Tag Archives: ইসরাইল

হামাসের টানেল নেটওয়ার্ককে ডুবিয়ে দিতে পানির পাম্প বসিয়েছে ইসরাইল

ডেস্ক রিপোর্ট:

অবরুদ্ধ ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড গাজায় হামাসের নিয়ন্ত্রণে থাকা টানেল নেটওয়ার্ককে সমুদ্রের পানি দিয়ে ডুবিয়ে দিতে চায় ইসরাইল। যাতে এসব টানেলে লুকিয়ে থাকা হামাস যোদ্ধাদের বাইরে বের করে আনা যায়। এই লক্ষ্যে দেশটি এরই মধ্যে বিশাল সেচ ব্যবস্থার জোগাড় করে ফেলেছে।

গতকাল সোমবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, গত নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকেই ইসরাইল এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে। এরই মধ্যে তারা সমুদ্র থেকে পানি টেনে আনার জন্য গাজা আল-শাতি শরণার্থী শিবিরের পাশে অন্তত পাঁচটি পানির পাম্প স্থাপন করেছে। যেগুলো প্রতি ঘণ্টায় কয়েক হাজার ঘনমিটার পানি বয়ে আনতে পারবে। সেই হিসাবে একবার পানি টানা শুরু করলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই গাজার টানেলগুলো পানিতে ভরে যাবে।

তবে এখনো বিষয়টি নিশ্চিত নয় যে, ইসরাইল সব জিম্মিকে মুক্ত করার আগেই এসব পাম্প ব্যবহার করবে কিনা। কারণ এখনো হামাসের কাছে শ’খানেক ইসরাইলি জিম্মি রয়ে গেছে। হামাস জানিয়েছে, এসব জিম্মি টানেলের ভেতরে সুরক্ষিত অবস্থানে রয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে এক মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, টানেলগুলো ব্যবহারের অনুপযোগী করে তোলাটা ইসরাইলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং এটি করতে গিয়ে দেশটি নতুন কোনো পদ্ধতির আশ্রয় নিতেই পারে। তবে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে এখনো কোনো আনুষ্ঠানিক মন্তব্য করেনি।

ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেছেন, ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনী হামাসের সক্ষমতাকে ছিন্নভিন্ন করে দিতে বিভিন্ন কৌশলে কাজ করছে। তারা বিভিন্ন সামরিক কৌশল ও যন্ত্রপাতিও ব্যবহার করছে।

ওই মার্কিন কর্মকর্তা ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে জানিয়েছেন, ইসরাইল সরকার গত নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রকে এ পরিকল্পনার বিষয়ে জানায়। তবে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সরকার এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কতদূর এগিয়েছে, সেই বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নন তিনি।

তবে ওই মার্কিন কর্মকর্তা জানান, ইসরাইল এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে দেশটি এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের বিষয়টিও উড়িয়ে দেয়নি।

ইসরাইলের সমালোচনা করে তোপের মুখে আমেরিকান মডেল গিগি

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সুপার মডেল গিগি হাদিদ বলেছেন, ইসরাইলই একমাত্র দেশ যারা শিশুদের যুদ্ধবন্দি করে রাখে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে দেওয়া পোস্টে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

তবে ইসরাইল-হামাসের সংঘাতের প্রেক্ষাপটে এমন মন্তব্যের জেরে ক্ষোভের মুখে পড়েছেন গিগি হাদিদ। যদিও পরে পোস্টটি তিনি মুছে ফেলেছেন।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৮ বছর বয়সি ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সুপার মডেল বরাবরই ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাতের বিষয়ে সোচ্চার। গত ৭ অক্টোবর হামাসের আকস্মিক আক্রমণের আগে তিনি ওই পোস্টে বলেন, ফিলিস্তিনিদের হত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণ, অপহরণ ও নিপীড়ন করে আসছে ইসরাইল।

তিনি লেখেন, ইসরাইল বিশ্বের একমাত্র দেশ যারা শিশুদের যুদ্ধবন্দি করে রাখে। সেখানে আহমেদ আলমানসরা নামের ১৩ বছরের ফিলিস্তিনি সম্পর্কে এমন কথা বলা হয়।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম অনুসারে, আলমানসরা ও তার ভাই ২০ বছর বয়সি এক নিরাপত্তারক্ষী ও ১৩ বছর বয়সি ছেলেকে ছুরিকাঘাত করার পর ইসরাইলি পুলিশ গ্রেফতার করে। তার ১২ কারাদণ্ড হয় এবং পরে তা কমিয়ে সাড়ে ৯ বছর করা হয়।

তবে গিগি হাদিদের দাবি, গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার মাঝেও দখলদার ইসরাইল আলমানাসরাকে অপহরণ করেছে ও নির্জন কারাবাসের রেখেছে। এভাবে শত শত ফিলিস্তিনি শিশুবন্দি ইসরাইলি কারাগারে ভুগছে।

গিগি হাদিদের রিপোস্ট করা এক ভিডিওতে দাবি করা হয়, স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা স্বীকার করেছেন যে, ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ সম্মতি ছাড়াই বছরের পর বছর ধরে মৃত ফিলিস্তিনিদের অঙ্গ সংগ্রহ করছে।

হাদিদের অবস্থান সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। বেশ কয়েকজন ব্যবহারকারী মডেলিং এজেন্সি আইএমজি-কে এ সুপার মডেলের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের দাবি তুলেছেন।

৭০ জিম্মিকে ছাড়তে হামাস যে শর্ত দিল ইসরাইলকে

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজার প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস জানিয়েছে, তাদের কাছে জিম্মি থাকা সর্বোচ্চ ৭০ নারী ও শিশুকে ছেড়ে দিতে প্রস্তুত তারা। তবে এক্ষেত্রে পাঁচ দিনের টানা যুদ্ধবিরতি দিতে হবে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠনটির সামরিক শাখা আল কাসসাম বিগ্রেডের পক্ষ থেকে সোমবার (১৩ নভেম্বর) এ কথা জানানো হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, হামাসের টেলিগ্রাম চ্যানেলে আল কাসসাম বিগ্রেডের মুখপাত্র আবু উবায়দার বক্তব্য ধারণ করা একটি অডিও ক্লিপ প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে তিনি বলেছেন, এই যুদ্ধবিরতি হতে হবে পূর্ণমাত্রার এবং যুদ্ধবিরতির এই সময় গাজা উপত্যকার সবখানে ত্রাণসহ মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর সুযোগ থাকতে হবে।

আল আকসা মসজিদ ও ফিলিস্তিনিদের ওপর ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের (সেটলার) হামলার প্রতিবাদে গত ৭ অক্টোবর ইসরাইলের অভ্যন্তরে অতর্কিত হামলা চালায় হামাস। এর জবাবে ওই দিন থেকে গাজায় লাগাতার হামলা চালিয়ে আসছে দখলদার রাষ্ট্রটি।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় ইসরাইলি হামলা শুরুর পর সেখানকার ১১ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। এর ৪০ শতাংশই শিশু। সেই সঙ্গে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে গাজা। ভেঙ্গে পড়েছে উপত্যকাটির স্বাস্থ্য ব্যবস্থা।

জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, অবরুদ্ধ গাজায় দেখা দিয়েছে চরম মানবিক সংকট। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার উদ্যোগে ত্রাণবাহী কিছু ট্রাক গাজায় প্রবেশ করলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা একেবারেই নগন্য।

ইসরাইলের হামলা বন্ধ না হলে আঞ্চলিক যুদ্ধের হুঁশিয়ারি হিজবুল্লাহর

ডেস্ক রিপোর্ট:

গাজায় ইসরাইলের আক্রমণে বেসামরিক নাগরিকদের হত্যা বন্ধ না হলে মধ্যপ্রাচ্যে বৃহত্তর যুদ্ধের ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন লেবাননের সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর সেকেন্ড ইন কমান্ড শেখ নাঈম কাসেম।

বিবিসিকে তিনি বলেন, এই অঞ্চলে অত্যন্ত গুরুতর ও ভীষণ বিপজ্জনক পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে এবং এর পরিণতি কেউ আটকাতে পারবে না।

গাজায় হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তরফে সম্প্রতি জানানো হয়, সেখানে ১০ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এরকম একটা সময়েই বৈরুতে একটি সাক্ষাৎকারে হিজবুল্লাহর উপপ্রধান ওই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

হিজবুল্লাহর এই নেতা বলেন, বিপদটা সত্যিই আসতে চলেছে। কারণ ইসরাইল বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে আগ্রাসন বাড়াচ্ছে এবং বেশি সংখ্যায় নারী ও শিশুদের হত্যা করছে। এই অঞ্চলে আরও বিপদ ডেকে না এনে কি এই পরিস্থিতি চলতে পারে? আমার মনে হয় না।

