Tag Archives: কমিটি নেই

কমিটি নেই, তারপরও সারওয়ারের নেতৃত্বে সাংগঠনিক কর্মকান্ডে কুমিল্লা উত্তর যুবলীগ সক্রিয়

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার ১৩ মাস পার হলেও নতুন কমিটি এখনো ঘোষিত হয়নি। বার বার বিলম্বিত হচ্ছে কমিটি ঘোষণায় । ফলে হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা। সামনে জাতীয় নির্বাচন। এর আগে কমিটি ঘোষণায় বিলম্ব হওয়ায় সাংগঠনিক কার্যক্রমেও স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। কমিটি ঘোষণায় কেন এত বিলম্ব হচ্ছে, তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে চারদিকে। অনেকের মতে, আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়ক পদ নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় কমিটি ঘোষণা করতে সময় নিচ্ছে কেন্দ্রীয় কমিটি।কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের কমিটি কি বির্তক – সমালোচনা এড়াতে পারবে, নাকি ত্যাগি ও সক্রিয় নেতাকর্মীদের বাদ দিয়েই ঘোষিত হবে, তা নিয়ে জেলাজুড়ে নানা আলোচনা চলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন সূত্রমতে, কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের কমিটিতে ত্যাগি ও মাঠের পরিশ্রমি নেতাকর্মীদের বাদ দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে । তাদেরকে বাদ দেওয়ার জন্য নানা দিক দিয়ে মিথ্যে তথ্য সরবরাহ করে তদবির অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া মাদক ব্যবসায়ি, নিস্ক্রিয় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, ব্যবসায়ি ও প্রাইভেট চাকুরীজীবিদের জন্য তদবির করছে উত্তরের বেশ কয়েকজন রাজনীতিবিদ ও জনপ্রতিনিধি। এদিকে পদ হারানোর ভয়ে শংকিত মাঠ পর্যায়ের নিবেদিত নেতাকর্মীরা।

বিগত বছরের ২ অক্টোবর কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। বিলুপ্ত ঘোষণার পর নতুন কমিটির জন্য নেতাকর্মীদের কাছে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়। বিভিন্ন সূত্রমতে, যুবলীগের নতুন কমিটিতে স্থান পেতে প্রায় দেড় শতাধিক নেতাকর্মী কেন্দ্রে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে সভাপতি কিংবা আহ্বায়ক পদেই প্রার্থী রয়েছেন ৩৫ জন। কমিটি বিলুপ্তির প্রায় ১ বছর ১ মাস অতিক্রম হয়েছে , কিন্তু নানা কারনে এখনো নতুন কমিটি ঘোষিত হয়নি।

রাজনৈতিক এলাকা হিসেবে কুমিল্লা উত্তর জেলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ এলাকা থেকে বহু মন্ত্রী দেশ শাসন করেছেন। কুমিল্লার দেবিদ্বার, চান্দিনা, মুরাদনগর, দাউদকান্দি, হোমনা , মেঘনা ও তিতাসসহ ৭ উপজেলা ও বাঙ্গরা নামক এক থানা নিয়ে কুমিল্লা উত্তর রাজনৈতিক জেলা বিবেচিত হয়ে আসছে। বিগত বছরের ২ অক্টোবর সাংগঠনিক কার্যক্রমে স্থবিরতা ও দলীয় শৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। এ শাখার আওতাধীন উপজেলা শাখাগুলোও আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলছে বছরের পর বছর ধরে। নতুন কমিটি গঠনে সক্রিয়তা কম দেখা গেলেও করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে ছিল উত্তর জেলা যুবলীগ।

যুবলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক কিংবা আহ্বায়ক-যুগ্ম আহ্বায়ক পদে স্থান পেতে জোর লবিং করছে আগ্রহী প্রার্থীরা। সভাপতি পদে বেশ আলোচনায় রয়েছেন যুবলীগের বিলুপ্ত কমিটির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ সারওয়ার হোসেন বাবু । এছাড়া এই পদে দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা প্রকৌশলী গাজী রাসেল এর নাম আলোচনায় রয়েছে। তবে এই পদে সারওয়ার হোসেন বাবুর নামই জোরেসোরে আলোচনায় রয়েছে। কারণ সারওয়ার বাবু বিত ১৫ বছরে জেলাজুড়ে নানা ইতিবাচক কর্মকান্ডে সক্রিয় ছিলেন। বিশেষ করে করোনা কালে তার সক্রিয় কর্মকান্ড ছিল প্রশংসার দাবিদার। এই পদে আরেক প্রার্থী আনোয়ার ।এক সময় ছাত্রলীগ করলেও গুরুত্বপূর্ন পদ ছিল না। তবে সে দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগের দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়া প্রকৌশলী গাজী রাসেলের বাড়ি দেবিদ্বার। তিনি ঢাকায় ঠিকাদারি কাজের সাথে জড়িত। এলাকায় খুবই কম দেখা যায়। সেই প্রেক্ষাপটে সারওয়ার হোসেন বাবুর সাথে এই পদে লড়াইয়ে তেমন কেউ প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে পারবে না বলে আশাবাদ তৃণমূল নেতৃবৃন্দের।

জানা যায়, সারওয়ার বাবু যাতে এ পদ না পেতে পারেন সেজন্য তিতাস, দেবিদ্বার ও চান্দিনার তিনটি গ্রুপ বিভিন্ন অপবাদ দিয়ে কেন্দ্রে জোর তদবির করছেন। কিন্তু ২০০৯ সাল থেকে অদ্যাবধি সারওয়ার হোসেন বাবু কুমিল্লা উত্তর জেলার রাজনীতির মাঠে সক্রিয় এবং দলের জন্য নিবেদিত কর্মী বলে স্থানীয় সূত্র ও বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন । ২০১৫ সালে তিনি কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক পদে দায়িত্ব পান। দায়িত্ব পালনকালে সাংগাঠনিক কার্যক্রমে তিনি বেশ সক্রিয় ছিলেন। বিশেষ করে করোনা মহামারিতে হ্যালো যুবলীগ গঠন করে প্রায় ১০ হাজার অসহায় ও কর্মহীন মানুষের ঘরে খাবার পৌছে দিয়েছেন। এছাড়া করোনা সুরক্ষাসামগ্রী নিয়মিত সরবরাহ করেছেন। দিয়েছেন অক্সিজেন সেবাও। সব মিলিয়ে করোনা সংকটময় সময়ে মানুষের পাশেই ছিলেন এই যুবলীগ নেতা। এছাড়া উত্তর জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর মাঝে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী সম্বলিত হাজার হাজার বই বিতরণ করেছেন সারওয়ার হোসেন বাবু। সিলেটে সম্প্রতি বণ্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ২ ট্রাক খাদ্য নিয়ে সেখানে বিতরণ করেছেন সারওয়ার হোসেন বাবু। তাছাড়া কেন্দ্রীয় সকল সাংগঠনিক কর্মকান্ডে সারওয়ার হোসেন বাবুর সক্রিয়তা উল্লেখ করার মত। স্থানীয় কয়েকজন জনপ্রতিনিধির রোষানলে না পড়লে সারওয়ার বাবুই যুবলীগের দায়িত্ব পাবেন এ বিষয়ে নিশ্চিত তৃণমূল রাজনীতিবিদরা।

সারওয়ার হোসেন বাবু জানান, আমার অতীত কার্যক্রম এবং দলের প্রতি আস্থা বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ যদি চায় তাহলে আমি এ পদ নিতে ইচ্ছে পোষণ করছি । যদি আমি সভাপতি কিংবা আহ্বায়ক পদে দায়িত্ব পাই তাহলে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি, স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুযায়ী যুবলীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে পরিচালনা করবো।

এছাড়া বিভিন্ন পদে আলোচনায় রয়েছেন দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক শামীম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য আবুল কালাম আজাদ, এড. মো: এনামুল হাছান খান (রিপন),কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র্রলীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক, হোমনা কলেজের সাবেক ভিপি লিটন, বাঙ্গরা থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ নজরুল, দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের ভাই মামুনুর রশীদ প্রমুখ।

যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম শামীম জানান, আমি দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছি। বর্তমানে দলের বিভিন্ন সাংগঠনিক কর্মকান্ডে সক্রিয় রয়েছি। আশা করি দলীয় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমার অতীত ও বর্তমান কর্মকান্ড বিবেচনা করে যুবলীগে আমাকে স্থান দিবে।

কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু কাউছার অনিক বলেন, সাবেক ছাত্রনেতাদের সমন্বয়ে যুবলীগ গঠন করলে সাংগাঠনিক কার্যক্রম বেগবান হবে। আশা করি সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করা নেতাকর্মীরাই যুবলীগে স্থান পাবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিগত কমিটির এক যুবলীগ নেতা জানান, আমাদের কমিটি দায়িত্ব পালনকালে একটি ইউনিটের কমিটি ঘোষণা দিয়েছিল। এরপরই জেলা কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হয়। সামনের কমিটিতে যদি অতীতের ওই ভুলের মাশুল হিসেবে সারওয়ার হোসেন বাবুকে বাদ দেওয়া হয়, তাহলে বিষয়টি হবে খুবই হতাশার ও দু:খজনক। দলের স্বার্থে সারওয়ার হোসেন বাবুকে মূল্যায়ণ করা উচিত।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শোনা যাচ্ছে এক উপজেলার একই পরিবারের দুই সদস্য জনপ্রতিনিধি। এই পরিবার থেকে আরো একজনকে যুবলীগে ভাল পদে জায়গা দেওয়ার জন্য সর্বোচ্চ লবিং চলছে। একজন সাংসদও ওই প্রার্থীর জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন। এমন যদি হয় অবস্থা তাহলে রাজনীতি তো পরিবারতান্ত্রিক হয়ে যাবে। আমরা আশা করবো পরিবারতান্ত্রিক না হয়ে অর্থের কাছে যেন যুবলীগ না হারে।

উল্লেখ্য যে, ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মোঃ বাহাউদ্দিন বাহারকে আহ্বায়ক ও মোঃ সারওয়ার হোসেন বাবুকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে কুমিল্লা (উত্তর) জেলা যুবলীগের ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় যুবলীগ।