Tag Archives: কুমিল্লার দেবিদ্বারে স্বাস্থ্য বিধির আইন না মেনে চলছে গবাদিপশুর হাট

কুমিল্লার দেবিদ্বারে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ১৭ জনকে ৭৭০০ টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ১৭ জনকে ৭ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

মঙ্গলবার পৌর এলাকার নিউমার্কেটের বিপনী বিতানগুলোতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহিদা আক্তার।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, যে ব্যবসায়ী ও পথচারী স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদের জরিমানাসহ তাদের সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এক মাসের জন্য লক ডাউন করে দেওয়া হবে। ইতোমধ্যে এ অপরাধে কয়েকটি দোকানকে লক ডাউন করা হয়েছে । পথচারীদের যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদের জরিমানা করা হচ্ছে। উপজেলার সর্বত্রই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য উপজেলা প্রশাসন দৃষ্টি রাখছে। কোথাও এর কোন ব্যতয় ঘটলে আমরা সাথে সাথে ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনা করছি।

কুমিল্লার দেবিদ্বারে স্বাস্থ্য বিধির আইন না মেনে চলছে গবাদিপশুর হাট

মো. জামাল উদ্দিন দুলাল, দেবিদ্বার:
কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলায় প্রতিদিনে নতুন নতুন আক্রান্ত হচ্ছে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে। আর যুক্ত হচ্ছে মৃত্যুর সংখ্যা। এরই মধ্যে স্বাস্থ্যবিধির আইন না মেনেই দেবিদ্বার পৌর এলাকার পোনরা বাজারে গবাদিপশুর হাট। সপ্তাহে একদিনে বসে এই হাট। আর এতে গাদাগাদি করে হাটে চলচ্ছে বেচা বিক্রি। সেই সাথে বেশির ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতার মুখে নেই মাস্ক। সীমিত পরিসরে ও সামাজিক দূরত্ব সহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাট পরিচালনার কথা থাকলেও কিছু মানা হচ্ছেনা সেখানে।

ওই হাটে বুধবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে এমনি চিত্র দেখাযায় । এতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

ক্রেতা মো. মফিজ মিয়া জানান,হাটের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে করোনা কি তারা বুজেই না। আমি মাস্ক পড়ে থাকলেও হাটের বেশির ভাগ মানুষ মাক্স তো দূরের কথা কোন প্রকার স্বাস্থ্যবিধি মানছেনা।

হাটে গরু বিক্রি করতে আসা বিক্রেতা শামসু মিয়া বলেন, বেশ কিছু দিন ধরেই করোনার কারনে কোন আয় রোজগার নেই। আজ হাট খুলেছে তাই একটি গরু বিক্রি করতে আসেছি। মুখে মাক্স বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন,অনেকেই তো মাস্ক পড়েনি তাই আমিও পড়িনাই। তবে পকেটে রয়েছে মাক্স।

মো. সেলিম নামের বিক্রেতা বলেন, আমার দূরত্ব মেনেই আছি তবে ক্রেতারা যদি না বুঝে আমরা কি করবো। চেষ্টা করিছি যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যায়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাকিব হাসান জানান,পশুর হাটে অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই। বেশি জনসমাগম মানেই করোনার সংক্রামণের ঝুঁকি। আমরা ইতিমধ্যে হাটের ইজারাদের সাথে কথা বলেছি এই বিষয় নিয়ে। তারা এর পর থেকে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পশুর হাট চালাবে।