Tag Archives: ইউপি সদস্য

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নিখোঁজের পরদিন ২ শিশুর মরদেহ উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্ট:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় নিখোঁজের একদিন পর পুকুরের ভেসে উঠেছে আরাফাত খা (৯) ও সামির (৮) নামে দুই শিশুর মরদেহ।

সোমবার (১ মে) সকালে উপজেলার চম্পকনগর ইউনিয়নের সাটিরপাড়া দক্ষিণ এলাকায় পুকুর থেকে তাদের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

আরাফাত উপজেলার চম্পকনগর ইউনিয়নের সাটিরপাড়া দক্ষিণ গ্রামের এনাম খা’র ছেলে ও সামির উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের খাটিংগা গ্রামের শিপন মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. রেজুয়ান আহম্মেদ বলেন, দুই শিশুই রোববার বিকেল থেকে নিখোঁজ ছিল। সম্ভাব্য সব জায়গায় খুঁজাখুঁজি করেও তাদের সন্ধান মেলেনি। রাতে তাদের সন্ধান চেয়ে উপজেলা ও আশপাশ এলাকায় মাইকিং করা হয়। সোমবার সকালে থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুই শিশুর মরদেহ পুকুরে ভেসে ওঠে।

তিনি আরও বলেন, মারা যাওয়া একটি শিশু স্থানীয় বাসিন্দা এবং আরেকটি শিশু পাহাড়পুর ইউনিয়নের খাটিংগা গ্রামের। সে তার নানাবাড়িতে বেড়াতে এসেছিল।

বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজু আহম্মেদ বলেন, দুই শিশুর মরদেহ পানি থেকে উদ্ধারের খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হচ্ছে।

বরুড়ায় সাবেক মেম্বারকে কুপিয়ে হত্যা করলো স্ত্রী

 

সাকিব আল হেলালঃ

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের জালগাঁও (মেম্বার বাড়ি) গ্রামে বজলুর রহমান মেম্বার (৬৫) নামে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা করেছে তার দ্বিতীয় স্ত্রী মোমেনা বেগম (২৮)।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বজলুর রহমানের প্রথম স্ত্রী অসুস্থ থাকায় একই গ্রামের শরাফত মিয়ার মেয়ে মোমেনাকে গত ১০ বছর পূর্বে বিবাহ করেন। বিয়ের ৭ বছর পর তাদের একটি ছেলে জন্ম হয়।বাচ্ছার বয়স আড়াই বছর। প্রায় সময় স্বামী বজলুর রহমানের সাথে স্ত্রী মোমেনা ঝগড়া লেগে থাকতো।কিন্তু গত ৩১ জানুয়ারী দিবাগত রাতে হঠাৎ কি নিয়ে ঝগড়া লেগে বজলুর রহমানকে মারাত্বকভাবে কুপিয়ে আহত করে।আহতকে প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকার মাতুয়াইলের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়।সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।সেখানে গত ৬ ফেব্রুয়ারী আহত বজলুর রহমানের মৃত্যু হয়।

পরে বজলুর রহমানের পুত্র আবুল হোসেন বাদী হয়ে বরুড়া থানায় ৪ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

আসামীরা হলেন, একই গ্রামের শরাপত আলীর মেয়ে বজলুর রহমানের স্ত্রী মোমেনা বেগম (২৮), মোমেনার ছোট ভাই জোবায়ের হোসেন (২৫), মোমেনার মা মহিপাল (৫৫) ও প্রতিবেশী মৃত জলপে আলীর ছেলে ডাঃ জহির (২৪)।

নিহত বজলুর রহমানের প্রথম সংসারে ৪ ছেলে। তাদের তিনজন প্রবাসী।পরের সংসারে আড়াই বছরের একটি ছেলে রয়েছে।
পুলিশ এ ঘটনায় মোমেনাসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

এ বিষয়ে মামলার বাদী আবুল হোসেন বলেন, আমার বাবাকে মোমেনা ও তার মা, ভাই ও ডাঃ জহির কুপিয়ে হত্যা করেছে।আমরা তার বিচার চাই”।

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরুড়া থানা পু্লিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) উত্তম কুমার সরকার বলেন, এ মামলার ১নং ও ৩নং আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আশা করি দ্রুত সবাইকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। হত্যার মূলকারণ উদঘাটনের চেষ্টা চলছে”।