Tag Archives: ইরানে হিজাববিরোধী আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে নিজের চুল কাটলেন ইউরোপীয় সংসদের সদস্য

ইরানে হিজাববিরোধী আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে নিজের চুল কাটলেন ইউরোপীয় সংসদের সদস্য

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

হিজাব না পরার কারণে নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে মাহসা আমিনী নামে এক তরুণীর মৃত্যু ঘিরে ইরানে চলমান হিজাববিরোধী আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে নিজের মাথার চুল কেটে ফেলেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের (ইপি) সুইডিশ এক সদস্য। ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বক্তৃতা দেওয়ার সময় কাঁচি দিয়ে নিজের মাথার চুল কেটেছেন ওই সদস্য।

হিজাব পরার বিধান লঙ্ঘনের দায়ে গত ১৬ সেপ্টেম্বর ইরানের নৈতিকতা পুলিশ ২২ বছর বয়সী মাহসা আমিনীকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পুলিশি হেফাজত থেকে কোমায় নেওয়া হয় এই তরুণীকে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেদিনই মারা যায় মাহসা আমিনী।

পুলিশি নির্যাতনে আমিনীর প্রাণহানি ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। এই ঘটনার পর ইরানে গত তিন বছরের মধ্যে বৃহত্তম বিক্ষোভ শুরু করেছেন দেশটির হাজার হাজার মানুষ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ফ্রান্সের স্ট্রাসবার্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে ইরাকি বংশোদ্ভূত সদস্য আবির আল-সাহলানি বলেন, ইরান মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের ক্ষোভ নিপীড়কদের চেয়ে বেশি হবে। ইরানের নারীরা মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আমরা তাদের পাশে রয়েছি।

এই বক্তৃতা দেওয়ার সময় হাতে কাঁচি তুলে নেন তিনি। এ সময় মাথার পেছনের পনিটেইল কাটতে কাটতে তিনি বলেন, ‘জিন, জিয়ান, আজাদি।’ এ সময় আবারও কুর্দি নারীদের জীবনের স্বাধীনতা চান তিনি।

পুলিশি হেফাজতে মাহসা আমিনীর মৃত্যুর পর ইরানের নারীদের হিজাববিরোধী আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়েছে। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্য আবির আল-সাহলানি ছাড়াও ইরানি নারীদের প্রতি সংহতি জানিয়ে ফরাসি অভিনেত্রী জুলিয়েট বিনোচি এবং ইসাবেলা হাপার্টও চুল কেটেছেন।

১৯৭৯ সালের ইসলামি বিপ্লবের পর ইরানে নারীদের জন্য হিজাব পরা বাধ্যতামূলক করা হয়। এই বিপ্লবের পর এবারই প্রথম ইরানের হিজাববিরোধী আন্দোলনকারী নারীদের প্রতি সংহতি জানিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সমাবেশ হয়েছে। গত শনিবার বিশ্বের ১৫০টিরও বেশি শহরে অনুষ্ঠিত এই বিক্ষোভ সমাবেশে লাখ লাখ মানুষ অংশ নিয়েছেন।

ইরানের সংখ্যালঘু কুর্দিদের আবাসস্থল দেশটির পশ্চিমাঞ্চল। মাহসা আমিনীও কুর্দি অধ্যুষিত দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দা। তার মৃত্যুর পর ওই অঞ্চলে প্রথম ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়, যা ধীরে দেশটির অন্যান্য সব শহরে ছড়িয়ে পড়ে।

সূত্র: রয়টার্স।