে পোস্ট করা এক বার্তায় এসব তথ্য নিশ্চিত করে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। খবর রয়টার্সের।

জেলেনস্কি বলেন, ‘রাশিয়ার অস্ত্রাগারে যত গোলাবারুদ-ক্ষেপণাস্ত্র ছিল, তার প্রায় সবই উজাড় করে দিয়েছে রুশ বাহিনী….অন্তত ১১০টি ক্ষেপণাস্ত্র এবং অজস্র ড্রোন ছোড়া হয়েছে পুরো ইউক্রেনকে লক্ষ্য করে। তবে আমরা অধিকাংশই ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছি।

দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রুস্তেম উমেরভ জানিয়েছেন, ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি অভিযান শুরুর পর থেকে এই প্রথম এত বড় মাত্রার ক্ষেপণাস্ত্র-ড্রোন হামলা চালিয়েছে রুশ বাহিনী।

ইউক্রেনের সেনাপ্রধান জেনারেল ভ্যালেরি জালুঝনি জানিয়েছেন, বিমান বাহিনীর সেনারা মোট সেসবের মধ্যে ৮৭টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র এবং ২৭টি ড্রোন ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছেন। শুক্রবার রাত থেকে ইউক্রেনের সামরিক ও অবকাঠামোগত স্থাপনাগুলো লক্ষ্য করে ছোড়া হয়েছিল এসব ক্ষেপণাস্ত্র-ড্রোন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, রাশিয়ার এ হামলা শুরু হয় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে। যা সারারাতব্যাপী চলে। এ সময়ের মধ্যে ছয়টি শহরের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা হয়। যার মধ্যে রয়েছে রাজধানী কিয়েভও। এছাড়া যুদ্ধক্ষেত্র থেকে অনেক দূরের লভিভেও পৌঁছেছে রুশ বাহিনীর মিসাইল।

জেলেনস্কি দাবি করেছেন, বেশিরভাগ মিসাইল আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহার করে ভূপাতিত করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও কিছু মিসাইল লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে। এতে অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছেন। এছাড়া ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে আছেন অনেকে।

ইউক্রেনের ১১ ড্রোন ভূপাতিত করল রুশ বাহিনী

ডেস্ক রিপোর্ট:

রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী দেশটির মস্কো, তুউলা, কালুগা এবং ব্রায়ানস্ক অঞ্চলের আকাশসীমায় ইউক্রেনের ১১টি ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করেছে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে এ দাবি করেছে।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাসের খবরে বলা হয়, মনুষ্যবিহীন ড্রোন ব্যবহার করে রাশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে হামলা চালানোর চেষ্টা করে কিয়েভ। তবে ইউক্রেন সরকারের রোববারের এ প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়েছে মস্কোর প্রতিরক্ষা বাহিনী।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, অন-ডিউটিতে থাকা রাশিয়ার প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যরা মস্কো, তউুলা, কালুগা এবং ব্রায়ানস্কের আকাশসীমায় ইউক্রেনের ১১টি ড্রোন গুলি করে ধ্বংস করেছে।

ব্রায়ানস্ক অঞ্চলের গভর্নর আলেকজান্ডার বোগোমাজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামে বলেন, এ অঞ্চলে দুটি ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে।

এর আগে মস্কোর মেয়র সের্গেই সোবিয়ানিন বলেন, রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা রাজধানীতে ইউক্রেনের একটি বড় ড্রোন হামলা ব্যর্থ করে দিয়েছে। তারা পার্শ্ববর্তী আরও তিনটি অঞ্চলে ইউক্রেনের ড্রোন হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছে বলেও দাবি করা হয়।

ইউক্রেনে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, নিহত ৬

ইউক্রেনে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, নিহত ৬

ডেস্ক রিপোর্ট:

ইউক্রেনের খারকিভ অঞ্চলে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ১৪ জন।

শনিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। খবর আলজাজিরার।

জেলেনস্কির সামাজিকমাধ্যম টেলিগ্রামে শেয়ার করা ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, এ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বেশ কয়েকটি আবাসিক ভবন ও অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে ইউক্রেনীয় পোস্টাল অপারেটর নোভা পোশতার লোগোসহ একটি পাত্র দেখা গেছে।

