Tag Archives: কুমিল্লা-ঢাকা ৯ ঘন্টা!

মহাসড়কে মহাভোগান্তি, কুমিল্লা-ঢাকা ৯ ঘন্টা!

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
টানা তিন দিনের ছুটিতে মহাসড়কে গাড়ীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় দেশের প্রধান দুই মহাসড়কে যানজট ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। গতকাল শুক্রবার ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জ অংশে ছিল দিনভর যানজট। এতে চট্টগ্রাম ও সিলেটমুখী বাসের যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। এসময় যানজটে আটকে পরে বিভিন্ন জেলা থেকে কুমিল্লায় আসা শীতকালীন পিকিনিকের বাসগুলো রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। আবার অনেকেই তীব্র যানজটের কারণে গৌন্তব্যে পৌঁছতে না পারায় রাস্তায় পিকনিকের কার্যক্রম শেষ করে পুনরায় ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন। তীব্র যানজটের কারণে অনেক ভিআইপি যাত্রী, সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, রোগী বহনকারী এম্বুলেন্সগুলোসহ দূরপাল্লার যাত্রীরা এক জায়গায় বসে ঘন্টার পর ঘন্টা কাটিয়েছেন। বাথরুম ও খাদ্যপানীয় সঙ্কটেও ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে শত শত যাত্রীকে। আবার অনেক যাত্রী ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের নিয়ে বিপাকে পড়েন। অনেকে শিশুই অসুস্থ হয়ে পড়ে।

হাইওয়ে পুলিশ বলেছে, টানা তিন দিনের ছুটি থাকায় মহাসড়কে গাড়ির চাপ বেড়ে গেছে। এ ছাড়া কাঁচপুর দ্বিতীয় সেতু উদ্বোধনের আগের মুহুর্তের সেতুর ইউলুপের গার্ডারের কাজ করায় বৃহস্পতিবার দুপুর ১ টা থেকে যানজট শুরু হয়। পরে বেলা বাড়ার সাথে সাথে যানজটের মাত্রাও বাড়তে থাকায়। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জের কাঁচপুর থেকে শুরু হওয়া যানজট মহাসড়কের প্রায় ৬৬ কিলোমিটারজুড়ে বিস্তৃতি লাভ করে। এ যানজট কাঁচপুর সেতু হয়ে দাউদকান্দি ছাড়িয়ে যায় বলে জানিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল শুক্রবারও কাঁচপুর সেতুর পূর্ব পাশে ঢাকা-সিলেট সংযোগ সড়কে ইউলুপের কাজ চলছিল। আজ ১৬ মার্চ কাঁচপুর দ্বিতীয় সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ কারণে ইউলুপের গার্ডারের কাজ জোরেশোরে চলছে। কাঁচপুর-মেঘনা ও গোমতী দ্বিতীয় সেতু প্রকল্পের কর্মকর্তারা মহাসড়ক বন্ধ করে কাজ করায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

অন্যদিকে টানা তিন দিনের ছুটি থাকায় যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ ও মেঘনা সেতুতে ধীরগতিতে টোল আদায় যানজটের কারণ বলে অনেকে মনে করছেন।

হাইওয়ে পুলিশ ও ভুক্তভোগী যাত্রীরা জানান, গতকাল সকাল আটটা থেকে কাঁচপুর সেতু ও শিমরাইল এলাকা থেকে যানজট শুরু হয়। ধীরে ধীরে তা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কাঁচপুর থেকে রূপসী এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহসড়কের সাইনবোর্ড থেকে মদনপুর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। যানজটের কারণে ১০ মিনিটের রাস্তা পার হতে তিন-চার ঘণ্টা লেগে যায়। যানজটের খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জের হাইওয়ে ও ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ যানজট নিরসনে কাজ শুরু করে। যানজটের কারণে দূরপাল্লার নির্ধারিত সময়ের যাত্রীবাহী বাস সময়মতো কাউন্টারে ফিরতে পারেনি। এতে শিমরাইল মোড় ও কাঁচপুরের টিকিট কাউন্টারগুলোতে যাত্রীদের ভিড় বেড়ে যায়। শিমরাইলের দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাসের টিকিট কাউন্টারগুলোতে যাত্রীদের বাসের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

শিমরাইল এলাকার ফল ব্যবসায়ী আবদুল্লাহ বলেন, সকাল থেকে দিনভর মহাসড়কে প্রচন্ড যানজট ছিল। যানজেটর কারণে শিমরাইল থেকে কাঁচপুর সেতু পার হতে যানবাহনগুলোর দুই ঘণ্টারও বেশি লেগেছে। ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে বিভিন্ন গন্তব্যর যাত্রীদের।

তিনি বলেন, আট লেনে গাড়ি এসে শিমরাইল কাঁচপুর সেতুতে দুই লেনে পার হয়। এতে যানজট প্রকট হয়। বাস কাউন্টারের কর্মচারী নাসির উদ্দিন বলেন, কাউন্টারগুলোতে যাত্রীর প্রচন্ড চাপ ছিল। বৃহস্পতিবার বিকালের পর থেকে ঢাকা থেকে যাত্রীদের চাপ বেড়ে যায়। ওই দিন রাতেই ঢাকা থেকে বেরুতে গিয়ে শত শত গাড়ি যানজটে আটকে পড়ে।

নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর মোল্লা তাসলিম হোসেন জানান, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কাঁচপুর বাসস্ট্যান্ডে ইউলুপের গার্ডারের কাজ চলছে। সে কারণে যানজট তীব্র আকার ধারন করে। তাছাড়া শুক্রবার ও আজ শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি এবং আগামীকাল রোববার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় লোকজন গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওনা হওয়ায় গাড়ির চাপ অনেক বেড়ে যায়। এ কারণে মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, ট্রাফিক পুলিশ যানজট নিরসনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সরেজমিন গতকাল শুক্রবার বেলা ২টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মোগরাপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। গাড়ির চালকেরা ইঞ্জিন বন্ধ রেখে বসে আছেন। মাঝে মধ্যে থেমে থেমে গাড়ি চললেও কিছুক্ষণ গিয়ে ইঞ্জিন বন্ধ করে বসে থাকতে দেখা যায়। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী এস আলম পরিবহনের যাত্রী মহিউদ্দিন আলম, আলমগীর, কামরুজ্জামান ইনকিলাবকে বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে মহাসড়কের কাঁচপুর সেতুতে এসে যানজটের কবলে পড়েছি। সকাল ৮টায় কাঁচপুরে ছিলাম। চার ঘণ্টায় মোগরাপাড়া এলাম। তিশা পরিবহনের বাসচালক শাহ আলম জানান, টানা তিন দিন সরকারি ছুটির ফলে লোকজন বাড়িতে যাওয়ার জন্য অতিরিক্ত গাড়ির চাপ ও মেঘনা টোল প্লাজায় ধীরগতিতে টোল আদায়ের ফলে কাঁচপুর থেকে যানজট দীর্ঘ হতে থাকে। এ ছাড়া কাঁচপুর দ্বিতীয় সেতুর কাজ চলছে, এতেও যানজটের কবলে পড়ছে অনেক যানবাহন।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার সার্জেন্ট আলমগীর হোসেন বলেন, গত বৃহস্পতিবার থেকে মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহন এবং মেঘনা ও মেঘনা- গোমতী সেতু এলাকায় নির্মাণ কাজ চলায় এ যানজটের সৃষ্টি। বসুরহাট থেকে ঢাকাগামী ড্রিমলাইন পরিবহনের বাসের চালক নুরুল আমিন বলেন শুক্রবার সকাল সোয়া নয়টায় মহাসড়কের দাউদকান্দির বারপাড়ায় এসে যানজটে আটকা পড়ে এক কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে দুই ঘণ্টা লেগেছে। কখন ঢাকায় পৌঁছাতে পারব জানা নেই। যানজটে আটকে অনেকেই পড়েছেন বিপাকে। অনেক পণ্যবাহী যানবাহন আটকে আছে মহাসড়কে। দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করতে হাইওয়ে পুলিশ রাত-দিন চেষ্টা চালাচ্ছে।

অপরদিকে সোনারগাঁও থানার ওসি মনিরুজ্জামান মনির ইনকিলাবকে বলেন, কাঁচপুর সেতুতে সড়কে ইউলুপের কাজ চলছে। এ ছাড়া মহাসড়কে গাড়ির অতিরিক্ত চাপ থাকার কারণে এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।