Tag Archives: উপ-নির্বাচন

কুসিকের উপ-নির্বাচন: মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন তানিম

উজ্জ্বল হোসেন বিল্লাল :

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে উপ নির্বাচনের মনোনায়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা নূর-উর রহমান মাহমুদ তানিম।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে তানিমের পক্ষে মনোনয়নপত্র কেনার সময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা আলমগীর মজুমদার, সৈয়দ সোহেল, ব্যাবসায়ী নেতা আনোয়ার হোসেন, সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ হোসেন , জিল্লুর রহমান, যুবলীগ নেতা মাইনউদ্দিন তালুকদার, মো.গোলাম কিবরিয়া, আশিকুর রহমান, রাহেতউল্ল্যাহ উজ্বল, আলমগীর হোসেন, গোলাম মোহাম্মদ রহমত হোসেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সদস্য গোলাম হায়দার রনি সাংস্কৃতিক কর্মী মোঃ হাফিজুর রহমানসহ মহানগর আওয়ামীলীগের অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ,বিভিন্ন সমাজকর্মী ও সাংস্কৃতিক কর্মীগণ।

কুমিল্লা-৫ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাহার করায় দল থেকে জাপা নেতা বহিষ্কার

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দলীয় নেতাকর্মীদের না জানিয়ে গোপনে কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন করায় ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা জাতীয় পার্টির (জাপা) আহবায়ক মো. জসিম উদ্দিনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

সোমবার (২১ জুন) চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি গঠনতন্ত্রের ২০/১ (১) ক ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে তাকে বহিষ্কার করেন। একইসঙ্গে দলটির কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

বহিষ্কারাদেশে বলা হয়েছে, জাতীয় পার্টির সংসদীয় বোর্ড প্রার্থী মনোনয়নের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানে যেকোনো পরিস্থিতিতে নির্বাচনের শেষ দিন পর্যন্ত মাঠে থাকার প্রতিশ্রুতিতে জসিম উদ্দিনকে কুমিল্লা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হয়। কিন্তু তিনি মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্তকে অমান্য করেছেন। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সোমবার রাতে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক ওবায়দুল কবীর মোহন বলেন, ‘কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী জসিম উদ্দিন টাকার বিনিময়ে বিক্রি হয়ে আত্মগোপনে আছেন। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন করেছেন কাউকে না জানিয়ে। এ জন্য তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’

জেলা কমিটি বিলুপ্তের বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব হুমায়ূন কবির মুনশী বলেন, ‘প্রার্থীর অপকর্মের দায় তো আমরা নিতে পারি না। জসিমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাইনি। সে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছে। এ বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না।’

বহিষ্কারের বিষয়ে জানতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী জসিম উদ্দিনকে একাধিকবার মোবাইলে ফোন করেও তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, আগামী ২৪ জুন মনোনয়ন প্রত্যাহারের দিন ধার্য থাকলেও চারদিন আগেই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত জানালেন জাপা প্রার্থী মো. জসিম উদ্দিন। ২০ জুন বিকেল সোয়া ৪টার দিকে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এসে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসানের কাছে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদনটি জমা দেন। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খাঁন। এ আসন থেকে মাত্র দুজনই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
সূত্র-জা:নি

যে কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হলেন সাজ্জাদ-সেলিমা খসরু-সালামরা

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং- বি পাড়া) আসনের সাংসদ এড. আব্দুল মতিন খসরুর মৃত্যুর পর শুণ্য হওয়া এই আসনের উপ-নির্বাচনে নৌকার টিকিট পেতে মাঠে ছিলেন প্রায় অর্ধ শতাধিক রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ি। মনোনয়নপত্রও কিনেছিলেন ৩৫ জন। বেশ আলোচনায় ছিলেন সাজ্জাদ হোসেন, সেলিমা সোবহান, সালাম বেগ, এহতেশামুল হাসান ভূইয়া রুমিরা। কিন্তু সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান করে নৌকার মাঝি হলেন বুড়িচং উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এড. আবুল হাশেম খান । ফলে হতাশ হতে হলো সাজ্জাদ হোসেন, সেলিমা সোবহান খসরু, সালাম বেগ, রুমিদের মত হেভিওয়েট প্রার্থীদের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক বিভিন্ন স্থানীয় সূত্র থেকে পাওয়া তত্ত্বের ভিত্তিতে হাশেম খানের নৌকার টিকেট পাওয়া এবং অন্যান্য প্রার্থীদের মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ার কারণগুলো বিশ্লেষণ করা হল।

যে কারণে নৌকার মাঝি হলেন অ্যাড. আবুল হাশেম খান:
সক্রিয় রাজনীতিবিদ এড. আবুল হাশেম খান বুড়িচং উপজেলার আ’লীগের সভাপতি। জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সভাপতিও ছিলেন। ১৯৬৯ সাল থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন। প্রয়াত সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর অন্যতম সহচর ছিলেন। সাংগাঠনিক দক্ষতাও প্রখর। দলের সাথে কখনো বিদ্রোহ করেন নি। বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতিক পেয়েও দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। কিন্তু দলের প্রতি আত্মত্যাগ ও আস্থা রাখার পুরস্কারস্বরূপ নৌকার টিেিকট পেয়েছেন হাশেম খান। এমনই ধারণা তৃণমূল রাজনীতিবিদদের।

যে কারণে মনোনয়ন পেলেন না হেভিওয়েটরা:
হেভিওয়েট প্রার্থী সেলিনা সোবহান খসরু প্রয়াত আব্দুল মতিন খসরুর স্ত্রী । সবাই ভেবেছিলেন প্রয়াত মতিন খসরুর স্ত্রী হিসেবে সহানুভূতি পাবেন তিনি। কিন্তু তা আর হয়নি। তার মনোনয়ন না পাওয়ার পিছনে কিছু কারণ হলো- প্রয়াত মতিন খসরু যখন সেলিনা সোবহান খসরুকে বিয়ে করে তখন আপত্তি তুলেছিলেন তার ছেলে ও মেয়ে। প্রথম স্ত্রীর সন্তানদের সাথে তার সম্পর্ক ভাল ছিল না বলে জানা যায়। এছাড়া প্রয়াত মতিন খসরুর ভাই আবদুল মমিন ফেরদৌসও তার বিরুদ্ধে ছিলেন। এলাকায় দলীয় কোন পদ ছিল না। ছিল না জনসম্পৃক্ততা। তাই হয়তো নৌকার টিকিট পাননি প্রয়াত সাংসদের স্ত্রী।

সাজ্জাদ হোসেন:
আশির দশকে রাজনীতির শুরু করা সাজ্জাদ হোসেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান । তিনিও আলোচিত প্রার্থী ছিলেন। ব্যাপক জনসমর্থন ও রাজনৈতিক ক্যারিয়ার বিবেচনায় তিনি বেশ এগিয়ে ছিলেন। দিন শেষে নৌকার টিকিট তিনি পান নি। নৌকার টিকিট না পাওয়ার পেছনে অন্যতম কারণগুলো হতে পারে- বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরোধীতা করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। তুমুল লড়াই শেষে অল্প কিছু ভোটের জন্য পরাজিত হয়েছিলেন। নির্বাচনে পরাজয়ের পিছনে প্রয়াত সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর হাত ছিল অপবাদ দিয়ে মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত মতিন খসরুর বিরোধীতা করেছিলেন তিনি। এমন তথ্য স্থানীয় রাজনীতিবিদদের। যদিও বিরোধ কখনো প্রকাশ্যে করেননি। তবে একটা মনোমালিন্য ছিল , এটা প্রায়জনই বলতো।  উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি একবার পরাজিত হয়েছিলেন। এছাড়া বুড়িচং উপজেলা আ’লীগের একাধিক কমিটি ছিল। সাজ্জাদের সাথে কোন্দল ছিল অন্যদের। তাই হয়তো দলীয় কোন্দল এড়াতেই  মনোনয়ন দেয়া হয়নি সাজ্জাদকে।

