Tag Archives: কুমিল্লায় বিএনপি প্রার্থীদের ৯৮ মামলা

কুমিল্লা-৫ আসনের বিএনপি প্রার্থী ইউনুসের ওপর হামলা, আহত ১১

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-বি পাড়া) আসনের বিএনপি প্রার্থী মো. ইউনুসের নির্বাচনী প্রচারনার সময় অতর্কিত হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা।এ সময় বিএনপির প্রার্থী ইউনুসসহ ১১ জন আহত হয়।

বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে বুড়িচং উপজেলা মোকাম ইউনিয়নের নিমসার বাজারের কাছে তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

বিএনপির প্রার্থী অধ্যক্ষ মোঃ ইউনুসের বড় ছেলে ড. শাহীন জানান,  মোকাম ইনিয়নের নিমসার বাজারের তিন’শ গজ দক্ষিণে যোহর নামাজ আদায় শেষে গাড়িতে ওঠার পর পর গাড়িতে দুর্বৃত্তরা অতর্কিত হামলা চালায়। এতে আমার বাবা, ছোট ভাইসহ ১১ জন আহত হয়।

কুমিল্লায় বিএনপি প্রার্থী ইউনুসের বাড়িতে হামলা ।। গাড়ি ভাংচুর, গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-বি পাড়া) আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী চার বারের সাবেক সাংসদ অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইউনুসের কুমিল্লা নগরীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে একটি প্রাডো গাড়ি ভাংচুর, গুলিবর্ষণ ও ককটেল বিস্ফোরণ করেছে দুবৃর্ত্তরা।

বৃহস্পতিবার (২০ ডিসেম্বর) রাত ১০ টায় নগরীর তালপুকুর পাড়ের মোহনা নামক বাড়িতে এ হামলা চালানো হয়।

সাবেক সাংসদ অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইউনুস ও তাঁর সন্তান ড. নাজমুল হোসেন শাহীন জানান, রাত ৯ টায় বাড়িতে বসে দুই উপজেলার নেতাকর্মীদের সাথে নির্বাচনী আলোচনা করছিলাম। রাত ১০ টার দিকে প্রায় ২০/২৫ জন দুবৃর্ত্ত মুখোশ পড়ে আমার বাড়ির সামনে রাখা বি পাড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি জসিম উদ্দিনের গাড়িটির ভেঙ্গে চুরমাড় করে ফেলে। এ সময় তারা ১০/১২ রাউন্ড গুলিবর্ষণ এবং ককটেল বিস্ফোরণ করে । এ সময় আমাদের নির্বাচনী প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা  চিৎকার করে আমাকে নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর জন্য হুমকি দিয়ে যায়। তাদের হামলায় আমাদের ২/৩ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এ বিষয়ে আমরা কুমিল্লা পুলিশ সুপারকে মুঠোফোনে অবহিত করেছি।

মুরাদনগরে বিএনপি প্রার্থীর নথি গায়েব করে মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার মুরাদনগরে বিএনপি মনোনিত এক প্রার্থীর নথি গায়েব করে মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ ওঠেছে।ভুক্তভোগী ওই প্রার্থীর নাম কেএম মুজিবুল হক। তিনি কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী।

রোববার প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইকালে আয়কর সনদ না থাকার অভিযোগে ওই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর।

এ সময় বিএনপির ওই প্রার্থী কেএম মুজিবুল হক ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করে অভিযোগ করেন মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় আয়কর সনদসহ যাবতীয় সকল কাগজপত্র দাখিল করা হলেও পরিকল্পিতভাবে তা গায়েব করার মাধ্যমে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা গেছে, কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর সংসদীয় আসনে বিএনপি দলীয় প্রার্থী কেএম মুজিবুল হক গত ২৮ নভেম্বর জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের নিকট আয়কর সনদসহ সব প্রকার বৈধ কাগজপত্র সংযুক্ত করে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় ওই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা কাগজপত্র গায়েব করার আশঙ্কায় সব কাগজপত্রের স্থিরচিত্র এবং ভিডিও ফুটেজ ধারণ করে রাখে রাখেন।

এছাড়াও এ সময় মনোনয়নপত্র জমাদান গ্রহণের কপিও দেয়া হয়। সব কাগজপত্র সঠিকভাবে জমা দেয়া হলেও পরে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে আয়কর সংক্রান্ত কাগজপত্র গায়েব করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার যাচাই বাছাইকালে কেএম মুজিবুল হকের ফাইলে আয়কর সংক্রান্ত একটি কাগজ নেই এমন অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন।

এ সময় কেএম মুজিবুল হক অভিযোগ করেন, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের টেক্স ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট, সম্পদের বিবরণসহ সব কিছুই হলফনামায় দেয়া হয়েছে। কাগজপত্র সঠিকভাবে দাখিল ও গ্রহণসহ সব কপি আমাদের কাছে সংরক্ষন করা আছে। ষড়যন্ত্র করে আমার ফাইল থেকে আইটেন-বি নামক আয়করের একটি কাগজ গায়ের করে দেয়া হয়েছে। তিনি এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর জানান, যেসব প্রার্থীর মনোনয়নপত্রের সঙ্গে বিধি মোতাবেক তথ্য ও কাগজপত্রের সমস্যা আছে তাদেরই মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এতে ইচ্ছেকৃতভাবে কারও কাগজপত্র সরিয়ে ফেলার বিষয়টি সঠিক নয়। কোনো প্রার্থী ইচ্ছে করলে নির্বাচনে কমিশনে এ বিষয়ে আপিল করতে পারবেন।

কুমিল্লায় বিএনপি প্রার্থীদের ৯৮ মামলা

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার ১১টি আসনে ২৪ প্রার্থীর বিরুদ্ধে হত্যা, নাশকতা, সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ ১৩৪টি মামলা রয়েছে। শুধু মাত্র বিএনপির প্রার্থীদের বিরুদ্ধেই রয়েছে ৯৮টি মামলা।
সবচেয়ে বেশী মামলা কুমিল্লা-১১ আসনের সাবেক এমপি ও জামায়াত নেতা ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহের।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে দাখিল করা হলফনামার ২(খ) অংশে ফৌজদারি মামলার অভিযুক্ত কলামে প্রার্থীরা নিজেরাই এসব মামলার তথ্য উল্লেখ করেছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিস থেকে প্রাপ্ত প্রার্থীদের দেওয়া হলফনামায় অনুসন্ধান করে জানা যায়-

কুমিল্লা-১ আসনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ১২টি ও অপর প্রার্থী তার ছেলে খন্দকার মারুফ হোসেনের বিরুদ্ধে একটি মামলা আছে। তারা পিতা-পুত্র দুইজনই কুমিল্লা-২ আসনেও দলের মনোনয়ন পেয়ে প্রার্থী হয়েছেন।

কুমিল্লা-২ আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সারওয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা আছে।

কুমিল্লা-৩ আসনে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ১০ মামলা। বিএনপির প্রার্থী সাবেক এমপি কায়কোবাদের ছোট ভাই কেএম মজিবুল হকের বিরুদ্ধে একটি মামলা। অপর ভাই স্বতন্ত্র প্রার্থী কাজী জুন্নন বসরীর বিরুদ্ধে এক মামলা। প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) মো. কামাল উদ্দিন ভুঁঞার বিরুদ্ধে ৯ মামলা। বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির মো. হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে এক মামলা ও বিদ্রোহী প্রার্থী কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে এক মামলা আছে।

কুমিল্লা-৪ আসনে বিএনপির প্রার্থী ও কুমিল্লা উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মুন্সীর বিরুদ্ধে ১৭ মামলা। তার ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির কুমিল্লা উত্তর জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার রিজভিউল আহসান মুন্সীর বিরুদ্ধে আটটি মামলা। দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিএনপির প্রার্থী মো. রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা আছে।

কুমিল্লা-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি শওকত মাহমুদের বিরুদ্ধে তিন মামলা ও জাকের পার্টির নূরুল আলম ভুঁঞার বিরুদ্ধে একটি মামলা আছে।

কুমিল্লা-৬ আসনে আওয়ামী লীগের এমপি, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দলের প্রার্থী আ ক ম বাহাউদ্দিনের বিরুদ্ধে একটি মামলা। বিএনপির প্রার্থী কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমির উর রশিদ ইয়াছিনের বিরুদ্ধে চার মামলা ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও দলীয় প্রার্থী মনিরুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে হত্যাসহ চার মামলাটি আছে।

কুমিল্লা-৭ আসনে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির মহাসচিব ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ড.রেদোয়ান আহমেদের বিরুদ্ধে চারটি মামলা। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) প্রার্থী মো. আবু তাহেরের বিরুদ্ধে তিন মামলা। বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) শাহজাহান সিরাজের বিরুদ্ধে তিন মামলা আছে।

কুমিল্লা-৮ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়নফরম জমা দেয়া ও কেন্দ্রীয় যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি খোন্দকার মো. মোরতাজুল করিমের বিরুদ্ধে পাঁচটি মামলা আছে।

কুমিল্লা-১০ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়া মনিরুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে চারটি। নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মোবাশ্বের আলম ভুঁইয়ার বিরুদ্ধে আটটি ও বিএনপির প্রেস উহংয়ের মীর আবু জাফর শামসুদ্দীনের বিরুদ্ধে ১১টি মামলা আছে।

কুমিল্লা-১১ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন পাওয়া জামায়াতের সাবেক এমপি ও জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের সদস্য সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহেরের বিরুদ্ধে বর্তমানে হত্যা, নাশকতাসহ ২২টি মামলা রয়েছে। অতীতে তার বিরুদ্ধে আরো আটটি মামলা ছিল।