Tag Archives: ইন্টারপোলের নোটিশেও কাজ হচ্ছে না

ইন্টারপোলের নোটিশেও কাজ হচ্ছে না, আনা যাচ্ছে না তারেক-তাজউদ্দীন ও কায়কোবাদকে

ডেস্ক রিপোর্টঃ

২০০৪ সালের ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলায় হত্যাযজ্ঞের পর ১৫ বছর হলেও দেশে ফেরত আনা যায়নি ঘাতকচক্রের হোতা বিএনপির সিনিয়র যুগ্মসচিব তারেক রহমান, জঙ্গি নেতা মাওলানা তাজ উদ্দিন ও বিএনপি সমর্থিক সাবেক সংসদ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদকে। ঘটনার পর দীর্ঘ ১৫ বছরের মধ্যে প্রায় ১০ বছর তাদের নাম ও ছবি সম্মিলিত প্রোফাইল ইন্টাপোলে দেয়া হয়েছে। সেখানে তাদের অবস্থান জানা ও তথ্য সংগ্রহের জন্য নামে ইন্টারপোল রেড নোটিশও দিয়েছে। তারপরও তাদেরকে দেশে ফেরত আনতে অনেকটা বেগ পেতে হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলায় দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামিদের মধ্যে অন্যতম বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও জঙ্গি নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন এবং মোফাজ্জল হোনে কায়কোবাদ। এদের মধ্যে তারেক রহমান বর্তমানে লন্ডনে ও তাজউদ্দিন দক্ষিণ আফ্রিকায় এবং কায়কোবাদ পাকিস্তানে অবস্থান করছে। ইতোমধ্যে তাদের দেশে ফেরাতে নানা ধরনের কুটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। কিন্তু সব চেষ্টাই ব্যর্থ হতে চলেছে। এমনকি আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোল তাদের গ্রেপ্তারে রেড অ্যালার্ট জারি করলেও তাদের ফেরানো সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, আফগান-ফেরত মুজাহিদদের নিয়ে বাংলাদেশে গড়ে তোলা হয় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ আল ইসলাম (হুজি-বি)। ২০০০ সাল ও তার পরবর্তী পাঁচ বছর এই জঙ্গি সংগঠনটি ভয়ানক হয়ে ওঠে। ওই পাঁচ বছরে তারা শতাধিক মানুষ হত্যাসহ ১৩টি গ্রেনেড হামলা চালায়। যার মধ্যে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গুলিস্তানের বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে মহাসমাবেশে গ্রেনেড হামলা অন্যতম। অভিযোগ রয়েছে, পরবর্তী সময়ে ওই হামলার তদন্তকে ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করে বিএনপি-জামায়াত সরকার। আর সেটিরও নেতৃত্ব দেন বর্তমানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। পরবর্তী সময়ে আসামিদের স্বীকারোক্তিতে হামলায় তারেক রহমানের সমর্থন থাকার প্রমাণ মেলে। আর অভিযোগ প্রমাণিত হাওয়ায় গত বছর ১৯ জনকে ফাঁসি, তারেক রহমানসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন এবং বাকিদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন আদালত। আসামিদের মধ্যে ১৮ জন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি এখনো পলাতক।

এদিকে গ্রেনেড হামলা মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল  বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনা হয় তারেক রহমানের হাওয়া ভবনে। তিনি এই ঘটনার মূল ষড়যন্ত্রকারী। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া এই আসামি দীর্ঘদিন লন্ডনে পালিয়ে আছেন।

এই মামলার রায় হওয়ার আগেই আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারি হয় তারেক রহমানসহ সংশ্লিষ্ট ৩ জনের নামে। পরে এ মামলার রায়ের পর দ্বিতীয়বারের মতো রেড নোটিশ জারি করে সংস্থাটি। তবে কোনো নোটিশেই তাদের দেশে ফেরত আনা সম্ভব হয়নি। একইভাবে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ও হুজির শীর্ষ নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন দক্ষিণ আফ্রিকায় অবস্থান করছেন। পাশাপাশি অপর আসামী কায়কোবাদ পাকিস্তানে আত্মগোপনে রয়েছে। তাকেও ফেরানো সম্ভব হচ্ছে না।

ইন্টারপোলের রেড নোটিশের পরও পলাতক আসামিদের দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল  বলেন, বিদেশে পলাতক আসামিদের দেশে ফিরিয়ে আনতে আমরা ইন্টারপোলের সহযোগীতা নিয়ে থাকি। আগেও ৩-৪ জন আসামিকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোল আমাদের সহায়তা করেছে। আশা করছি, সংস্থাটির সহায়তায় বাকিদেরও ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে।