Tag Archives: এইচএসসি‘র ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায় হোমনায় রেহানা মজিদ মহিলা কলেজে

এইচএসসি‘র ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায় হোমনায় রেহানা মজিদ মহিলা কলেজে

 

মোঃ,আতিক, হোমনা ঃ
কুমিল্লার হোমনায় সদ্য এমপিও হওয়া হোমনা রেহানা মজিদ মহিলা কলেজে ২০২০ সালে এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরনে অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষা বোর্ডের নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে একাধিক বিষয়ে ফেল করা পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরনের সুযোগ দেয়া হয়েছে । এতে তাদের নিকট থেকে প্রতি বিষয়ের জন্য অতিরিক্ত ১ হাজার টাকা করে আদায় করছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।এতে অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা লক্ষ্য করা গেছে।

কুমিল্লা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, এইচ এসসির ফরম পূরণে বিজ্ঞান বিভাগে বোর্ড ফি ১৬৯৫ টাকা, কেন্দ্র ও ব্যবহারিক ফি ৮০৫ টাকা মোট ২৫০০ টাকা। ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে বোর্ড ফি ১৪৯৫ টাকা, কেন্দ্র ও ব্যবহারিক ফি ৪৪৫ টাকা মোট ১৯৪০ টাকা । মানবিক বিভাগে বোর্ড ফি ১৪৯৫ টাকা, কেন্দ্র ও ব্যবহারিক ফি ৪৪৫ টাকা মোট ১৯৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে পরীক্ষায় সব বিষয়ে পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হলে কেবল মাত্র চূড়ান্ত পরীক্ষার জন্য ফরম পূরনের সুযোগ দিতে নিদের্শনা থাকলেও এ কলেজের বেলা তা মানা হচ্ছে না ।
সরেজমিনে জানা গেছে, হোমনা রেহানা মজিদ মহিলা কলেজের ২০২০ সালের এইচ.এসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৩৫ জন সব বিষয়ে উপরে পাস করেছে মাত্র ৯০ জন। তবে ২ বিষয়ে ফেল করা সহ ১৯০ জনকে ফরম পূরনের সুযোগ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ । পরে অতিরিক্ত টাকার বিনিময়ে ৩ থেকে ৪ বিষয়ে ফেল করা শিক্ষার্থীকে ফরম পূরনের সুযোগ দেয়া হয়েছে। এতে কলেজের বেতন ছাড়া সকল বিষয়ে পাশ করেছে তাদের প্রত্যেকের নিকট থেকে ৪ হাজার ৫০০ টাকা এর মধ্যে ১ হাজার টাকা সেশান ফি,আর ৫০০ টাকা বিবিধ নেয়া হয়েছে । কিন্ত যারা যত বিষয়ে ফেল করেছে তাদের নিকট থেকে ৪ হাজার ৫০০ টাকার সাথে অতিরিক্ত ১ হাজার টাকা করে নেয়া হয়েছে ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন পরীক্ষার্থীরা জানান, যারা টেষ্ট পরীক্ষায় সব বিষয়ে পাশ করেছে তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে বেতন ছাড়াই ৪ হাজার ৫০০ টাকা থেকে পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা ফি নেওয়া হয়েছে। আবার যারা যত বিষয়ে ফেল করেছে তাদের নিকট থেকে অতিরিক্ত প্রতি বিষয়ের জন্য ১ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে ।

হোমনা রেহানা মজিদ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মো. মজিবুর রহমান জানান, ২০২০ সালের এইচ এসসি‘র ফরম পূরনে বোর্ডের নিদের্শ মত ফরম পূরণ করেছি । পরবর্তীতে অভিভাবকদের চাপে কয়েক বিষয়ে ফেল করা শিক্ষার্থীদের ফরম পূরনের সুযোগ দিতে হয়েছে । এতে কলেজের স্বার্থে প্রতি বিষয়ে ১ হাজার টাকা জামানত রাখা হয়েছে । যারা পাস করবে তারা টাকা ফেরত পাবে । তাদের জন্য আলাদা কোচিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে ।

কলেজের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান রেহানা বেগম বলেন, আসলে বোর্ডের সব নিয়ম মানা যায় না । অভিভাবকদের চাপে পডে অনেককে ফরম পূরনের সুযোগ দিতে হয়েছে । তবে শিক্ষার্থীদেরকে চাপে রাখার জন্য জামানত রাখা হয়েছে । তাদের ভাল ফলা ফলের জন্য বিশেষ কোচিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) তাপ্তি চাকমা বলেন, বোর্ড ‘র নির্ধারিত ফি ছাড়া অতিরিক্ত ফি নেয়ার কোন সুযোগ নেই । আমি বোর্ডে চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলবো । এমনটি হলে আইন গত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ।