Tag Archives: ইমরানের পতনের পেছনে যুক্তরাষ্ট্র

ইমরানের পতনের পেছনে যুক্তরাষ্ট্র ,ফাঁস গোপন নথি

অনলাইন ডেস্ক:

ইমরান খানকে ক্ষমতাচ্যুত করার পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের যোগসাজশ ছিল বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি অনলাইন পত্রিকা। দ্য ইন্টারসেপ্ট নামের অনলাইন পত্রিকা পাকিস্তান সরকারের এ কূটনৈতিক গোপন নথি প্রকাশ করেছে। তারা জানায়, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কোনো কর্মকর্তার মাধ্যমে তাদের হাতে এই নথি এসেছে।

নথিতে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ইউক্রেন যুদ্ধে ইমরানের পররাষ্ট্রনীতির কারণে যুক্তরাষ্ট্র তার ওপর চরম ক্ষুব্ধ হয়। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পর ইমরানের নিরপেক্ষতার কারণে ২০২২ সালের ৭ মার্চ তাকে পদ থেকে সরানোর জন্য উদ্যোগী হয়ে বৈঠক করেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সদস্যরা। বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতও ছিলেন। এ সময় ‘ইমরানকে না সরালে পাকিস্তানকে আলাদা করে রাখা হবে’ বলেও জানায় যুক্তরাষ্ট্র।

পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত আসাদ মাজিদ খান এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক সহকারী মন্ত্রী ডোনাল্ড লুয়ের মধ্যকার কথোপকথনে ইমরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নাখোশ হওয়ার কারণ বোঝা যায়। লু ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর ইমরানের রাশিয়া সফর ও পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাতের চেষ্টার জন্য ইমরানের ওপর ইউরোপিয়ান দেশগুলো ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে জানান।

২ মার্চ, উল্লিখিত বৈঠকের আগে মার্কিন সিনেটে ইউক্রেন যুদ্ধে ভারত, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। লু বলেন, প্রধানমন্ত্রী খান মস্কো ভ্রমণে গেছেন। আমরা বুঝতে পারছি না যুদ্ধের বিষয়ে তার সঙ্গে কীভাবে আলোচনা করা যায়। এদিকে ৭ মার্চের বৈঠকের একদিন আগে ইমরান খান একটি র‍্যালিতে ইউরোপীয়দের সরাসরি প্রশ্ন করেন, আমরা কি তোমাদের চাকর? আমরা রাশিয়ার বন্ধু, যুক্তরাষ্ট্রেরও বন্ধু। আমরা চীন ও ইউরোপেরও বন্ধু। আমরা কারও সঙ্গে দল গঠন করি না

৭ মার্চের ওই বৈঠকে লু পাকিস্তানের অবস্থান নিয়ে ওয়াশিংটনের অস্বস্তির কথা সরাসরি তোলেন। নথি অনুযায়ী লু বলেছেন, এখানে আর ইউরোপে মানুষ খুবই উদ্বিগ্ন কেন পাকিস্তান ইউক্রেনের বিষয়ে এমন আক্রমণাত্মক নিরপেক্ষ সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর নীতি কোনটা, তা পরিষ্কার হয়ে গেছে।

দ্য ইন্টারসেপ্ট জানায়, সামরিক বাহিনীর অজ্ঞাতনামা একটি সূত্র থেকে তাদের কাছে এই নথি এসেছে। অনলাইন পত্রিকাটি পুরো কথোপকথনটি ছেপেছে। তবে কোনোভাবেই যেন প্রেরকের পরিচয় না বের করা যায়, সে কারণে তারা কিছু সতর্কতা অবলম্বন করেছে।

পাকিস্তানের গণমাধ্যম ডন জানিয়েছে, তারা এই গোপন নথির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

এদিকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মুমতাজ ঝাহরা বালুচ ডনকে জানায়, এ বিষয়ে তারা কোনো মন্তব্য করবে না। তথ্যমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব ও পরিকল্পনামন্ত্রী আহসান ইকবালও এ বিষয়ে কথা না বলার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর প্রকাশিত নথির সত্যতার বিষয়টি নিয়ে কিছু না বলেনি। তবে তারা এটা জানিয়েছে—প্রকাশিত নথিতে এমন কিছু নেই যাতে এটা প্রমাণ হয় যে, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী কে হচ্ছে তা যুক্তরাষ্ট্র বাছাই করে দেয়। ইমরান খান তার সমর্থকদের কাছে বহুবার দাবি করেছেন যে, তাকে সরাতে যুক্তরাষ্ট্রের যোগসাজশ করে চলেছে। সম্প্রতি ৫ আগস্ট তাকে তিন বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ বছর রাজনীতি থেকে নিষিদ্ধ করা হয়।

(দ্য ইন্টারসেপ্ট, ডন থেকে অনুদিত)