Tag Archives: কুমিল্লা জেলা

সীমান্ত ক্রস করে কাউকে আসতে দেব না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট:

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মিয়ানমারে যে যুদ্ধ চলছে তা কতদিন চলবে আমরা জানি না। আমাদের সীমান্ত ক্রস করে কাউকে আসতে দেব না। আমাদের বিজিবিকে আমরা সেই নির্দেশনা দিয়েছি।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে মিয়ানমার ইস্যুতে বিজিবি মহাপরিচালকের সঙ্গে বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সীমান্তে শক্তি বৃদ্ধি করেছি উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে বলে দিয়েছি এবং কোস্ট গার্ডকেও নির্দেশনা দিয়েছি যাতে কোনোভাবেই আমাদের সীমানায় কেউ অনুপ্রবেশ করতে না পারে। সে ব্যাপারে আমরা খুব সতর্ক রয়েছি।

তিনি বলেন, আমরা কোনো যুদ্ধে জড়াতে চাই না, যুদ্ধ চাইও না। এটা প্রধানমন্ত্রী সবসময় আমাদের নির্দেশনা দিয়ে রেখেছেন। তার মানে এই নয় যে আমাদের গায়ে এসে পড়বে আর আমরা ছেড়ে দেব। সেটার জন্য আমরা সবসময় তৈরি আছি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, মিয়ানমার বর্ডার পুলিশের ১৪জন আত্মরক্ষার্থে বাংলাদেশে ঢুকেছে। তাদের আটক রেখেছি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে তাদের ফেরত পাঠানোর চেষ্টা চলছে। শিগগিরই ফেরত যাবে।

রোহিঙ্গাদের আর প্রবেশ করতে দেওয়া হবে কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত একটিই, সীমান্তে এখন যুদ্ধ চলছে, এখানে এখন কারো আসা উচিত হবে না। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী যদি মনে করে, তাদের ওখানে যুদ্ধ হচ্ছে, তারা অন্য কোথাও যাবে। এই মুহূর্তে আর কাউকে আমরা ঢুকতে দেব না।

চেয়ারম্যান আজাদের ভাই মাসুদ যুবলীগ নেতা হত্যাকান্ডের ঘটনায় গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার দাউদকান্দির গৌরিপুরে যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন হত্যা মামলায় জড়িত মো. মাসুদ রানাকে (৩২)  গ্রেপ্তার করেছে কুমিল্লা ডিবি পুলিশ। হত্যাকান্ড ঘটনায় গ্রেফতার এড়াতে গোপনে দুবাই পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন মাসুদ। এ নিয়ে জামাল হত্যাকান্ডের ঘটনায় ১০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বুধবার ( ১০ মে) রাতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে ইমিগ্রেশন পুলিশের সহায়তায় কুমিল্লা ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেফতার হওয়া মাসুদ রানা  কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের ছোট ভাই।

বৃহস্পতিবার সকালে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজেস বড়ুয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,  জামাল হত্যাকাণ্ডে মাসুদের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি বিদেশে পালিয়ে যাচ্ছিলেন এমন তথ্যের ভিত্তিতে ইমিগ্রেশন পুলিশের সহায়তায় তাকে আটক করা হয়। আজ তাকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

এদিকে মঙ্গলবার রাতে যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত তিনটি বিদেশী পিস্তল ও গুলিসহ  দেবিদ্বারের বড়কামতা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম সৈকতকে গ্রেফতার করেছে কুমিল্লা ডিবি পুলিশ।  তার বিরুদ্ধে চান্দিনা থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার হওয়া মাজহারুল ইসলাম সৈকত দেবিদ্বার উপজেলার বরকামতা ইউনিয়নের নবিয়াবাদ গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। সেও দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ গ্রুপের অনুসারি বলে জানা গেছে।  উল্লেখ্য যে, চেয়ারম্যান আজাদ, মাসুদ ও অস্ত্রসহ গ্রেফতার হওয়া সৈকত একই গ্রামের বাসিন্দা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও বিভিন্ন অনুসন্ধানে দেখা যায়, চেয়ারম্যান আজাদের ভাই মাসুদের সাথে যুবলীগ নেতা জামাল হত্যকান্ডের অন্যতম মাস্টারমাইন্ড সোহেল সিকদারের ভাল সখ্যতা রয়েছে। এছাড়া অস্ত্রসহ গ্রেফতার হওয়া সৈকতের সাথে মাসুদ ও চেয়ারম্যানের আজাদের ছবি এখন ফেসবুকে ভাইরাল।

এদিকে হত্যাকান্ডে ব্যবহার করা অস্ত্র উদ্ধার হলেও অস্ত্রের যোগানদাতা কে তা এখনো বের হয়নি । কুমিল্লা পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান গতকাল প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেছিলেন-  অস্ত্রের যোগানদাতার বিষয়ে অনুসন্ধান চলছে।

এ বিষয়ে জানতে দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগটি বন্ধ পাওয়া যায়।

গত ৩০ এপ্রিল রাতে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর পশ্চিম বাজারে জামাল হোসেনকে গুলি করে হত্যা করে বোরকা পরা তিন দুর্বৃত্ত। এ ঘটনায় ২ মে রাতে দাউদকান্দি থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা সাত থেকে আটজনের নামে নিহতের স্ত্রী পপি আক্তার মামলা করেন।

 

অযোগ্য ও নিস্ক্রিয়দের দিয়ে মেঘনা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন

 

উজ্জ্বল হোসেন বিল্লাল:

সদ্য ঘোষিত মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি ঘিরে সমালোচনার ঝড় চলছে। বয়স্ক, বিবাহিত ও সন্তানের পিতা মোহসিন সোহাগকে (শাকিল) উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ঘোষণা করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করেছে মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা।

সোমবার দুপুরে কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার নয়াকান্দারগাও বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন উপজেলা ছাত্র লীগের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন এবং পরবর্তীতে ওই সড়কে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্বের কমিটির সভাপতি সামিউল হাসান সাঈদ জানান, সভাপতি পদে স্থান পাওয়া মোহসিন সোহাগ এর জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম শাকিল । যেখানে তাঁর জন্ম তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৩। সেই হিসেবে তাঁর বর্তমান বয়স প্রায় ৪০ বছর। যা ছাত্রলীগের পদে থাকার জন্য অনুপযুক্ত। তার প্রকৃত বয়স লুকিয়ে সে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছে বলে জানা গেছে। সে একটি জন্ম নিবন্ধন করেছে যেখানে তার বয়স ১০ বছর কমানো হয়েছে। সেখানে তার জন্ম সাল ১৯৯৩ । জন্ম নিবন্ধনে নামও পরিবর্তন করা হয়েছে। শাকিলের পরিবর্তে মোহসিন সোহাগ করা হয়েছে। এছাড়া মোহসিন সোহাগ বিবাহিত ও সন্তানের জনক। এছাড়া কমিটির আরো কয়েকজন রয়েছেন যারা বিগত দিনগুলিতে নিস্ত্রিয় ছিলেন মাঠে।

সদ্য ঘোষিত কমিটি বাতিল করে সম্মেলনের মাধ্যমে যোগ্য ও সক্রিয় নেতাকর্মী দিয়ে কমিটি গঠনের দাবী জানিয়ে সাঈদ আরো জানান, আমাদের কমিটি পূর্ণাঙ্গ না করে, কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই রাতের অন্ধকারে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। বয়স্ক, বিবাহিত, সন্তানের জনক, অযোগ্য, নিস্ক্রিয়রা এ কমিটিতে স্থান পেয়েছে। প্রাণের সংগঠন ছাত্রলীগকে ধ্বংস করার পায়তারা চলছে। আমরা শুনেছি মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন পূর্বের কমিটির সাধারন সম্পাদক শফিক দেওয়ান সহ স্থানীয় শতাধিক ছাত্র লীগের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহসিন সোহাগের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে মুঠোফোন সংযোগ পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: মহিউদ্দিন জানান, সভাপতি মোহসিনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। যোগ্য ও সক্রিয়দের দিয়ে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ২৪ এপ্রিল কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: মহিউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম রুবেল স্বাক্ষরিত কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা ছাত্রলীগের পেইডে এক বছরের জন্য আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিতে সভাপতি পদে মোহসিন সোহাগ, সহ সভাপতি পদে মো: আনোয়ার হোসেন , জাবের ভূইয়া ও খন্দকার সাব্বির আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক পদে মহিউদ্দিন শাহরিয়ার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মো: ফাহিম মিয়া ও মো: টিটু মিয়া এবং সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সাইফুল ইসলামকে রাখা হয়।

সম্মেলন ছাড়াই কমিটি ঘোষণা : বয়স্ক ও বিবাহিতরা মেঘনা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

বির্তক যেন পিছু ছাড়ছে না কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগকে ঘিরে। এবার সদ্য ঘোষিত মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি ঘিরে সমালোচনার ঝড় চলছে। বয়স্ক, বিবাহিত ও সন্তানের পিতা মোহসিন সোহাগকে (শাকিল) উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ঘোষণা করার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা ও ক্ষোভ প্রকাশ অব্যাহত রেখেছে তৃণমূল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ কমিটি ঘোষণা করায় বির্তক ছড়িয়ে পড়ে।

২৪ এপ্রিল কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: মহিউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম রুবেল স্বাক্ষরিত কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা ছাত্রলীগের পেইডে এক বছরের জন্য আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

এই কমিটিতে সভাপতি পদে মোহসিন সোহাগ, সহ সভাপতি পদে মো: আনোয়ার হোসেন , জাবের ভূইয়া ও খন্দকার সাব্বির আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক পদে মহিউদ্দিন শাহরিয়ার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মো: ফাহিম মিয়া ও মো: টিটু মিয়া এবং সাংগঠনিক সম্পাদক  পদে সাইফুল ইসলামকে রাখা হয়।

কমিটির সভাপতির পদ নিয়ে সবচেয়ে বড় অভিযোগ রয়েছে। সভাপতি পদে স্থান পাওয়া মোহসিন সোহাগ এর জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম শাকিল । যেখানে তাঁর জন্ম তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৩। সেই হিসেবে তাঁর বর্তমান বয়স প্রায় ৪০ বছর। যা ছাত্রলীগের পদে থাকার জন্য অনুপযুক্ত। তার প্রকৃত  বয়স লুকিয়ে সে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছে বলে জানা গেছে। সে একটি জন্ম নিবন্ধন করেছে যেখানে তার বয়স ১০ বছর কমানো হয়েছে। সেখানে তার জন্ম সাল ১৯৯৩ । জন্ম নিবন্ধনে নামও পরিবর্তন করা হয়েছে। শাকিলের পরিবর্তে মোহসিন সোহাগ করা হয়েছে। এছাড়া মোহসিন সোহাগ বিবাহিত ও সন্তানের জনক। এছাড়া কমিটির আরো কয়েকজন রয়েছেন যারা নিস্ত্রিয় ছিলেন মাঠ পর্যায়ে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মেজর (অব:) মোহাম্মদ আলী সুমন লিখেছেন –

“ সম্মেলন ছাড়াই, সময়ের পূর্বে সম্পূর্ণ অসাংগঠনিকভাবে রাত ১২ টার সময় ফেসবুক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে কুমিল্লা উত্তর জেলা মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি দেওয়ায় সকলে তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও প্রত্যাখান করেছে। ‘’

এ বিষয়ে  মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সামিউল হাসান সাঈদ  জানান, আমাদের কমিটি পূর্ণাঙ্গ না করে, কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই রাতের অন্ধকারে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।  বয়স্ক, বিবাহিত, সন্তানের জনক, অযোগ্য, নিস্ক্রিয়রা এ কমিটিতে স্থান পেয়েছে। প্রাণের সংগঠন ছাত্রলীগকে ধ্বংস করার পায়তারা চলছে। আমরা শুনেছি মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে মেঘনা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহসিন সোহাগের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে মুঠোফোন সংযোগ পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: মহিউদ্দিন  জানান, সভাপতি মোহসিনের বিরুদ্ধে আনা  অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। যোগ্য ও সক্রিয়দের দিয়ে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

দুর্নীতিবাজ ৭ জনের হাত থেকে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আ’লীগকে বাচাঁন !