আব্দুস সালাম বেগ :
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য। মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে তিনি বেশ আশাবাদি ছিলেন। গত সাংসদ নির্বাচন থেকে তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। কিন্তু তিনি মনোনয়ন পেলেন না। এলাকায় জনসমর্থন কম থাকার বিষয়টি হয়তো নেতিবাচক হয়েছে তার জন্য।

এড. আবদুল মমিন ফেরদৌস:
প্রয়াত সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর আপন ভাই। কুমিল্লা জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। অতীতে রাজনীতিতে সক্রিয় না থাকাই হয়তো মনোনয়ন না পাওয়ার কারণ।

মেজর জেনারেল (অবঃ) মোস্তাফিজুর রহমান:
ঔষধ প্রশাসনের সাবেক ডিজি ছিলেন। এলাকার রাজনীতিতে সক্রিয় না থাকা, দলীয় পদ-পদবি ছিল না। মনোনয়ন না পাওয়ার পেছনে এগুলোই হয়তো মুখ্য ভূমিকা পালন করেছে।

জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী :
ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি । তিনি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানও। দীর্ঘদিন আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকলেও পরপর দুইবার ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার টিকেট পেয়েও বিদ্রোহী প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। সম্প্রতি বি পাড়া উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে সাংবাদিকদের উপর হামলা নির্যাতন করে বেশ সমালোচিত হয়েছেন। এই নেতিবাচক দিকগুলো মনোনয়ন না পাওয়ার পেছনে কাজ করেছে বলে নেতাকর্মীরা মনে করেন।

ফারুক মেহেদী:
বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব। বাংলাদেশের আলোচিত সাংবাদিক। বুড়িচংয়ের শিক্ষাব্যবস্থায় অবদান রাখা ফারুক মেহেদী দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন। তবে তিনি কোন প্রচারণায় ছিলেন না। বুড়িচংয়ের রাজনীতিতে সক্রিয় না থাকায় মনোনয়ন পান নি। তবে তিনি ভবিষ্যতে একজন হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে আর্বিভূত হবেন বলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন।

অধ্যক্ষ সেলিম রেজা সৌরভ:
‘সোনার বাংলা’ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ । বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য। তার মনোনয়ন না পাওয়ার পেছনে কিছু বিষয় কাজ করেছে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হল- ২০০৯ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে তৃতীয় হয়েছিলেন। ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে ও ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অধ্যক্ষ সেলিম রেজা সৌরভের নিজের ভোটকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত শিমাইল খাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী পরাজিত হয়।

এহতেশামুল হাসান ভূইয়া (রুমি) :
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সহ সম্পাদক তরুণ এই রাজনীতিবিদ বিগত কয়েক মাসে এলাকায় ব্যাপক শোডাউন করেছে। করোনাকালিন সময়ে মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে খাবার ও নগদ অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছেন। তিনি মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে বেশ আশাবাদি থাকলেও নিরাশ হয়েছেন। তার মনোনয়ন না পাওয়ার পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে। যেমন- বয়স কম হওয়া কিংবা পূর্বে এলাকার রাজনীতিতে সক্রিয় না থাকার বিষয়টি হয়তো প্রাধান্য পেয়েছে।

কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং- বি পাড়া) সংসদীয় আসনে উপনির্বাচন ১৪ জুলাই

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

ঢাকা-১৪, সিলেট-৩ ও কুমিল্লা-৫ শূন্য সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন আগামী ১৪ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।

বুধবার (২ জুন) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে কমিশন সভা শেষে নির্বাচনের এ তারিখ ঘোষণা করেন তিনি।

সচিব বলেন, আসনগুলোর নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৫ জুন, মনোয়নপত্র বাছাই ১৬ জুন, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৩ জুন, প্রতীক বরাদ্দ ২৪ জুন এবং ভোটগহণ করা হবে আগামী ১৪ জুলাই।

এর আগে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে গত ১ মার্চ থেকে সব ধরনের নির্বাচন স্থগিত করেছিল কমিশন।

সভায় স্থগিত হয়ে যাওয়া ৩৭১ ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করেছে ইসি। আগামী ২১ জুন ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। একইদিন ১১টি পৌরসভা ও লক্ষীপুর-২ আসনেও উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

দেবিদ্বারে উভয় সংকটে নৌকা, খোশ মেজাজে বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রাথী

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
আগামীকাল রবিবার কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন। চলতি বছরে একমাত্র বরুড়া পৌর নির্বাচন ছাড়া কোন নির্বাচনেই বিএনপি সক্রিয় ছিল না। নামেমাত্র নির্বাচন অংশগ্রহণই ছিল যেন বিএনপির উদ্দেশ্য। ফলে দাউদকান্দি, হোমনা, চৌদ্দগ্রাম, লাকসামের নির্বাচন গুলোতে আ’লীগ হেসে খেলেই জয়লাভ করেছে। তবে দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ইঙ্গিত দিচ্ছে।

নৌকা প্রতিকের প্রার্থী নিজ ঘরেই বার বার প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছেন। নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর প্রচারণা থেকে সব কিছুর উপর নির্ভর করতে হচ্ছে দেবিদ্বারের বাইরের এলাকার আ’লীগের নেতাকর্মীর উপর। ঢাকা এবং সদরের নেতাকর্মীরাই মূলত নৌকার সমর্থনের বড় অংশ। বিগত সময়গুলোতে নৌকা প্রতিক পেলেই প্রার্থীরা নির্ভার হয়ে যেতে দেখা গেছে। কিন্তু দেবিদ্বার বিপরীত পথে হাটছে। দেবিদ্বারে মূলত আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আর বিএনপিই প্রভাব বিস্তার করছে। কেন হচ্ছে এমন তা নিয়ে একটু বিশ্লেষণ করা যাক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন স্থানীয় সূত্র জানান, এ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের মনোনীত প্রার্থী ঢাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ । অনেকেই বলছেন আবুল কালাম আজাদ মূলত কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের পচ্ছন্দেই নৌকা মনোনীত প্রার্থী হয়েছেন । স্থানীয় সাংসদ রাজী ফখরুল মুন্সি তা মেনে নিতে পারেননি বলে জানা গেছে । দেবিদ্বারে আ’লীগের মধ্যে দু’গ্রুপ রয়েছে বলে জানা যায়। একটি স্থানীয় এমপির, আরেকটি কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের একটি অংশ। আজাদ দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আবদুল হক খোকন নির্বাচন করার ঘোষণা দেন। বিএনপিতে দলীয় মনোনয়ন পান এমপি রাজী ফখরুলের চাচা এএফ এম তারেক মুন্সী । বিভিন্ন নির্বাচনে স্ব্তন্ত্র প্রার্থীকে নির্বাচনের আগেই দলীয় সর্বোচ্চ ফোরাম থেকে ম্যানেজ করে নিস্ত্রিয় করে দেয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র নিজেই প্রত্যাহার করে নেন। কিন্তু দেবিদ্বারে তা হয় নি। স্বতন্ত্র প্রার্থী বেশ সক্রিয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীর সাথে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ বেশ সক্রিয় নির্বাচনের মাঠে। অপর দিকে নৌকা প্রতিকের পক্ষে বহিরাগতরাই সম্বল। কুমিল্লা সদর ও মহানগরের যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ , আ’লীগের নেতাকর্মীরাই নৌকার পক্ষে কাজ করছেন। ঢাকার কেন্দ্রীয় নেতারাও নির্বাচনী প্রচারণায় কাজ করছেন। অনেক সমঝোতার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বিভিন্ন সূত্রমতে, সমঝোতার চেষ্টা করা হলেও স্থানীয় নেতাকর্মীদের একটি বৃহৎ অংশের সমর্থন পাচ্ছে না নৌকার প্রার্থী । এমপি রাজী ফখরুল নৌকার পক্ষে আছেন একথা শোনা গেলেও এমপির লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষেই কাজ করছেন।

নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে গিয়ে সদরের নেতাকর্মীরা মারধরের শিকার হয়েছেন। প্রার্থী নিজেও অবরুদ্ধ হয়েছেন। বহিরাগত আর জামায়াত শিবির এবং বিএনপির অপবাদ দিয়ে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে যাওয়া বহিরাগতদের মারধর করা হয়েছে বেশ কয়েকবার।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে প্রচারণা শেষে যাওয়ার সময় আ’লীগ দলীয় প্রার্থী আবুল কালাম আজাদের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার পর কুমিল্লার উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাষ্টার, নৌকার প্রতিকের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদসহ বেশ কিছু নেতাকর্মী মা মনি হাসপাতাল সংলগ্ন গোলাম ফারুকী মিলনায়তনে কয়েক ঘন্টা ধরে অবরুদ্ধ অবস্থায় ছিলেন। এ সময় গাড়ি ভাংচুর ও নেতাকর্মীদের উপর হামলা হয়।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত ৭ টায় দেবিদ্বার আর.পি. উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আ’লীগের ২ গ্রুপের মধ্যকার সংঘর্ষে ২ জন গুলিবিদ্ধসহ ৫ জন আহত হয়েছেন । গুলিবিদ্ধরা হলেন দেবিদ্বার পুরাতন বাজার কাজী বাড়ির ছালাম কাজীর পুত্র ফয়েজ মালি (২৫), আব্দুল খালেক এর পুত্র শাহাবুদ্দিন (২০)। আহতরা হলেন কুমিল্লা সদর উপজেলার দুলিয়া পাড়ার মোঃ ইসমাইল হোসেন এর ছেলে মোঃ মোজাম্মেল (২৫), আনোয়ার হোসেন এর ছেলে মোঃ পিয়াস এবং মোঃ হোসেন এর ছেলে সাইফুল ইসলাম (১৮)। আহতরা সবাই কুমিল্লা সদরের আ’লীগের নেতাকর্মী। তারা নৌকা প্রতিকের পক্ষে প্রচারণায় গিয়েছিলেন।

এ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী তারেক মুন্সি হলেন এমপি রাজী ফখরুলের চাচা। বিএনপি এখন বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছে। নৌকা আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে বার বার সংঘর্ষ হচ্ছে ,ফলে লাভবান হচ্ছে বিএনপি। নির্বাচনের দিন যদি নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষ অব্যাহত থাকে ‍বিএনপিই চমক দেখাতে পারে। এছাড়া বিএনপির নেতাকর্মীর নামে কোন মামলাও হয়নি নির্বাচনী প্রচারণার সময়। ফলে সাংগাঠনিকভাবে দুর্বল বিএনপির নেতাকর্মীরাও বেশ সক্রিয় এ নির্বাচনে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, নৌকার প্রার্থী আ;লীগের অর্ন্তকোন্দলের জন্য স্থানীয় মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কাছে টানতে পারেন নি। বহিরাগত আসনের নেতাকর্মীদের উপরই নির্ভর করছেন তিনি। ফলে স্থানীয়দের সাথে সর্ম্পকটা ভাল হয়ে উঠেনি। নির্বাচনের বেশ কয়েকদিন আগেই থেকেই বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিশেষ করে সদরের আ’লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা দেবিদ্বারে পৌছেছেন নৌকাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য। তবে তা কতটা কার্যকর হবে, তা সময়ই বলবে।

নৌকা প্রতিকের সর্মথিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবলীগ নেতা জানান, দলীয় কোন্দল নির্বাচনে প্রভাব ফেলছে। এখন পর্যন্ত স্বতন্ত্র প্রার্থীকেই ম্যানেজ করা যায়নি। ফলে বিএনপি সুযোগ নিচ্ছে। তবে আমরা আশা করি নির্বাচনে নৌকাই বিজয়ী হবে।

আ’লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র )প্রার্থী সমর্থিত এক ছাত্রলীগ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ব্যবসায়ি আর রাজনীতিবিদ এক নয়। টাকা দিয়ে সব সময় সব কিছু হয় না। রাজনীতি করলেই তো মাঠ নিয়ন্ত্রণে থাকতো। বাইরের লোক ভাড়া করে এনে পাশ করা যায় না। তাই আমাদের প্রার্থীই বিজয়ী হবে।

বিএনপি প্রার্থীর সমর্থিত এক ছাত্রনেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এখন পর্যন্ত সব ঠিক আছে । মানুষ ভোট দিতে পারলে বিএনপির বিজয় কেউ আটকাতে পারবে না।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাষ্টার জানান, নৌকার পক্ষে জনসমর্থন রয়েছে। আমরা বিজয়ী হবো ইনশাল্লাহ।

এদিকে নির্বাচনটি সুষ্ঠু ও অবাধ করার জন্য জেলা প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ প্রশাসন বেশ তৎপর।
এদিকে দেবিদ্বারে প্রতিদিনই সংঘর্ষ হচ্ছে। তাই এ নির্বাচনের দিন সংঘর্ষ আরো বৃদ্ধি পেতে পারে বলে স্থানীয়রা আশংকা করছেন।

উল্লেখ্য যে, ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়ন নিয়ে দেবিদ্বার উপজেলা গঠিত। দেবিদ্বার উপজেলায় এবারের মোট ভোটার ৩ লক্ষ ৭৫ হাজার ৫০২ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ৭১ হাজার ৮২০ জন এবং নারী ভোটার ১ লক্ষ ৬৫ হাজার ৬৮২ জন। ভোটাররা মোট ১১৪ টি ভোট কেন্দ্র স্থায়ী ও অস্থায়ীসহ ৭৭০ টি ভোট কক্ষে তাদের ভোট প্রয়োগ করবেন। আ.লীগ, বিএনপি , জাতীয় পার্টি এবং স্বতন্ত্র নিয়ে মোট ৪ জন প্রাথী এবারের উপ-নির্বাচনে লড়াই করছেন।

নির্বাচনে বড় দু’দল আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আবুল কালাম আজাদ, বিএনপি দর্লীয় মনোনীত প্রার্থী এএফ এম তারেক মুন্সী, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো, আব্দুল আউয়াল সরকার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল হক খোকন।

নৌকার ভরাডুবি ঘোড়ার দৌড়ে পিছিয়ে সবাই!

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগরঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন ১২নং রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে জয়ের জন্য স্থানীয়দের জরিপে শুরুতে এগিয়ে ছিলো আ’লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে মোঃ ইকবাল হোসেন সরকার।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকরের নির্বাচনী গণসংযোগে হামলা, গুলিবর্ষণ ও ভাংচুরের ঘটনা পর থেকে স্থানীয়দের মাঝে এক ধরনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

ফলে জয়ের জন্য নৌকার নিশ্চিত ভরাডুবি হবে দাবি করে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকর বলেন, নির্বাচনে জয়ের লক্ষে তার নিজ প্রতীক ঘোড়ার দৌড়ে এখন পিছিয়ে সকল প্রার্থীরা।

প্রতীক পাওয়ার শুরু থেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকর প্রচার প্রচারণায় কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও তার উপবে হামলার ঘটনার পরথেকে প্রতিদিন জোরালো ভাবে গনসংযোগ করছেন তিনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রবিবার সারাদিন ইউনিয়নের ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনগনের কাছে ঘোড়া মার্কায় ভোট চান স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকরসহ কয়েক’শ মুরব্বি ও স্থানীয় রাজনৈতিকবীদরা। অপরদিকে তেমন কোন প্রচারনা চোখে পরেনি নৌকাসহ অন্যান্য প্রার্থীদের।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালে রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ছফু মিয়া সরকার নির্বাচিত হন। বার্ধক্যজনিত কারণে ২০২০ সালের ২ সেপ্টেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান ছফু মিয়া সরকার মৃত্যুবরণ করেন। এ কারণে গত ৩ সেপ্টম্বর চেয়ারম্যান পদটি শুন্য ঘোষণা করা হয়। আগামী ১০ ডিসেম্বর ওই ইউনিয়নে ভোট গ্রহণের কথা রয়েছে।

ওই ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৫ হাজার ৩৪ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৭ হাজার ৬৪৭ জন এবং নারী ভোটার ৭ হাজার ৩৮৭ জন।