তিনি জোর দিয়ে বলেন, ইসরাইলের হামলা বাড়লে এই অঞ্চলের যুদ্ধের ঝুঁকিও বাড়বে।

যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও আরব লীগ কর্তৃক সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত শিয়া ইসলামী গোষ্ঠীটি লেবাননের বৃহত্তম রাজনৈতিক ও সামরিক শক্তি।

গাজায় যুদ্ধের প্রেক্ষিতে এখনও পর্যন্ত তারা শুধুমাত্র হুঁশিয়ারির মাত্রাই বাড়িয়েছে আর সতর্কভাবে তাদের প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে।

রোববার লেবাননের দক্ষিণাঞ্চলে ইসরাইলি হামলায় এক নারী ও তিন শিশুর মৃত্যুর পর হিজবুল্লাহ প্রথমবার গ্রাড রকেট ব্যবহার করে যাতে এক ইসরাইলি বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়।

হিজবুল্লাহর নেতা হাসান নাসরাল্লাহ হুমকি দিয়ে বলেছেন, লেবাননে প্রত্যেক বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর জবাব সীমান্তের ওপারেও দেওয়া হবে। তবে এখনো তিনি ইসরাইলকে সর্বাত্মক যুদ্ধের হুমকি দেননি।

‘সমস্ত বিকল্প পথই খোলা রয়েছে’ এ কথায় জোর দিয়ে গোষ্ঠীটি মূলত সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করে আন্তঃসীমান্ত আক্রমণের মধ্যেই নিজেদের প্রতিক্রিয়া সীমাবদ্ধ রেখেছে।

তাদের ৬০ জনেরও বেশি যোদ্ধা নিহত হয়েছেন, কিন্তু তাদের জায়গা নেওয়ার মতো যুদ্ধের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হিজবুল্লাহ-র আরও বহু সমর্থক আছে।

বৈরুতে এমন এক যোদ্ধাকে এই সপ্তাহে কবর দেওয়া হয়েছে, যার পরিবারের সদস্যরা কয়েক প্রজন্ম ধরে হিজবুল্লাহর হয়ে লড়াই করে এসেছে। শুধু তাই নয়, তিনি তার পরিবারের পঞ্চম সদস্য যিনি ওই গোষ্ঠীর হয়ে প্রাণ দিয়েছেন।

ইসরাইলকে বয়কট করার আহ্বান খামেনির

ডেস্ক রিপোর্ট:

গাজা উপত্যকায় বোমা হামলার মধ্যে ইসরাইলকে বয়কট করার আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। যুদ্ধ বন্ধে বাধ্য করতে মুসলিম দেশগুলোকে ইসরাইলের কাছে তেল ও খাদ্যপণ্য রপ্তানি বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

খামেনি বলেন, ‘গাজায় বোমা হামলা অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। ইহুদিবাদী শাসকদের কাছে তেল ও খাদ্য রপ্তানির পথ বন্ধ করা উচিত।’

ফিলিস্তিনের সমর্থনে বিশ্বজুড়ে বিক্ষোভের কথা উল্লেখ করে খামেনি বলেন, ‘ধৈর্যধারণের মাধ্যমে গাজার জনগণ বিশ্ববাসীর বিবেককে জাগ্রত করেছে।’

তিনি বলেন, ‘দুনিয়াতে কী ঘটছে দেখুন। ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালিসহ খোদ যুক্তরাষ্ট্রের বহু মানুষ রাস্তায় নেমে স্লোগান দিচ্ছেন। এসব দেশের নেতারা জনতার কাছে তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছেন। গাজায় ইসরাইলের হামলাকে সমর্থন করতে পারে না তারা।’

মুসলিম বিশ্বকে উদ্দেশ করে খামেনি বলেন, ‘মুসলিম বিশ্বের এ কথা ভুলে গেলে চলবে না যে, শুধু ইহুদিই নয়, গাজার নিপীড়িত সাধারণ মানুষের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যও দাঁড়িয়েছে।’

ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা দক্ষিণ ইসরাইলে ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালানোর দাবি করার কয়েক ঘণ্টা পর এক বিবৃতিতে ইরানের শীর্ষ কূটনীতিক হোসেইন আমিরাবদুল্লাহিয়ান বলেছেন, ‘ইসরাইলের দ্বারা সংঘটিত এসব অপরাধের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গোষ্ঠী ও আন্দোলনকারীরা নীরব থাকবে না, এটাই স্বাভাবিক। কারও পরামর্শের জন্যও অপেক্ষা করবে না তারা। তাই যুদ্ধ বন্ধে আমাদের অবশিষ্ট রাজনৈতিক সুযোগগুলো ব্যবহার করতে হবে।’

পরিস্থিতি ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে’ বলেও সতর্ক করেছেন তিনি।

৭ অক্টোবরে হামলার পর গাজার শাসকগোষ্ঠী হামাসকে নিশ্চিহ্ন করার অঙ্গীকার করেছে ইসরাইল। হামাসের হামলায় ইসরাইলে এক হাজার ৪০৫ জন নিহত হয়েছেন। ফিলিস্তিনি যোদ্ধারা দুই শতাধিক জিম্মিকে বন্দি করে গাজায় নিয়ে গেছেন। এ হামলার প্রতিক্রিয়ায় গাজায় নজিরবিহীন বোমা হামলা এবং উপত্যকাটিতে অবরোধ আরোপ করেছে ইসরাইল। ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইসরাইলের হামলায় গাজায় এ পর্যন্ত প্রায় আট হাজার ৮০০ মানুষ নিহত হয়েছেন।

ইসরাইলের অবিরাম হামলায় ধ্বংসস্তূপ ও মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে গাজা উপত্যকা। ফলে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন নিরীহ ফিলিস্তিনিরা। ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে এ আগ্রাসন বন্ধ না হলে ইসরাইলের বিরুদ্ধে এই অঞ্চলে তেহরান-সমর্থিত গোষ্ঠীগুলো পদক্ষেপ নিতে পিছ পা হবে না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন ইরানের ধর্মীয় নেতারা।

গাজায় ভোরে ইসরাইলি বিমান হামলায় ১৬ জন নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট:

গাজাজুড়ে ইসরাইলের সর্বশেষ বিমান হামলায় কমপক্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে। এতে আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন।

বুধবার ভোরে গাজায় ইসরাইলি বাহিনী এই হামলা চালায়। খবর আলজাজিরার।

গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জানিয়েছে, ইসরাইলি হামলা উত্তরে জাবালিয়া, তাল আল-হাওয়া, মধ্য গাজার আল-নুসিরাত শরণার্থী শিবির এবং দক্ষিণে খান ইউনিসের আবাসিক এলাকায় আঘাত হানে।

এছাড়া গাজার আল-মাগাজি শরণার্থী শিবিরেও হামলা চালিয়েছে ইসরাইল বাহিনী। এখানেও বেশ কয়েকজনের হতাহতের খবর পাওয়া গেছে।

বিবৃতিতে আরও জানা যায়, উত্তর গাজার শুজাইয়াহ, শেখ রাদওয়ানেও বেশ কয়েকটি বিমান হামলা ও গোলাবর্ষণের খবর পাওয়া গেছে।

৭ অক্টোবর ইসরাইলে হামলা চালায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। ওই দিনই পালটা আক্রমণ শুরু করে ইসরাইল। এরপর থেকে নির্বিচার হামলা চলছে। অবরুদ্ধ রয়েছে গাজা উপত্যকা।

গাজায় দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা ইসরাইলের নির্বিচার হামলায় পাঁচ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ গেছে। আহত ১৫ হাজারের বেশি মানুষ। নিহতের মধ্যে শিশুর সংখ্যাই দুই হাজার।

অন্যদিকে ইসরাইল জানিয়েছে, হামাসের হামলা ও তাদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় তাদের দেশে নিহত মানুষের সংখ্যা ১ হাজার ৪০০ ছাড়িয়েছে, আহত হয়েছেন ৪ হাজারের বেশি। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ৩৬৩ সেনা ও পুলিশ সদস্য রয়েছেন।

গাজায় ইসরাইলের ভয়াবহ হামলা, ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত

গাজায় ইসরাইলের ভয়াবহ হামলা, ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট:

অধিকৃত পশ্চিমতীরের বেশ কয়েকটি এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালিয়েছে ইসরাইলি বাহিনী। এতে সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হয়েছেন। এ ছাড়া গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত জাবালিয়া ক্যাম্পে বেশ কয়েকটি বাড়ি লক্ষ্য করে ইসরাইলি বিমান হামলায় ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

শুক্রবার ভোরে ইসরাইল পশ্চিমতীরে এ হামলা চালায়। খবর আলজাজিরার।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অন্তত দুই ফিলিস্তিনি সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ছাড়া সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আরও বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে ইসরাইলি বাহিনী।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গাজার বাসিন্দারা, যারা পশ্চিমতীরে কাজ করছে, তাদেরও লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে। ইসরাইলে ৭ অক্টোবর হামাসের হামলার পর থেকে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরাইলি বাহিনী ইতোমধ্যে ৮৫০ জনেরও বেশি গ্রেফতার করেছে।

আনাদোলুর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত জাবালিয়া ক্যাম্পে বেশ কয়েকটি বাড়ি লক্ষ্য করে ইসরাইলি বিমান হামলায় অন্তত ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন বলে গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানিয়েছে।

মন্ত্রণালয়টি আরও জানিয়েছে, জাবালিয়া ক্যাম্পের আনোয়ার আজিজ মসজিদ স্কোয়ারে বেশ কয়েকটি বাড়ি লক্ষ্য করে চালানো বিমান হামলায় বিপুলসংখ্যক মানুষও আহত হয়েছেন।

গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার অফিসিয়াল ফেসবুক অ্যাকাউন্টে বেশ কিছু ছবি প্রকাশ করেছে, যেখানে কামাল আদওয়ান হাসপাতালে (উত্তর গাজার) সিভিল ডিফেন্স এবং মেডিকেল টিমগুলোকে নিহতদের উদ্ধারের পাশাপাশি আহতদের সেবা দিতে দেখা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা আনাদোলুর সংবাদদাতাকে বলেছেন, ‘হামলার পর বিস্তৃত ধ্বংসযজ্ঞের মধ্যে কয়েক ডজন আহত মানুষ ধ্বংসপ্রাপ্ত বাড়ির ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে আছেন।’

ইসরাইল থেকে দেশে ফিরলেন ২০০ ভারতীয় নাগরিক

ইসরাইল থেকে দেশে ফিরলেন ২০০ ভারতীয় নাগরিক

ডেস্ক রিপোর্ট:

ইসরাইল থেকে একটি চার্টার্ড প্লেনে করে ২০০ ভারতীয় নাগরিক দেশে ফিরেছেন।

শুক্রবার সকালে তারা নয়াদিল্লিতে অবতরণ করেন বলে জানা যায়।

সম্প্রতি হামাস ও ইসরাইলের মধ্যে চলমান সংঘাতের মাঝে দেশে ফিরে আসতে ইচ্ছুক ভারতীয় নাগরিকদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে নয়াদিল্লি ‘অপারেশন অজয়’ নামে একটি উদ্যোগ শুরু করেছে।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজিব চন্দ্রশেখর দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইসরাইল-ফেরত নাগরিকদের স্বাগত জানান। তাদের ফিরে আসা নিয়ে এক্সে বার্তা দেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর।

উচ্চশিক্ষা নিতে ইসরাইলে গিয়েছিলেন শুভাম কুমার। তিনি জানান, ‘আমরা দেশের (ভারতের) কাছে কৃতজ্ঞ। বেশিরভাগ শিক্ষার্থী আতংকের মাঝে দিন কাটাচ্ছিলেন। আমরা ভারতের দূতাবাসের কাছ থেকে বার্তা পাই, যা আমাদের মনোবল বাড়ায়। আমাদের মনে হয়, দূতাবাস আমাদের পাশেই আছে, যা স্বস্তিদায়ক।’

ধারণা করা হয়, ইসরাইলে ১৮ হাজার ভারতীয় নাগরিক অবস্থান করছেন। পশ্চিমতীরে প্রায় ১২ জন ও গাজায় ৩-৪ জন ভারতীয় অবস্থান করছেন বলেও জানা যায়।

১১ লাখ বাসিন্দাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গাজা ছাড়ার নির্দেশ ইসরাইলের

১১ লাখ বাসিন্দাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গাজা ছাড়ার নির্দেশ ইসরাইলের

ডেস্ক রিপোর্ট:

অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে থাকা ১১ লাখের বেশি ফিলিস্তিনিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরে যেতে বলেছে দখলদার ইসরাইল।

বৃহস্পতিবার দেশটির সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে জাতিসংঘকে এ কথা জানানো হয়েছে। খবর আলজাজিরার