স্টাফ রিপোর্টার:

সম্প্রতি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আ’লীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় চলছে। ত্যাগি ও সক্রিয় অনেক নেতাই যোগ্যতা অনুসারে পদ পায় নি এমনকি অনেককে রাখা হয়নি বলে নানা অভিযোগ রয়েছে।

তেমনি একজন লুৎফর রহমান। প্রায় ৪৩ বছর ধরে আ’লীগের রাজনীতিতে জড়িত থাকা লুৎফর  রহমান বর্তমান কমিটিতে সদস্য হিসেবে রয়েছেন। তিনি বেশ কয়েক দিন ধরে  ফেসবুকে তাঁর ক্ষোভ প্রকাশ করে যাচ্ছেন। তা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল।

৩ দিন পূর্বে  তিনি তাঁর ফেসবুক ওয়ালে লিখেছেন:

“ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি – সাধারণ সম্পাদক মহোদয় আপনাদের কাছে বিনয়ের সাথে অনুরোধ করছি নবগঠিত কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলিগের সদস্যপদ থেকে আমাকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য আবারো অনুরোধ জানাচ্ছি। কমিটি প্রশ্নবিদ্ধ । ’’

একই দিন তিনি আরো লিখেছেন:

“ আগের দিনের মুরব্বিদের কথা মানতে হয় এখন বুঝি। কুমিল্লাবাসির প্রিয় নেতা মরহুম অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার আমার এলাকায় ওনার বাসা, প্রতিদিনই ওনার বাসায় আমি আমার ভাই জাহিদের আসা যাওয়া ছিল। একদিন উনার বাসায় আফজাল খান সাহেবকে পেয়ে গেলাম । একটা কথা ওঠার পর,,, কালাম ভাই বলেছিলেন রাজনীতিটা হচ্ছে জুয়া খেলা, যে জিতবে সে জিতে গেলো,,,আর যে হারবে সে হেরে গেলো,, তার নামই হচ্ছে রাজনীতি।  পাশে বসা আফজাল খান সাহেব বলেছেন- টাকা থাকলে, অস্ত্র থাকলে, লাঠির জোর থাকলেও নেতা হওয়া যায় না। আমাদের সদরের এম পি মহোদয় হাজী আ ক ম বাহার উদ্দীন বাহার সাহেবর সাথে ২৬ জুন ২০১৬ সালে কুমিল্লা কান্দিরপাড় সুফিয়া মেনসনের জুতার দোকানে মুখোমুখি হয়ে যাই, ওনি আমাকে দেখা মাত্রই বলেছিলেন -সংগঠনের দূরদিনে অনেক অবদান রেখেছো । আজ পার্টি ক্ষমতায়, সুদিন । যার পিছনে রাজনীতি করো, কি দিয়েছে? কি পেয়েছো? আমি সবার খবর জানি, আগামী দিনও যার পিছনে রাজনীতি করো, সামনের দিকেও মুলাটা ঝুলাইয়া দিবে। আজ উনার কথাই সত্যি হলো। ধন্যবাদ মাননীয় এম পি মহোদয়।  আজ সবার কথাই সত্যি হলো। ১৯৮০ সাল থেকে এখন ২০২৩ সাল কুমিল্লা আওয়ামীগের রাজনীতিকে যা দিয়েছি যা হারিয়েছি তা সারাদিন বলেও শেষ করতে পারবো না। যারা আমার উপর অবিচার করেছে, আল্লাহ তায়ালা তার বিচার করবে, সময় আর বেশি দিন নাই, তাদের পতন ঘটবে অনিবার্য। ‘’

আজ  (২৮ এপ্রিল) পুনরায় ফেসবুকে রীতিমত বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন:

“ প্রশাসন ও দলীয় সিনিয়র নেতাদের কাছে অনুরোধ রইলো অতি জরুরি দলীয় অফিসে দোতালায় ও নিচতলায় সিসি ক্যামেরা লাগানো হোক। ওরা ৭ জনের অপকর্ম ধরা পড়বে শীঘ্রই!
বঙ্গবন্ধুর সংগঠন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগকে বাচান,  বিতর্কিত কমিটির ও হাইব্রিড পদ বানিজ্য, চাঁদাবাজ ও নারি কেলেঙ্কারিদের মেইন হুতা, ওরা ৭ জনের হাত থেকে সংগঠনকে বাচান। প্লিজ প্লিজ প্লিজ।
দল বাচলে শেখ হাসিনা বাচবে। ওরা ৭ জন সিল মারা,, যারা রক্ত, ঘাম,পরিশ্রম ও যুদ্ধ করে কুমিল্লার আওয়ামীলিগকে টিকিয়ে রেখেছেন তারা আজ গৃহ বন্দি। ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে রাজপথে নামার এখনই সুযোগ। আপনাদের পাশে আছি এবং থাকবো। ইনশাআল্লাহ।’’

সব মিলিয়ে নেতাকর্মীদের ক্ষোভে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আ’লীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি।

চৌদ্দগ্রামে নৌকার মাঝি হতে চায় ৭ নেতা, মাঠে আছে বিএনপি-জামায়াত-জাপার ৭ জন

স্টাফ রিপোর্টার:
আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নেমেছে কুমিল্লা-১১(চৌদ্দগ্রাম) নির্বাচনী আসনের রাজনৈতিক দলগুলো। চলতি বছর ডিসেম্বর বা ২০২৪ সালের জানুয়ারির মাঝামাঝি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। সেই লক্ষ্যে চৌদ্দগ্রামে এবার এমপি প্রার্থী হওয়ার জন্য মনোনয়ন প্রত্যাশী পুরাতন নেতাদের পাশাপাশি নতুন নেতৃত্বের নেতারাও আছেন অনেকে।

একটি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত চৌদ্দগ্রাম উপজেলা। এখানে নারী-পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ২৩ হাজার ৪১৫। এই আসনে এবার এমপি প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ১৩ জন। এই নেতারা হলেন আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে রয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য চারবারের এমপি ও সাবেক রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী,তিনবারের উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া হাসান, দু’বারের সাবেক পৌর মেয়র মো. মিজানুর রহমান, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সদস্য মো. তমিজ উদ্দিন ভূঁইয়া সেলিম, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. মুজিবুর রহমান মিয়াজি, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মো. জসিম উদ্দিন।

এদিকে জামায়াত তথা বিএনপি জোটের প্রার্থীদের মধ্যে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক এমপি ও কেন্দ্রীয় জামায়াতের নায়েবে আমির ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. কামরুল হুদা, ড্যাবের কেন্দ্রীয় নেতা ডা. মহিউদ্দিন ভূঁইয়া মাসুম, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি (এরশাদ) আলহাজ মো. খায়েজ আহমেদ ভূঁইয়া, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আলহাজ আলমগীর কবির মজুমদার (এরশাদ), বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সহসভাপতি কাজী জহিরুল কাউয়ুমের নাতি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদের ভাতিজা কাজী মো. নাহিদ।

মনোনয়ন পাওয়ার জন্য এই প্রার্থীরা বর্তমানে নির্বাচনী এলাাকার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সভা-সেমিনার করে বেড়াচ্ছে। রাজনৈতিক আড্ডায় ও চায়ের দোকানে শোনা যাচ্ছে এই প্রার্থীদের নাম। এই সম্ভাব্য প্রার্থীরা যে যখন সুযোগ পাচ্ছেন উপজেলায় আসছেন এবং বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।

স্থানীয় আ’লীগ সূত্র জানায়, আ’লীগের একাধিক প্রার্থী থাকলেও এমপি মুজিব ছাড়া  মনোনয়ন লড়াইয়ে বেশ আলোচনায় রয়েছেন তিনবারের উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া হাসান। তিনি প্রকাশ্যে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা না বললেও তাঁর নেতাকর্মীরা চান, রাজনীতির মাঠের সিনিয়র ও সক্রিয় এই নেতা নৌকার মাঝি হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জামায়াতের আমির মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ছাড়া জামায়াত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। দল যদি নির্বাচন করতে ইচ্ছুক হয় তাহলে আমরা প্রস্তুত আছি। গত ১৫ বছর আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকায় চৌদ্দগ্রামে বিএনপির ১০ হাজার নেতাকর্মীর নামে শতাধিক মামলা হয়েছে। মামলা-হামলার পরও জামায়াত মাঠে অত্যন্ত শক্ত অবস্থানে রয়েছে। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে যদি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় তাহলে চৌদ্দগ্রামে ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের বিপুল ভোটে বিজয় লাভ করবেন বলে আশাবাদী স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ।

অন্যদিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ রহমতুল্লাহ বাবুল বলেন, মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠন করার জন্য আওয়ামী লীগের বিকল্প নেই। আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে ইতোমধ্যে আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। মো. মুজিবুল হক এমপির নির্দেশে উপজেলা সদর থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে সমাবেশ প্রায় শেষের দিকে রয়েছে। যারা নির্বাচনী পরিবেশকে অশান্ত করার পাঁয়তারা করছে, তারা চৌদ্দগ্রামের নন, তারা ঢাকার নেতা।

দু’বারের সাবেক পৌর মেয়র মো. মিজানুর রহমান বলেন, চৌদ্দগ্রামের মানুষ এখন পরিবর্তন চায়। আ’লীগ দলীয় নেতাকর্মীদের কন্ঠরোধ করতে তাদের মামলায় জড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। দলীয় গ্রুপিংয়ের কারণে এ অবস্থা। চৌদ্দগ্রামের রাজনীতিতে অস্থিরতা বিরাজ করছে। চৌদ্দগ্রামের রাজনীতির পরিবেশ সুষ্ঠু-সুন্দর করার লক্ষ্যে এবং আধুনিক উন্নয়নমুখি চৌদ্দগ্রাম গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমি কাজ করবো। আমি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি। জনগণের চাওয়া-পাওয়া, কথার মূল্যায়ণ যদি হয়, তাহলে আমি নৌকার মনোনয়ন পাবো ইনশাল্লাহ। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা মাঠ জরিপ করছে। আশা করি মাঠের প্রকৃত অবস্থা নীতিনির্ধারকরা জানেন। সর্বোপরি আমাদের অভিভাবক প্রধানমন্ত্রীর শেষ সিদ্ধান্তই আমরা মেনে চলবো।

চৌদ্দগ্রামের রাজনীতি নিয়ে জানতে সাংসদ মুজিবুল হক মুজিবের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে, ১৯৯৬ সালে এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা মার্কায় ভোটে জয়লাভ করে সংসদ সদস্য হন বর্তমান এমপি মো. মুজিবুল হক। পরবর্তী সময়ে ২০০১ সালে সংসদ নির্বাচনে তিনি হেরে যান। এই আসনে জয়লাভ করেন জামায়াতের সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের। ২০০৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে জামায়াতের দুর্গখ্যাত চৌদ্দগ্রামের আসনটিতে নৌকা বিজয়ী হয়। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়নি জামায়াতে ইসলামী। জামায়াত টানা ১৫ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকার কারণে এখানে আওয়ামীলীগের ভিত্তি এখানে মজবুত ।

নাঙ্গলকোটে আ’লীগের কমিটিতে পদ পেলেন সাবেক ৩ বিএনপি নেতা

স্টাফ রিপোর্টার:

সম্মেলনের ৪ মাসের মাথায় কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা আ’লীগের কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন করে গঠন করা ৭১ সদস্যবিশিষ্ট  কমিটিতে স্থান পেয়েছেন  উপজেলা বিএনপির সাবেক  ৩ জন নেতা।

এ বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর ওই কমিটিতে বিএনপির নেতাদের পদ পাওয়া নিয়ে বেশ সমালোচনা শুরু হয়।

৭১ সদস্যবিশিষ্ট নতুন কমিটিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু ইউসুফকে সভাপতি এবং কুমিল্লা জেলা পরিষদের সদস্য মো. আববু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে আবুকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে।