এ সময় তিনি ভিডিওবার্তায়, ইউক্রেনের মিত্রদের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান জেলেনস্কি।

খারকিভ অঞ্চলের গভর্নর ওলেহ সিনহুবভ বলেন, সন্ত্রাসীদের হামলায় ছয়জন নিহত এবং ১৪ জন আহত হয়েছেন। তারা সবাই নোভা পোশতা টার্মিনালের ভেতরে থাকা কর্মচারী।

তিনি বলেন, রুশ বাহিনী খারকিভের শান্তিপূর্ণ জনগণের ওপর সন্ত্রাসী আক্রমণ চালিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নিহতদের বয়স ১৯ থেকে ৪২ বছরের মধ্যে। এ ছাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৪ জনের মধ্যে সাতজনের অবস্থা গুরুতর।

আঞ্চলিক প্রসিকিউটর অফিসের মতে, খারকিভের উত্তরে বেলগোরোড অঞ্চলে রুশ বাহিনী এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। হামলায় দুটি গুদাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ইউক্রেনের দাবি, কৃষ্ণসাগরীয় হামলায় রুশ নৌবহরের কমান্ডারসহ নিহত ৩৪

ইউক্রেনের দাবি, কৃষ্ণসাগরীয় হামলায় রুশ নৌবহরের কমান্ডারসহ নিহত ৩৪

ডেস্ক রিপোর্ট:

ক্রিমিয়ায় চালানো হামলায় রাশিয়ার কৃষ্ণসাগরীয় নৌবহরের কমান্ডারসহ ৩৪ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। মস্কোর দখলে থাকা ক্রিমিয়ার সেভাস্তোপোলে নৌবহরের সদর দফতরে শুক্রবার এই হামলা চালানো হয়েছিল বলে দাবি করেছে ইউক্রেন।

সেভাস্তোপোলে হামলাটি ছিল মস্কোর জন্য বড় আঘাত। কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ বন্দরটি গত কয়েক মাস ধরে নিয়মিত ইউক্রেনীয় হামলার শিকার হচ্ছে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

ইউক্রেনের স্পেশাল ফোর্স বলেছে, কৃষ্ণসাগরীয় নৌবহরের কমান্ডারসহ ৩৪ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এছাড়াও ১০৫ জন দখলদার আহত হয়েছেন।

ক্রিমিয়ায় বৃহত্তম শহর সেভাস্তোপোলে শুক্রবার হামলার পর ভবন থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছে। ইউক্রেনীয় স্পেশাল ফোর্স আরও বলেছে, নৌবহরের সদর দফর মেরামতের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে বলেছে, ইউক্রেনের দাবি অনুসারে নিহত কমান্ডারের নাম অ্যাডমিরাল ভিক্টর সকোলোভ। তবে সংবাদমাধ্যমটির পক্ষ থেকে স্বতন্ত্রভাবে ইউক্রেনীয় দাবির সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

হামলার দিন রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছিল তাদের এক সেনা নিখোঁজ রয়েছে।

২০১৪ সালে ইউক্রেনীয় ভূখণ্ড ক্রিমিয়া দখল করে রাশিয়া। এখানে রাশিয়ার কৃষ্ণসাগরীয় নৌবহর মোতায়েন রয়েছে। মস্কোর এই দখলকে স্বীকৃতি দেয়নি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। রুশ সেনাদের দখল থেকে ভূখণ্ডটি পুনরুদ্ধারের অঙ্গীকারের কথা জানিয়েছেন ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