জাতিসংঘের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, গাজার জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক মানুষ উত্তরাঞ্চলে বাস করেন। তবে জাতিসংঘ ইসরাইলের এই নির্দেশ বাতিলের জন্য জোরালোভাবে কাজ করছে।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, ইসরাইলের এমন পদক্ষেপ গাজায় চলমান ট্র্যাজেডিকে আরও বেদনাদায়ক পরিস্থিতিতে রূপান্তরিত করতে পারে। গাজায় জাতিসংঘের সব কর্মী, স্কুল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ক্লিনিকের কর্মীসহ সবাইকে সরিয়ে নিতে বলেছে ইসরাইল।

গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে মূল গাজা সিটি, জাবালিয়া শরণার্থী শিবির, বেইত লাহিয়া ও বেইত হানুন অঞ্চল রয়েছে।

ইসরাইলের চরম নৃশংসতার শিকার গাজার বাসিন্দারা। দখলদার বাহিনীর হাত থেকে ছাড় পাচ্ছেন না শিশু ও নারীরাও। গত ছয় দিনের অব্যাহত হামলায় রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এক হাজার ৫৩৭ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৫০০ শিশু রয়েছে। আর নারী রয়েছেন ২৭৬ জন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ছয় হাজার ৬১২ জন।

দখলদার বাহিনী শুধু হামলা করেই ক্ষান্ত হয়নি। গাজায় খাবার সরবরাহ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানিও বন্ধ করে দিয়েছে। জিম্মিদের মুক্তি না দিলে এগুলোর কোনো কিছুই গাজায় সরবরাহ না করার অঙ্গীকার করেছে তারা। ফলে গাজায় মানবিক সংকট গভীর থেকে আরও গভীর হচ্ছে।

ইসরাইলকে রক্ষায় যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ইসরাইলকে রক্ষায় যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র সংগঠন হামাসের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে ইসরাইলের সমর্থনে পূর্ব ভূমধ্যসাগরে যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ওয়াশিংটন। মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব লয়েড অস্টিন জানিয়েছেন, এরই মধ্যে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ ‘ইউএসএস জেরাল্ড আর ফোর্ডে’র সঙ্গে একটি ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজার ও চারটি ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা ইসরাইল উপকূলের দিকে যাত্রা শুরু করেছে।

রোববার (৮ অক্টোবর) হামাসের বিরুদ্ধে ইসরাইলের আনুষ্ঠানিক যুদ্ধ ঘোষণার পর মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগ এক বিবৃতিতে সামরিক সহায়তা দেওয়ার কথা নিশ্চিত করে।

মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব আরও বলেন, অতিরিক্ত সরঞ্জাম ও গোলাবারুদের পাশাপাশি ইসরাইলে মার্কিন যুদ্ধবিমানও পাঠানো হবে। হোয়াইট হাউজ জানিয়েছে, বাইডেন সরকার আগামী দিনে দেশটিতে আরও সামরিক সহায়তা পাঠাবে। তাছাড়া ইসরাইলের শত্রুরা যাতে এ পরিস্থিতি থেকে সুবিধা নিতে না পারে তা নিশ্চিত করতেও কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন জানিয়েছেন, হামাসের হামলায় নিহত ও বন্দিদের মধ্যে কোনো মার্কিন নাগরিক রয়েছে কি না তা যাচাইয়ের কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র। একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ইরানের প্রসঙ্গ টেনে ব্লিঙ্কেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র এ যুদ্ধে ইরানের সরাসরি জড়িত থাকার প্রমাণ পায়নি, তবে ইরান বছরের পর বছর ধরে গাজাভিত্তিক স্বাধীনতাকামী সংগঠনটিকে সহায়তা করে আসছে।

তিনি আরও বলেন, ইরান হামাসকে বহু বছর ধরে সমর্থন দিয়ে আসছে। তাদের সাহায্য ছাড়া ‘হামাস’ এতটা ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারতো না। আমরা এখনো প্রমাণ পায়নি যে, ইরান হামাসের হামলার পেছনে সরাসরি জড়িত ছিলো। তবে তাদের সমর্থন স্পষ্ট। যদিও জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে ইসরাইল হামলায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে ইরান।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে ও ১১০০ পেরিয়েছে। এর মধ্যে ইসরায়েলে ৭০০ জনের বেশি ও গাজায় কমপক্ষে ৪০০ জন নিহত হয়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা, বিবিসি, রয়টার্স