কমিটিতে নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল্লাহ মজুমদারকে ৩ নম্বর সহ-সভাপতি, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তৌহিদুর রহমান মজুমদারকে বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং উপজেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শাহজাহান মজুমদারকে কার্যকরী সদস্য করা হয়েছে।

স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার দাবি, ওই তিনজন বিএনপি ছাড়ার পর দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করছেন। এ জন্য তাদের পদ দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির সাবেক তিন নেতার কমিটিতে পদ পাওয়ার প্রসঙ্গে নতুন সভাপতি আবু ইউসুফ বলেন, ওই তিনজন ২০০৯ সালের পর বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। এরপর থেকে তারা সক্রিয়ভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে আসছেন। এজন্য নতুন কমিটিতে তাদের রেখেছে দলের নেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বছরের ৩ ডিসেম্বর নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও সেদিন কমিটি ঘোষণা করা হয়নি। পরে ১১ ডিসেম্বর ৭১ সদস্যবিশিষ্ট উপজেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ। ওই কমিটিতে নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন কালুকে সভাপতি এবং উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ভুঁইয়াকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। ওই কমিটি অনুমোদনের পর দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়। এই অবস্থার মধ্যে গত ২৬ মার্চ ওই কমিটি বাতিল করা হয়।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র পরিপন্থি হওয়ায় ওই কমিটি বাতিল করা হয় বলে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়। একই দিন ৭১ সদস্যবিশিষ্ট নতুন কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া সহসভাপতি পদে ৯ জন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ৩ জন, সাংগঠনিক সম্পাদক ৩ জন ও কার্যকরী সদস্য পদে ৩৫ জন আছেন।

এদিকে, নতুন কমিটিতে নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান পক্ষগুলোর নেতাদের কার্যকরী সদস্য পদে রাখা হয়েছে।

এর মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি যথাক্রমে মো. রফিকুল হোসেন, সামছুদ্দিন কালু ও মোস্তাফিজুর রহমান, নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান মজুমদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান অবদুল করিম মজুমদারকে সদস্য রাখা হয়েছে।

নবগঠিত কমিটির সভাপতি আবু ইউসুফ সাংবাদিকদের বলেন, “আমি ছাত্রলীগের রাজনীতি করে আজকের এই স্থানে এসেছি। রাজনীতি করতে গিয়ে অসংখ্যবার মামলা-হামলার শিকার হয়েছি। দলের সব পর্যায়ের নেতাদের নতুন কমিটিতে রাখা হয়েছে। আশা করছি সকলকে নিয়ে আগামীর নাঙ্গলকোট আওয়ামী লীগ অনেক বেশি শক্তিশালী হবে।”

সদর দক্ষিণে ১০ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার সদর দক্ষিণের নন্দনপুর এলাকা হতে ১০ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী সুরুজ মিয়াকে (৩৫) আটক করেছে র‌্যাব-১১,সিপিসি-২ সদস্যরা।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব এর একটি আভিযানিক দল ৩০ মার্চ দুপুরে নন্দনপুর এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে।

আটক হওয়া মাদক ব্যবসায়ী হলেন কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সিবলাই গ্রামের মৃত. শাহ আলম মিয়ার ছেলে সুরুজ মিয়া ওরফে মালু মিয়া (৩৫)।

এ ঘটনায় সদর দক্ষিণ মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ এর কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

কুবির দত্ত হল সংলগ্ন পাহাড়ে ফের আগুন

 

চাঁদনী আক্তার, কুবিঃ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) পাহাড়ে আবারো আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (১মার্চ) সাড়ে ১১টার দিকে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের পশ্চিম পাশের পাহাড়ে এ আগুনের সূত্রপাত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, হলের ময়লা ফেলার স্থান থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। এই সময় আগুনে পাহাড়ের বেশকিছু অংশ পুড়ে গেছে।

বারবার বিশ্ববিদ্যালয়ের পাহাড়ে আগুন লাগার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ওবাইদুল্লাহ খান জানান, ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ পাহাড়গুলো আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের প্রতীক। বারবার পাহাড়ে এই আগুন লাগার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে। আশা করবো বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পাহাড়ের বিষয়ে দায়িত্বশীল হবে এবং এসব ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে ব্যবস্থা নিবে।

দত্ত হলে প্রাধ্যক্ষ ড.মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনা শুনার সাথে সাথে আমি প্রশাসনকে অবহিত করি। বারবার আগুন ধরার বিষয়টি আসলে চিন্তার কারণ। কারণ আমাদের ছাত্রদের নিরাপত্তা বিষয়টি দেখতে হবে। আমরা বসে তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত নেব।

প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী রানা (ভারপ্রাপ্ত) বলেন, ফায়ার সার্ভিসের ভাষ্যমতে আগুন স্তুপ থেকে সৃষ্টি হয়েছে। বারবার আগুনের ধরার বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পাহাড়ে মাঝেমধ্যে এগুলো হয়, আমরা তৎক্ষনাৎ পদক্ষেপ নিয়েছি। নিরাপত্তা বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন এটার সাথে নিরাপত্তার কোন সংযোগ নেই।

কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ ফায়ার স্টেশনের অফিসার মীর মোহাম্মদ মারুফ বলেন, ময়লার স্তূপ থেকে আগুনের সুত্রপাত হয়েছে। হতে পারে কেউ দুষ্টমির ছলে আগুন লাগিয়েছে। কিন্তু পাহাড়ের অর্ধেক অংশ জ্বলে গিয়েছে। আমরা খবর পেয়ে দ্রুত এসেছি। ততক্ষণে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা রক্ষাসহ সবার প্রচেষ্টায় আগুন নেভানো হয়েছে।

এর আগেও গত ১৩ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় লালন চত্বরে আগুন দেখতে পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা। পাহাড়ে আগুন লেগে বিভিন্ন অংশের গাছপালা পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। দীর্ঘক্ষণ আগুন জ্বলে কালো বর্ণ ধারণ করেছে আাশপাশের গাছপালা।

এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে কুবির পাহাড়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০২০ সালের ১৪ মার্চ কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ার পাশের পাহাড়ে আগুন লাগলে পরিচ্ছন্নতার জন্য আগুন দেওয়া হয়েছে দাবি করে কর্তৃপক্ষ। ২০২১ সালের ১৮ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের পাশের একটি পাহাড়ে অঅগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। তখন বহিরাগত মাদকসেবীদের দ্বারা এই অগ্নিকাণ্ড ঘটার ধারণা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ২০২২ সালের অগ্নিকাণ্ডেও প্রশাসন একই কথা বলেছিল। তবে মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি কর্তৃপক্ষকে।

চলে গেলেন না ফেরার দেশে সাবেক মন্ত্রী এবিএম গোলাম মোস্তফা

স্টাফ রিপোর্টার:
সাবেক মন্ত্রী ও সচিব এবং কুমিল্লা -৪, (দেবিদ্বার) আসনের সাবেক এমপি এবিএম গোলাম মোস্তফা আর নেই।

শনিবার ( ৩ ডিসেম্বর) রাত ৯ টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। মৃ

মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৮। তিনি বাধ্যর্কজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অনেক আত্বীয়-স্বজন এবং গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। আমৃত্যু তিনি কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ছিলেন। তিনি প্রয়াত শিক্ষামন্ত্রী মফিজউদ্দিন আহমেদের ২য় পুত্র।

এবিএম গোলাম মোস্তফা ১৯৩৪ সালের কুমিল্লায় ১৯৩৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৪ ও ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। ১৯৫৬ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা শেষ করে পাকিস্তানের সিভিল সার্ভিসে বেশ কয়েকটি পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম বেতন কমিশনের সদস্যসহ তিনি ১৭ বছর ৭টি মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জাতীয় পর্টিতে যোগ দিয়ে তিনি ১৯৮৮ সালে জ্বালানি ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রী এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও পানি সম্পদ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কুমিল্লার দেবিদ্বার থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

এবিএম গোলাম মোস্তফার ব্যক্তিগত সহকারী আক্তার হোসেন জানান, মরহুমের সন্তান ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা মরহুমের জানাজা ও দাফন নিয়ে এখনো চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাননি।