Tag Archives: উপজেলাজুড়ে হামলা-মারধরের শিকার হচ্ছে নৌকার সমর্থকরা

দেবিদ্বারে সহিংসতা চরমে, উপজেলাজুড়ে হামলা-মারধরের শিকার হচ্ছে নৌকার সমর্থকরা

 

স্টাফ রিপোর্টার:
ভোটের রাত থেকে আতংক, হামলা-ভাংচুরের উপজেলায় পরিণত হয়েছে কুমিল্লার দেবিদ্বার ( সংসদীয় আসন-৪) উপজেলা। এলাকায় এলাকায় মার খাচ্ছে নৌকার পক্ষে কাজ করা নেতাকর্মীরা। আতংকে হাজার হাজার নেতাকর্মী এলাকা ছেড়ে চলে গেছে।

দেবিদ্বারে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা এখন চরমে। হামলা-মারধর চলছে অবাধে। নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সাবেক সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের পক্ষে যেসব আ’লীগ ও এর অংগসংগঠনের নেতাকর্মীরা কাজ করেছে তাদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে হামলা-ভাংচুর ও মারধর করছে বিপক্ষরা। ভোটের দিন ৭ তারিখের রাত থেকে হামলা-ভাংচুর ও মারধর অব্যাহত রয়েছে। রক্তাক্ত আহত হয়েছেন সাবেক এমপি রাজী ফখরুলের অসংখ্য নেতাকর্মী। এমনকি মারধরের হাত থেকে বাদ যায়নি গর্ভবতী মহিলারাও। সংখ্যালঘুদেরকেও নির্যাতন করছে। থানায় অভিযোগ করলে পুনরায় হামলা-ভাংচুর হবে এমন হুমকিও অব্যাহত রয়েছে। এমন গুরুতর অভিযোগ উঠেছে ঈগল প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সদ্য সাংসদ নির্বাচিত হওয়া আবুল কালাম আজাদের অনুসারিদের বিপক্ষে। এমনকি ভোটের দিন ভানী ইউনিয়নের এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের উপর হামলা করেছে ঈগল সমর্থিত নেতাকর্মীরা।

গোপনে মোবাইলে ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ ও স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, নৌকার পক্ষে কাজ করায় ধামতী ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য অরুণকে হাইস্কুলের সামনে মারধর করা হয়।

নবীয়াবাদ উত্তর পাড়ার মৃত. শহিদ মিয়ার ছেলে শেফালি বেগম জানান, আমার ভাই নৌকার পক্ষে কাজ করেছিল। এজন্য বাড়িতে এসে আমারে, আমার মাকে মারধর করেছে আবুল কালাম আজাদের লোকরা। আমার মোবাইল, স্বর্ণালংকার, টাকা লুট করে নিছে তার লোকজন। আমাদের বাড়িঘর কুপিয়ে ও ভাংচুর করা হয়েছে। আমাদের পথে বসিয়ে দিয়েছে ঈগল প্রতিকের আবুল কালামের লোকজন।

নৌকার পক্ষে কাজ করায় ভানী ইউনিয়নের সূর্যপুর গ্রামের বিল্লালের বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে।

এছাড়া নৌকার পক্ষে কাজ করায় বিআরটিসি কাউন্টারে গিয়ে নৌকার সমর্থক নাঈমসহ আরো ৪/৫ জনকে মারধর করে ঈগলের সমর্থক ময়নামতি এলাকার সালাহউদ্দিনের নেতৃত্বে রাজু, সাগরসহ আরো ২০/২৫ জন দুর্বৃত্ত। এ সময় নৌকার সমর্থকদের কাছ থেকে টাকাও লুটে নেয় তারা।

ভানী ইউনিয়নের প্রায় ৪ শতাধিক হিন্দু ভোটার এখন আতংকে রয়েছে। তাদের বেশিরভাগই নৌকার পক্ষে কাজ করায় তাদের উপর ভয়-ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে। নৌকার পক্ষে কাজ করায় নির্বাচনের পরদিন সন্ধ্যায় পবন চন্দ্র দাস ও সকালে মুন্সিবাড়ির বাসিন্দা মবিন মুন্সির ছেলে খলিল মুন্সিকেও মারধর করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলামকেও হুমকি প্রর্দশন করা হয়েছে। নৌকা প্রতিকের সমর্থিত নেতাকর্মী আব্দুল্লাহ আল মামুন মেম্বার, আবুল বাশার, হানিফ খান, নেছার উদ্দিন ভূইয়া, শুভ ভূইয়া, জামাল ভূইয়ার নেতৃত্বে এসব হুমকি-ধমকি অব্যাহত রয়েছে।

রাজামেহের ইউনিয়নে নৌকার সমর্থকদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা হয়েছে। খাদঘর এলাকায় নৌকার সমর্থক সুমনের বাড়িতে দল বেঁধে ঢুকে হামলা-ভাংচুর করেছে। মারধর করা হয়েছে নারী-পুরুষ সবাইকে। জাফরাবাদ এলাকায় খলিলের দোকানের সামনে নৌকার এক সমর্থককে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে ঈগল প্রতিকের নেতাকর্মীরা। এছাড়া জিএস আব্দুল মান্নানের ছোট ভাই নৌকার সমর্থক রুহুল আমিনকে কুপিয়ে আহত করেছে । জিএস আব্দুল মান্নানের বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে। রাজামেহের ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক বিল্লাল ও তার ভাবিকে মারধর করে তাদের চোখ নষ্ট করে দেয়া হয়েছে।

গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু ইউসুফের মাথা ও পায়ে রক্তাক্ত জখম করা হয়েছে। এছাড়া তার বড় ভাই, চাচা, চাচাত ভাইতে কুপিয়ে আহত করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক হিন্দু পরিবারের সদস্যরা জানান, ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার পরও এমন ঘটনা ঘটেনি। যা এই কয়েকদিনে হইছে। আমরা খুব আতংকে আছি।

কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক লিটন সরকার জানান, ভোটের ফলাফল ঘোষণার পরপরই বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা ঈগলের নেতাকর্মীদের উপর ভর করে নৌকা ও এর অংগসংগঠনের নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে হামলা শুরু করেছে। মারধরসহ হুমকি প্রদর্শন করছে। এখনোও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায়, এখনই যদি নৌকার পক্ষে কাজ করায় নৌকার নেতাকর্মীরা মার খেতে হয়, তাদের বাড়িঘরে হামলা-ভাংচুর করা হয়, তাহলে আমরা কোথায় যাবো। এটা দু:খজনক। এভাবে মার খেতে থাকলে আ’লীগের নেতাকর্মীরা কোথায় যাবে।  আমাকে দুর্বল করার জন্য বিভিন্ন এলাকায় আমার নেতাকর্মীদের মারধর করা হচ্ছে। যাতে বিএনপি-জামায়াত বিভিন্ন ধরণের নাশকতা করতে পারে, তাদের প্রতিহত করার জন্য যাতে আ’লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের কোন নেতাকর্মী না থাকে, সেজন্যই এখনি হামলা-মারধর করা হচ্ছে। ঈগলের প্রতিকের প্রার্থীর সাথে এক হয়ে তারা এমন নারকীয় কান্ড করছে। আমি নিজে প্রাণহানির শংকায় রয়েছি। মুখোশধারি বহিরাগত সন্ত্রাসীরা আমার বাড়ির আশেপাশে মোটরসাইকেল মহড়া দিচ্ছে। যে কোন সময় সন্ত্রাসীরা আমার উপর হামলা করে হত্যা করতে পারে। আমি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানিয়েছি।

সাবেক সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুল জানান, ভোটের আগেই আমাদের নেতাকর্মীদের হুমকি দিয়ে আসছিল ঈগল সমর্থিত নেতাকর্মীরা। ভোটের রাত থেকেই আ’লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাকর্মী, সংখ্যালঘু ও সাধারণ ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা হচ্ছে। আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ভানী ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন ভূইয়ার নেতৃত্বে ভোটের দিন সূর্যপুর ভোটকেন্দ্রে আমার উপর হামলা হয়েছে। এতসব হামলার পরও প্রশাসন চুপ রয়েছে।

দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: নয়ন মিয়া জানান, যখনই কোন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে, আমরা ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। তদন্ত করছি। একটি ঘটনায় মামলা হয়েছে। আইনশৃংখলা পরিস্থিতি ভাল রাখতে আমরা কাজ করছি।