সব কিছুতে রাশিয়ার ওপর দোষ চাপানো ‘অসুস্থ’ মানুষের কাজ: ডোনাল্ড ট্রাম্প

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, সব কিছুতে রাশিয়ার ওপর দোষ চাপানো ‘অসুস্থ’ মানুষের কাজ। নর্ড স্ট্রিম পাইপলাইনে হামলার ঘটনায় রাশিয়াকে অভিযুক্ত করা প্রসঙ্গে এমন মন্তব্য করেন তিনি। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের ওপর ইউক্রেন ‘পূর্ণ কর্তৃত্ব’ জোরদার করেছে বলেও উল্লেখ করেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়া ব্যক্তিত্ব গ্লেন বেক-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শুক্রবার এমন মন্তব্য করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তিনি বলেন, কিয়েভকে আমরা সম্ভবত দেড় হাজার কোটি ডলার দিয়েছি। কিন্তু ইউরোপ তেমন কিছুই দেয়নি। আসলে আমেরিকার ওপর ‘পূর্ণ কর্তৃত্ব’ জোরদার করেছে ইউক্রেন।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় প্রচারমাধ্যম আরটি জানিয়েছে, সাক্ষাৎকারে গত বছরের অক্টোবরে নর্ড স্ট্রিম পাইপলাইনে হামলার বিষয়েও কথা বলেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ওই হামলার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে ইউক্রেন ও তার পশ্চিমা মিত্ররা। বিপরীতে ইউক্রেন ও তার মিত্রদের দায়ী করছে রাশিয়া।

তবে ট্রাম্প বলছেন, ওই হামলার মূল অপরাধী (রিয়াল কালপ্রিট) হতে পারে ইউক্রেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নির্দেশে ওই হামলা হয়েছে— এমন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান না করে ট্রাম্প বলেন, হামলার পেছনে রাশিয়াকে দায়ী করা বাজে অভিযোগ। তা ছাড়া সব কিছুতে রাশিয়ার ওপর দোষ চাপানো ‘অসুস্থ’ মানুষের কাজ।

২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা আগেই দিয়ে রেখেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। চলতি সপ্তাহের শুরুতে ফ্লোরিডায় এক ক্যাম্পেইনে তিনি বলেন, আবারও হোয়াইট হাউসে যেতে পারলে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ইউক্রেন সংঘাতের অবসান ঘটাবেন তিনি।

নিজের শাসনামলে বহুল বিতর্কের জন্ম দেওয়া ট্রাম্প বলেন, আমি আক্ষরিক অর্থেই কাজ শুরু করার কথা বলছি— যেদিন আমি দায়িত্ব নেব, সেদিন থেকে নয়; বরং আমি জিতেছি— সেই রাত থেকেই (যুদ্ধ বন্ধের উদ্যোগ নেব)।

আগামী রমজানে কোনোভাবেই বাড়বে না মাছ-মাংসের দাম: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

আগামী রমজানে কোনোভাবেই মাছ-মাংসের দাম বাড়বে না বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, ‘রমজানের সময় আমরা ভ্রাম্যমাণ বিক্রয়কেন্দ্র স্থাপন করব। সে ক্ষেত্রে বেসরকারি খামারিদের আমরা সহায়তা নেব। আশা করি রমজানে মাছ, মাংস, দুধ, ডিমের দাম কোনোভাবেই বাড়বে না।’

আজ শনিবার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত ‘প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী ২০২৩’ উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রসংলগ্ন পুরাতন বাণিজ্য মেলার মাঠে শুরু হওয়া এই প্রদর্শনী চলবে ১ মার্চ পর্যন্ত।

মাছ-মাংসের দাম বাড়ার বিষয়ে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব পরিস্থিতি, বিশেষ করে রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে নিষেধাজ্ঞা ও পাল্টা নিষেধাজ্ঞায় সবকিছুর দাম বেড়েছে। পোলট্রি ফিডের উপকরণ বিদেশ থেকে আনতে অনেক প্রতিকূল অবস্থা মোকাবিলা করতে হচ্ছে। এসবের কারণে খাবারের দাম অনেক বেড়েছে।’

রমজানে মাছ-মাংসের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হবে জানিয়ে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, ‘মাছ-মাংসের দাম যেভাবে সহনশীলতার মধ্যে রাখা যায়, সেই প্রক্রিয়ায় আমরা রয়েছি। রমজানে ভ্রাম্যমাণ বিক্রয়কেন্দ্রের পাশাপাশি দাম নির্ধারণ করে দেব। বাজারব্যবস্থাকে আরও সংহত পর্যবেক্ষণ করা হলে দাম অনেকটা কমে আসবে।’

রেজাউল করিম আরও বলেন, ‘মানুষের খাবারের অন্যতম উপাদান মাছ, মাংস, দুধ, ডিম। এগুলোর উৎপাদন বাড়াতে যতটা সহযোগিতা করা দরকার, পৃষ্ঠপোষকতা করা প্রয়োজন, তা আমরা করছি। ফলে উৎপাদন অনেক বেড়েছে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নাহিদ রশীদ, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মো. এমদাদুল হক তালুকদার প্রমুখ।

রাশিয়ার হামলায় বিধ্বস্ত ইউক্রেন পুনর্গঠনে ৭৫০ বিলিয়ন ডলারের প্রয়োজন

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

রাশিয়ার হামলায় বিধ্বস্ত ইউক্রেন পুনর্গঠনে ৭৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রয়োজন হবে বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি বলেছেন, রাশিয়া ইউক্রেনের যে ক্ষতি করেছে, তা পুনর্নির্মাণ ইউক্রেনের একার পক্ষে সম্ভব নয়।

সোমবার সুইজারল্যান্ডে একটি আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে ভিডিও কনফারেন্সে দেওয়া ভাষণে জেলেনস্কি এসব কথা বলেন। বার্তা সংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে এই সংবাদ দিয়েছে ভারতের নির্ভরযোগ্য সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

ইউক্রেনের পুনর্গঠনে সহায়তা চেয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট বলেন, ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে হামলা চালিয়ে রাশিয়া পাহাড়সম ক্ষতি করেছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন পুনর্গঠনে সাড়ে সাতশ ডলার প্রয়োজন হবে।

ইউক্রেন পুনর্গঠনে পাশে দাঁড়ানো সব গণতান্ত্রিক বিশ্বের সম্মিলিত দায়িত্ব বলেও মন্তব্য করেন জেলেনস্কি। বিশ্ব শান্তির পক্ষের দেশগুলোর বড় অবদান রাখতে হবে কিয়েভ পুনর্গঠনে।

জেলেনস্কি বলেন, রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের জন্য রাশিয়ার কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ আদায় করতে হবে। তাদের জবাবদিহি করতে হবে।

পুতিনের কথা বিশ্বাস না করার আহ্বান জানালেন ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা বিশ্বনেতাদের আহ্বান জানিয়েছেন, তারা যেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দেওয়া কথা বিশ্বাস না করেন।

রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছেন, খাদ্য শস্য রপ্তানি করতে ইউক্রেন মাইকোলাইভের বন্দরগুলো ব্যবহার করতে পারে।

তিনি কথা দিয়েছেন, সেখানে থাকা মাইন পরিস্কার করে ইউক্রেন শস্য রপ্তানি করার পর সেই পথটিকে ব্যবহার করে ওডেসায় ‘হামলা’ করবে না রাশিয়া।

তবে পুতিনের এ কথা বিশ্বাস না করার আহ্বান জানিয়েছেন ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ইউক্রেনীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা এ ব্যাপারে টুইটে বলেছেন, পুতিন বলছেন তিনি বাণিজ্য পথ ব্যবহার করে ওডেসায় হামলা চালাবেন না। এটি হলো সেই একই পুতিন, যে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ এবং ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁকে বলেছিলেন, তিনি ইউক্রেনে হামলা করবেন না। আমাদের দেশে হামলা করার কয়েকদিন আগে তিনি এমন কথা দিয়েছিলেন। আমরা পুতিনকে বিশ্বাস করতে পারি না। তার কথার মূল্য নেই।

এদিকে রাশিয়ার ইউক্রেনে হামলা করার পর ইউক্রেনে আটকে আছে টন টন শস্য। যেগুলো রপ্তানি করা যাচ্ছে না। আর ইউক্রেনের এসব শস্য রপ্তানি করা না গেলে বিশ্বে দেখা দিতে পারে খাদ্য সংকট।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান