Tag Archives: ইসি আনিছুর

সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব থমকে যেতে পারে: ইসি আনিছুর

ডেস্ক রিপোর্ট:

সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে দেশের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে যাবে। ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব কিছু থমকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আনিছুর রহমান।

রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

এই নির্বাচন কমিশনার জানান, আমরা শুধু আমাদের দৃষ্টিতে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করলে হবে না। আমাদের দিকে সমগ্র বিশ্ব তাকিয়ে। এ নির্বাচন যদি সুষ্ঠু, সুন্দর এবং গ্রহণযোগ্য না করতে পারি, তাহলে ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। বাংলাদেশে সব বিষয়, বিশেষ করে আর্থিক, সামাজিক, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব কিছু থমকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বাংলাদেশ হয়তোবা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।

তিনি আরও জানায়, আর মাত্র ছয়দিন পর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচন যে কোনো মূল্যে সুষ্ঠু, অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক করতে হবে। সেই উদ্দেশ্যে ২৮ নভেম্বর থেকে মাঠে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা আছেন। আচরণবিধি প্রতিপালনে তারা কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। এবারই প্রথম প্রতিটা আসনভিত্তিক সার্বক্ষণিক জুডিশিয়াল অফিসার দিয়ে ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি করা হয়েছে। উভয় মাঠে খুব ভালো কাজ করেছে। এক মাসেরও বেশি সময় পুরো মাঠ চষে বেড়িয়েছি। সিইসিসহ অন্যান্য কমিশনাররা দেশের বিভিন্ন স্থানে গেছেন।

নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান জানান, আমরা লক্ষ্য করেছি, আচরণবিধি প্রতিপালনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ম্যাজিস্ট্রেটরা। একই সঙ্গে যে অভিযোগগুলো তাদের কাছে এসেছে, আর তারা যেটা সমাধান করতে পারেনি বা রিটার্নিং, সহকারী রিটার্নিং অফিসার সেগুলো ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটিকে দিয়েছে, তারা কারও কারও হাজিরা চেয়েছেন। কাউকে শোকজ করেছেন, লিখিত ব্যাখ্যা চেয়েছেন। এভাবে নিষ্পত্তি করেছেন। কিছু আমাদের কাছে এসেছে, আমরা সেগুলোর ব্যবস্থা নিয়েছি।

সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইসির চেষ্টার শেষ নেই জানিয়ে তিনি বলেন, অন্যান্য যে কোনো নির্বাচনের তুলনায় এবার সহিংসতা খুব কম। যদিও ক্ষেত্র বিশেষে দু-একটা ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া আচরণবিধি লঙ্ঘন অন্যবারের চেয়েও কম। তারপরও আমরা আত্মতুষ্টিতে ভুগতে চাই না।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রথম দফার প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ৪৩১ জন ম্যাজিস্ট্রেট অংশ নেন।

নির্বাচনে বিএনপি এলে তফশিল পেছানোর সময় আছে: ইসি আনিছুর

ডেস্ক রিপোর্ট:

নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান বলেছেন, বিএনপি নির্বাচনে এলে তফশিল পেছানোর সময় এখনো আছে। আমরা নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে তাদের বারবার আহবান জানিয়ে আসছি নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য। তাই তারা যদি নির্বাচনে আসে তাদের অংশ নেওয়ার বিষয়ে অবশ্যই বিবেচনা করা হবে।

সোমবার দুপুরে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের দেওয়া ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান।

সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান।

জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. শহিদুজ্জামান, রাঙামাটির পুলিশ সুপার মীর মো. আবু তৌহিদ, খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর, বিজিবি রাঙামাটি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল সাহিদুর রহমান ওসমানসহ রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ির জেলার নির্বাচন কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা কর্মকর্তা, সব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, থানার ওসি এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন নির্বাচন কমিশনার। এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নে তিনি বলেন, আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন সম্পূর্ণ অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক করতে যা যা করণীয় তার সব ব্যবস্থা নিতে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা দায়িত্বে থাকা সব কর্তৃপক্ষকে বলে দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সব ধরনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, সারা দেশে অতীতের নির্বাচনগুলোর মতো এবারো সেনাবাহিনী মোতায়েনের প্রক্রিয়া চলছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি আগে থেকেই রয়েছে। তাই এখানকার জন্য আমাদের কৌশলগতভাবে খুব বেশি করা লাগবে না। তাছাড়া এখানে নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন বাহিনী নিয়োজিত আছেন। কেউ নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান আরও বলেন, নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য বারবার আহবান জানিয়ে আসছে নির্বাচন কমিশন। দেশে মোট ৪৪টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মধ্যে ২৬টি দল নির্বাচনে এসেছে। ১৮টি দল এখনো নির্বাচনে অংশ নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেনি। তারা নির্বাচনে আসবে কিনা, সেটা তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্ত। কিন্তু কাউকে নির্বাচনে অংশ নিতে না দেওয়া কিংবা নির্বাচন বানচালের অধিকার তাদের নেই। কারণ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার অধিকার প্রতিটি নাগরিকের রয়েছে।

বিদেশি পর্যবেক্ষকদের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নিয়ে নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা সব দেশের পর্যবেক্ষকদের নির্বাচন পর্যবেক্ষণে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। তাদের আবেদনের সময় ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত ছিল; কিন্তু আমরা ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে দিয়েছি।