Tag Archives: কুমিল্লার ১১ সংসদীয় আসনে আসনে উভয় জোটেই প্রার্থীজট

কুমিল্লার ১১ সংসদীয় আসনে ৭৩ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ, ৪৮ জনের বাতিল

 

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনে যাচাই-বাছাই শেষে ৭৩ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ এবং ৪৮ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে।

রবিবার ও সোমবার দুইদিন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ১১ টি আসনের ১২১ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কুমিল্লা জেলা প্রশাসক খন্দকার মুশফিকুর রহমান জানান, কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি-তিতাস) সংসদীয় আসনে বাতিল করা হয়েছে ৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন, বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ৬ জনের। কুমিল্লা-২ (মেঘনা-হোমনা) আসনে বাতিল হয়েছে ৬ জনের, বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে ৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন। কুমিল্লা – ৩ (মুরাদনগর) আসনে বৈধপ্রার্থী সংখ্যা ৬, বাতিল করা হয়েছে ৮ প্রার্থীর মনোনয়ন। কুমিল্লা -৪ ( দেবিদ্বার)আসনে বৈধ ১৩ জন, বাতিল করা হয়েছে একজন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র। কুমিল্লা -৫ (বুড়িচং ও বি পাড়া) আসনে বৈধ ৬ জন, বাতিল ৫ জন। কুমিল্লা- ৬ (সদর) আসনে মনোনয়নের বৈধতা পেয়েছেন ৫ জন, বাতিল করা হয়েছে ১ জনকে। কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে মনোনয়ন পত্র বৈধতা পেয়েছে ৬ জন, বাতিল হয়েছে ৪ জনের। কুমিল্লা ৮ (বরুড়া) আসনে মনোনয়নপত্র বৈধতা পেয়েছে ১১ জন, বাতিল হয়েছে ৪ জনের মনোনয়ন পত্র। কুমিল্লা-৯ ( লাকসাম ও মনোহরগন্জ) আসনে ৬ জনের মনোনয়ন পত্র বৈধ হয়েছে, ৩ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। কুমিল্লা -১০ (নাঙ্গলকোট, লালমাই ও সদর দক্ষিণ) আসনে ৩ জন বৈধ, ৪ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে এবং কুমিল্লা – ১১ আসনে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ৫ জনকে, বাতিল করা হয়েছে ৬ জনকে।

কুমিল্লার ১১ সংসদীয় আসনে আসনে উভয় জোটেই প্রার্থীজট

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসনে উভয় জোটেই রয়েছে প্রার্থীজট। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলার ১১ আসনেই মহাজোট ও ঐক্যফ্রন্টে প্রার্থীজট রয়েছে। অধিকাংশ আসনে রয়েছে বিদ্রোহী প্রার্থী ও দলীয় কোন্দল।

এ নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরাও রয়েছেন দুটানায়। আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি- এ তিনটি দল ছাড়াও কোনো কোনো আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ছড়াছড়ি লক্ষ করা গেছে। তবে শেষ মুহূর্তে নাটকীয়ভাবে দলের বিদ্রোহীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করিয়ে নেয়ার চেষ্টা চলছে বলেও দলীয় সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

এ দিকে ঐক্যফ্রন্টের চেয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে দলীয় কোন্দল বেশি লক্ষ করা গেছে। নির্বাচনের আগে এসব কোন্দল নিরসনে কেন্দ্রীয় নেতারা ভূমিকা না নিলে প্রার্থীদের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

জানা যায়, কুমিল্লার ১১টি আসনে উভয় জোটেই প্রার্থীর ছড়াছড়ি লক্ষ করা গেছে। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত হলেও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে এখনও দুটানা রয়েছে। জেলার অধিকাংশ আসনে বিএনপি থেকে ৩-৪ জন করে দলীয় মনোনয়ন দেয়ায় মাঠ পর্যায়ে দেখা দিয়েছে নানা গুঞ্জন।

তবে বিএনপি কৌশলগত কারণে প্রতিটি আসনেই একাধিক প্রার্থীকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে বলে বিএনপি সূত্রে জানা গেছে। জেলার ১১টি আসন থেকে মোট ১৩৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এসব প্রার্থীর মধ্যে মূল আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীরা। এবারের নির্বাচনে কুমিল্লার ১০টি আসনে বিএনপি থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জেলার ৩টি আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

এদিকে বিএনপি জোটে প্রার্থীজট থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা নিরসন হয়ে যাবে বলে দলীয় সূত্রগুলো দাবি করেছে। কিন্তু জেলার অধিকাংশ আসনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে রয়েছে অভ্যন্তরীণ কোন্দল। ক্ষমতার দ্বন্দ্ব ও মনোনয়নবঞ্চিতরা দলীয় প্রার্থীদের বিরোধিতা করলে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কুমিল্লার ১১টি আসনে আওয়ামী লীগের ১০১ নেতা মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। মনোনয়নবঞ্চিত অধিকাংশ প্রার্থীরাই দলীয় প্রার্থীদের বিরোধিতা করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ম. রুহুল আমীন বলেন, নির্বাচনের আগেই কেন্দ্রীয় নেতারা উদ্যোগ নিয়ে সব আসনের কোন্দল নিরসন ও বিদ্রোহ দমন করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে দিতে হবে। অন্যথায় দলীয় কোন্দল প্রার্থীদের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।a