Tag Archives: কুমিল্লায় মহাসড়কের পাশে মৌসুমী ফলের ভ্রাম্যমাণ হাট

কুমিল্লায় মহাসড়কের পাশে আবর্জনার স্তুপ, দুর্ভোগে পথচারী-ব্যবসায়ীরা

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার বুড়িচংয়ের নিমসার বাজার দেশের অন্যতম বৃহৎ কাঁচাবাজার। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দুই পাশজুড়ে বিশাল এলাকাজুড়ে বাজারটির অবস্থান। ব্যস্ততম এই বাজারটিতে ময়লা আবর্জনা ফেলার নির্দিষ্ট স্থান না থাকায় প্রতিদিনই বাজারের তরকারির উচ্ছিষ্ট অংশ মহাসড়কের পাশে যত্রতত্র স্থানে ফেলা হচ্ছে। এগুলো পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। ফলে পথচারী,মহাসড়কে চলচলকারী সকল যাত্রীসহ বাজারে আসা ব্যবসায়ীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের অন্তর্গত নিমসার এলাকায় বিগত ১৯ শতকের ৮০ দশকের শুরুতে বাজারটি চালু হয়। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দুইপাশসহ রোডডিভাইডারের মাঝেও কেনাবেচা চলে।

প্রতিদিনই বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহী, যশোর, পাবনা,বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, সিলেট, চাঁদপুর, নোয়াখালীসহ কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলা থেকে পাইকারসহ কৃষকরা নানাজাতের তরকারি, শাক-সবজি, মৌসুমী ফল ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, পিক-আপসহ বিভিন্ন যানবাহনে এই বাজারে নিয়ে আসছে। বাজারটিতে মূলত রাত বাড়ার সাথে সাথে ব্যস্ততা বেড়ে দিনের আলো বাড়ার সাথে সাথে কর্মব্যস্ততা কমে আসে।

বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পণ্যসামগ্রী আড়তগুলোতে আনার পর আবার সেই মালগুলো অন্য পাইকাররা কিনে নিয়ে যাচ্ছে পরবর্তীতে অন্য কোনো জেলা বা স্থানীয় কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলায়। অভিযোগ রয়েছে মহাসড়কের উপর অসংখ্য ট্রাক, কাভার্ডভ্যান গাড়িতে রেখেই মালামাল বিক্রি করায় প্রতিদিন গভীর রাত থেকে সকাল ৮-৯টা পর্যন্ত নিমসার বাজারের ফোরলেনের উভয় অংশে থেমে থেমে যানজট সৃষ্টি হয়। এ সময় ব্যস্ততম, মহাসড়কে চলাচলরত দ্রুতগতির যানবাহন চালকদের দুর্ঘটনা এড়াতে গতি কমিয়ে বাজারটি পারাপার হতে দেখা যায়। এছাড়াও রোড ডিভাইডারে অনেক বিক্রেতা মালামাল বিক্রি করায় দুর্ঘটনার আশংকায় থাকে অনেক ক্রেতা বিক্রেতা।

তবে সবচেয়ে দুর্ভোগ বাজারের অবিক্রিত পঁচেগলে যাওয়া পণ্য ও তরকারির উচ্ছিষ্ট বাজারে নির্দিষ্ট কোন আবর্জনা ফেলার জায়গা না থাকায় বিক্রেতারা মহাসড়কের পাশেই ফেলে দিচ্ছে। আর এভাবেই মহাসড়কের পাশে জমছে আবর্জনার স্তুপ। এতে প্রতিদিনই নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। পাশাপাশি মহাসড়কের পাশ দিয়ে চলাচলরত পথচারী, ব্যবসায়ীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এদিকে মহাসড়কের পাশে উচ্ছিষ্ট ফেলায় মানুষ বাধ্য হয়ে সড়কের উপর দিয়ে পারাপার হওয়ায় প্রায়ই দুর্ঘটনা পড়ে হতাহত হচ্ছেন।

বিষয়টি জানতে চাইলে একাধিক ব্যবসায়ী জানান, এতদিন বাজারটি সরকার এককভাবে ইজারা দিলেও সম্প্রতি সরকারি নির্দিষ্ট বাজারের স্থানের বাইরেও ব্যক্তি মালিকানাধীন স্থানে পৃথক পৃথক বাজার পরিচালনা করছে। এতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছে বাজারের অবস্থান। আর এজন্য একাধিক স্থানে আবর্জনার স্তূপ জমছে। এছাড়াও তারা বলেন, বাজারে নির্দিষ্ট কোনো স্থানে ময়লা ফেলার স্থান নেই।

বিষয়টি জানতে চাইলে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক বলেন, বাজারের ইজারাদারকে চিঠি দিয়েছি। এছাড়াও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে মামলা দায়েরের সুপারিশ চেয়ে বার্তা পাঠিয়েছি।

কুমিল্লায় মহাসড়কের পাশে মৌসুমী ফলের ভ্রাম্যমাণ হাট

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে মৌসুমী ফলের পসরা সাজিয়ে বসেছেন ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতারা। কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে সন্ধ্যা অবধি মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠা এসব ‘ভ্রাম্যমাণ হাটে’ চলে বেচা-কেনা। বাঙ্গি, তরমুজের মতো মৌসুমী ফলের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ এ হাটে মেলে লাল টুকটুকে টমেটো, মিষ্টি কুমড়া ছাড়াও হরেক রকম সবজি। দূর-দূরান্তের বাস যাত্রীরা ছাড়াও প্রাইভেট পরিবহনে চলাচলরত অধিকাংশ যাত্রীই সখে অথবা কৌতুহলী হয়ে ওই স্থানে গাড়ি থামিয়ে কিনছেন তরতাজা এসব ফল ও সবজি।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ঢাকা থেকে কুমিল্লা আসতেই মহাসড়কের কুমিল্লা অংশের দাউদকান্দির দৌলতপুর, ইলিয়টগঞ্জসহ এর আশপাশের এলাকাজুড়ে বসেছে মৌসুমী ফলের ভ্রাম্যমাণ হাট। প্রায় অর্ধশত মৌসুমী ব্যবসায়ী মৌসুমী ফল ছাড়াও বিক্রি করছেন নানা জাতের সাক সবজি। তবে কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী সুস্বাদু বাঙ্গির চাহিদাই এ হাটে বেশি বলে জানালেন ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা।

মহাসড়কের যে পাশে তারা ফল-সবজির পসরা সাজিয়ে বসে থাকেন- তার পেছনে বিস্তৃত বিশাল ফসলী মাঠ। যে মাঠেই চাষ হচ্ছে বাঙ্গি, খিরা, শসা, টমেটো, মিষ্টি কুমড়াসহ হরেক রকমের ফল ও সবজি। যদিও ওই মাঠে নেই কোনো তরমুজের চাষাবাদ; তারপরও ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে পশ্চিম ও উত্তরবঙ্গ থেকে আমদানি করা তরমুজও সাজিয়ে রাখছেন ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভ্রাম্যমাণ এসব হাটে প্রতিদিন অন্তত দুই/তিন লাখ টাকার বিকিকিনি হয়। তবে ওই স্থান থেকে টাটকা বাঙ্গি, টমেটো, খিরা বা শসা পাওয়া গেলেও তরমুজে রয়েছে যথেষ্ট প্রতারণা। দূর-দূরান্তের মানুষ তরমুজ ও বাঙ্গি ফলানো জমির পাশ থেকে কিনে নেওয়ার স্বাদ গ্রহণ করলেও তরমুজের সেই স্বাদ পাওয়া যায় না। বাজার থেকে কেনা তরমুজ ও মহাসড়কের উপর জমির পাশ থেকে কেনা তরমুজ এর মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।

মহাসড়কের দৌলতপুর এলাকায় এমন ভ্রাম্যমাণ হাটের পাশে দাঁড়াতেই বিক্রেতারা ডাকাডাকি শুরু করেন। কেউ বলছেন- ‘ভাই, এই মাত্র পাইরা আনছি। এদিকে আসেন’। আবার কেউ বলছেন- ‘আমার নিজের জমির মাল, দাম কমাইয়া রাখমু।’ সকলের মুখে একই কথা ‘টাটকা’, ‘ক্ষেতের পাকা…’ ইত্যাদি-ইত্যাদি।

জানতে চাইলে ভ্রাম্যমাণ এ হাটের বিক্রেতা আবুল হাশেম বলেন, এখন মানুষ টাটকা ফল ও শাক-সবজি খোঁজে। যাত্রীরা যখন গাড়ি দিয়ে যাতায়াত করেন অনেকে আমাদেরকে দেখে গাড়ি থামান। ফসলী জমি থেকে সদ্য সংগ্রহ করা ফল ও সবজি দেখে আকৃষ্ট হন। তাই অনেকেই গাড়ি থামিয়ে কিনে নেন।

তবে তরমুজে ঘাপলার বিষয়টি জানা গেলো কিছুটা ঘনিষ্ঠতা বাড়ানোর পর। নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক বিক্রেতা বলেন, ‘বাঙ্গি-টমেটো আমাদের এখানকার জমির হলেও তরমুজ এখানকার না। আমরা বাজারের আড়ত থেকে তরমুজ এনে এখানে বিক্রি করি। এ এলাকায় আগে তরমুজের চাষাবাদ হতো, এখন আর তেমন হয় না।’

নিজের জমিতে চাষ করা টমেটো বিক্রি করতে এসেছেন অনীল চন্দ্র সরকার।

তিনি বলেন, ‘আমার টমেটো ক্ষেত আছে। বাজারে টমেটো ৫-৭ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে পারি। আর এখানে প্রতিটি ঝুলিতে থাকা ৪-৫ কেজি টমেটো বিক্রি করি ৪০-৬০ টাকা পর্যন্ত। টমেটোর পাশাপাশি অন্যের জমি থেকে বাঙ্গি এবং আড়ত থেকে তরমুজ কিনে আনি। প্রতিদিন প্রায় ৫-৭ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারি।’

ভ্রাম্যমাণ এ হাটের মৌসুমী বিক্রেতারা জানান, এ ব্যবসা সব সময় হয় না। প্রতি বছরের এক থেকে দেড় মাস ব্যবসা করার সুযোগ হয়। টমেটো ও বাঙ্গির মৌসুম শেষ হলে আমাদেরও বিক্রি বন্ধ হয়ে যাবে।