Tag Archives: একটি অদ্ভুত গল্প

একটি অদ্ভুত গল্প

তুহিন মাজহারঃ
কি অদ্ভুত একটি শহর। শহরের মানুষগুলোও কেমন যেন একটু অদ্ভুত প্রকৃতির। এ শহর একটি জেলা হিসেবেও পরিচিত। জেলার অধীনস্থ উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন, গ্রাম, পাড়া, মহল্লা- এগুলোও ভীষণ রকমের অদ্ভুত প্রকৃতির। কিন্তু কেন অদ্ভুত! কি একটা ঘ্রাণ যেন পুরো শহরটাকে ঘিরে রেখেছে। নিঃশ্বাস নিলেই কেমন যেন একটা অদ্ভুত ভালোলাগা কাজ করে। কেমন যেন হাহাকার , ভালবাসা অনুভূত হয়।

মূলত নতুন পুরাতন বইয়ের গন্ধটাই পুরো শহরকে ম ম করে রেখেছে। পুরো জেলাজুড়ে এর ঘ্রাণ বাতাসের সাথে ছড়িয়ে পড়ছে। পৌঁছে যাচ্ছে প্রতিটি ঘরে, প্রতিটি মানুষের হৃদয়কোণে।
এখানকার প্রতিটি মানুষের হাতে বই। যেখানেই যাচ্ছে সেখানেই বই। অফিসে, স্কুল-কলেজ-ভার্সিটিতে, রেস্তোরায়, টং দোকানে, পার্কে, ফুটপাতে- একদম সবখানেই মানুষ বই নিয়ে কথা বলছে। বইয়ের মাঝে ডুবে যাচ্ছে। কাজের ফাঁকে, একটু অবসর পেলেই ঢুঁ মেরে আসছে বইয়ের ভিতর।

একে অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হবে। পারস্পরিক বিশ্বাস সুদৃঢ় হবে। বৈষম্য দূর কমে যাবে। ভালবাসা যেন এখানকার ধুলিমাটির সাথে মিশে একাকার।

পথশিশু বলতে এখানে যেন কেউ নেই। সবাই-ই স্কুলে যাচ্ছে। নতুন নতুন স্কুলের জামা পরে। ভিক্ষুক শব্দটা এখানে কেমন যেন বেমানান। একসময় ছিলো। এখন সবাই কিছু না কিছু করছে। চিকিৎসার অভাবে এখন আর কেউ কষ্ট পাচ্ছেনা। কমবেশি সবাই ডাক্তারী পরামর্শ নিচ্ছে।
নিজের খাবার থেকে, পোশাক থেকে, অর্থ থেকে, সাধ্য থেকে সর্বোচ্চটুকু করে যাচ্ছে সবাই। অর্থের দিক থেকে ধনী-গরীব থাকলেও মনের দিক থেকে এরা যেন এক ও অভিন্ন। এরা রাজনৈতিক আলোচনা করছে অথচ কোনো কথা কাটাকাটি হচ্ছেনা, হানাহানিতে জড়াচ্ছেনা।

এখানে স্রষ্টা-ধর্ম -জীবনবিধান নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, সে আলোচনায় যোগ দিচ্ছে মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান, আস্তিক, নাস্তিকসহ আরো কত বিচিত্র বিশ্বাসের মানুষ। অথচ কি আশ্চর্য, সে আলোচনায় কেউ কাউকে কটাক্ষ করছে না, গালমন্দ করছে না, চুপচাপ একে অন্যের কথা শুনছে।একে অন্যের প্রতি কি দারুণ শ্রদ্ধাশীলতা।

এখানকার রাস্তাঘাট, পার্ক, ফুটপাতগুলো দারুণ পরিচ্ছন্ন। কেউ যেখানে সেখানে নোংরা করছেনা। সড়ক দূর্ঘটনাও এখানে আর তেমন একটা হয়না। পথচারী ফুটওভারব্রিজ, জেব্রাক্রসিং দিয়ে রাস্তা পারাপার করছে। যানবাহনগুলো ট্রাফিক আইন মেনে চলছে। সতর্ক দৃষ্টিতে গাড়ি চালাচ্ছে।
কি অদ্ভুত, তাই না…?

এ শহরের, এ জেলার- প্রতিটি শ্রেণিপেশার মানুষই এমন উজ্জ্বল আলোতে উদ্ভাসিত হবে। বইয়ের আলোতে স্নান করবে সবাই। সিক্ত করবে হৃদয়কে। মনটাকে করে তুলবে উদার আকাশের মতো।
এমন একটি অদ্ভুত শহর হবে আমাদের প্রাণের কুমিল্লা, এমন অদ্ভুত প্রকৃতির মানুষ হবে এখানকার মানুষগুলো- এসব অগোছলো কিন্তু বিশাল স্বপ্ন নিয়েই ‘কুমিল্লার বইপোকা’ গ্রুপটির পথচলা। যদিও এটি আঞ্চলিক পর্যায়ের একটি গ্রুপ, তবে এর বিশালতা ছড়িয়ে পড়বে সবুজের প্রতিটি অঙ্গনে। ইনশাআল্লাহ্!

এ যাত্রায় আপনিও সাদরে আমন্ত্রিত। চলুন এক ও অভিন্ন পথের যাত্রী হই। বইমুখী করে তুলি সমাজটাকে। বই নিয়ে কথা বলি। নিজে বইপোকা হই। অন্যকে বইপোকা বানিয়ে তুলি। পাশে থাকুন। পাশে রাখুন। বই নিয়ে কথা বলুন। বই নিয়ে মুক্ত আলোচনা করুন- ‘কুমিল্লার বইপোকা’ গ্রুপটিতে।
দুআ ০ ভালবাসা ০ শুভকামনা ।

কুমিল্লার বইপোকা পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানাই লেখক ইমরান মাহফুজ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মুহাম্মদ জাহিদ হাসান, সাংবাদিক ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু, প্রবাসি সোহেল নূর,লেখক সাঈদ আজাদসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে। জান্নাত চুমকি আপু এবং এবং বইপোকাদের আড্ডাখানা গ্রুপকে। এ আয়োজনের মূল অনুপ্রেরণা প্রাণের এই গ্রুপটিই ।