Tag Archives: উপজেলা নির্বাচন নিয়ে দ্বিমুখী সঙ্কটে আওয়ামী লীগ

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে দ্বিমুখী সঙ্কটে আওয়ামী লীগ

 

স্টাফ রিপোর্টার:

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ বড় ধরনের সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছে। একদিকে দলের ভিতর বিভক্তি, অনৈক্য, একাধিক প্রার্থী অন্যদিকে বিএনপি এবং জামায়াতের প্রার্থীর নিরবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা। এ দু’টি বিষয় নিয়ে আওয়ামী লীগ এক জটিল সমস্যার মধ্যে পড়েছে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগ এখন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সিরিয়াস অবস্থানে গেছে এবং উপজেলা নির্বাচনে যেন দলের ভরাডুবি না হয় সে ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

একাধিক সূত্র বলছে, উপজেলা নির্বাচনের বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগ একটু উদার অবস্থানে ছিলো। আওয়ামী লীগ মনে করেছিল যে প্রক্রিয়ায় জাতীয় নির্বাচন করা হয়েছে, সে একই প্রক্রিয়ায় উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। অর্থাৎ আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগের লড়াই হবে। এবং এ লড়াইয়ে যারা জিতবেন তারাই উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। কিন্তু এখন পরিস্থিতি পাল্টে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগের জন্য উপজেলা নির্বাচন আস্তে আস্তে কঠিন হয়ে উঠছে বলেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। বিশেষ করে উপজেলায় জামায়ত এবং বিএনপির অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত আওয়ামী লীগকে এক কঠিক অবস্থানের মধ্যে ফেলেছে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

বিএনপি বলছে যে উপজেলা নির্বাচনের ব্যাপারে তারা এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। কিন্তু সরেজমিনে অনুসন্ধান করে দেখ গিয়েছে, ১৫২ টি উপজেলায় উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তার মধ্য ১৪০ টিতেই বিএনপির প্রার্থীরা কোন না কোন ভাবে সক্রিয়। এ সমস্ত উপজেলাগুলোতে বিএনপির যারা প্রার্থী হয়েছেন তাদের অধিকাংশই স্থানীয় পর্যায়ে জনপ্রিয় নেতা, বিএনপিতে তাদের পদ পদবী আছে। তারা ইফতার ও মাহফিলসহ বিভিন্ন ধরনের জনসংযোগ করছেন এবং এসমস্ত উপজেলাগুলোতে তাদের পোস্টারও দেখ যাচ্ছে।

তাহলে এটি স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে যে, উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করছে। শুধু বিএনপি নয়, উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতও অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে। এবং জামায়াতের সঙ্গে বিনপির একটি আতাত হয়েছে তা উপজেলা নির্বাচনে দৃশ্যমান হচ্ছে। জামায়াত সেসকল উপজেলাগুলোতে অংশগ্রহণ করছে যে সমস্ত উপজেলায় তাদের শক্ত অবস্থান রয়েছে, কর্মী সমর্থকও রয়েছে এবং প্রার্থীর গ্রহণ যোগ্যতা রয়েছে।

১৫২ টি উপজেলার মধ্যে ২১ টিতে জামায়াত অংশগ্রহণ করতে পারে বলে প্রাথমিক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। এসমস্ত উপজেলাগুলোতে জামায়াত ইতিমধ্যে প্রচারণা শুরু করেছে। আর যে সমস্ত উপজেলায় জামায়াত অংশগ্রহণ করবে না সে সমস্ত উপজেলাগুলোতে তারা বিএনপিকে সমর্থন দিবে। বিএনপি প্রকাশ্যে বলছে, তারা নির্বাচন করবে না, নির্বাচন করলে বহিষ্কার করা হবে। অন্যদিকে বিএনপিতে যাতে একাধিক প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে সেজন্য ইতিমধ্যে তারা সতর্ক অবস্থান নিয়েছেন।

যেসমস্ত নির্বাচনী এলাকায় বিএনপি প্রার্থীরা ইতিমধ্যে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে পোস্টার দিয়েছেন বা ইফতার মাহফিলের নামে প্রচারণা শুরু করেছেন সেখানে একজন প্রার্থী থাকছেন। যদি কোথাও একাধিক প্রার্থী নির্বাচনে দাড়ানোর অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন তাহলে সেখানে স্থানীয় পর্যায়ের বিএনপির নেতারা তাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করছেন এবং একজন প্রার্থীকে রেখে বাকি প্রার্থীদেরকে বসিয়ে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করা হচ্ছে। অর্থাৎ উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি এবং জামায়াত ঐক্যবদ্ধভাবে একক প্রার্থীতায় অংশগ্রহণ করছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ ৪ থেকে ৫ জন প্রার্থী প্রতি উপজেলায় দাড় করাচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই ভোটের মাঠে এর বিরূপ প্রভাব পড়বে এবং এই উপজেলা নির্বাচন নিয়ে একটি বড় ধরনের সঙ্কটে আওয়ামী লীগ পড়তে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছে।