Tag Archives: কুমিল্লা বিভাগ হওয়া নিয়ে শুধু নেতাদের আশ্বাস শোনা

কুমিল্লা বিভাগ হওয়া নিয়ে শুধু নেতাদের আশ্বাস শোনা, না কি রাজনীতির মারপ্যাঁচে কুমিল্লা বিভাগের স্বপ্ন দেখা

সেলিম সজীবঃ
শিক্ষা-শিল্প-সাহিত্য- সংস্কৃতির পাদপীঠ কুমিল্লা প্রাচীণ ঐতিহ্য সমৃদ্ধ জেলা হিসেবে এ উপমহাদেশে সুপরিচিত। কুমিল্লার খাদি শিল্প, তাঁত শিল্প, কুটির শিল্প, মৃৎ ও কারু শিল্প, রসমালাই, মিষ্টি, ময়নামতির শীতল পাটি ইত্যাদি স্ব-স্ব ঐতিহ্যে স্বকীয়তা আজও বজায় রেখেছে।

কুমিল্লা ব্রিটিশ-ভারতের প্রাচীণতম শহর। আগে এর নাম ছিল ত্রিপুরা জেলা। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গকে কেন্দ্র করে কুমিল্লা টাউন হল মাঠে জনসভা হয়। ১৯৬০ সালে প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণের ফলে কুমিল্লা পৃথক জেলার মর্যাদা পায়। গোমতী নদীর তীরে এ শহরের অবস্থান। একে বলা হয় পথিকৃৎ কুমিল্লা। ১৯৮৬ সালে কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়ন আন্দোলন শুরু হয়। ১৯৮৯ সালে বৃহত্তর কুমিল্লার কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং বৃহত্তর নোয়াখালীর নোয়াখালী, ফেনী ও ল²ীপুরসহ ছয়টি জেলা নিয়ে কুমিল্লা বিভাগ প্রতিষ্ঠার দাবি শুরু হয়। কুমিল্লা গণফোরাম নামের একটি সামাজিক সংগঠনের ব্যানারে ওই দাবি নিয়ে আন্দোলন শুরু হয়। পরে সংগঠনের নাম হয় কুমিল্লা গণদাবি পরিষদ।

বর্তমানে বৃহত্তর কুমিল্লা ও বৃহত্তর নোয়াখালীর ছয়টি জেলায় প্রায় দুই কোটি জনসংখ্যা রয়েছে। ওই ছয় জেলার আয়তন প্রায় ১৩ হাজার বর্গকিলোমিটার। যা ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠিত সিলেট, বরিশাল ও রংপুর বিভাগের চেয়ে জনসংখ্যা ও আয়তনের প্রায় দ্বিগুণ।

চট্টগ্রাম বিভাগকে ভেঙে কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চল নিয়ে পৃথক বিভাগ করা যায় কি না, এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রীর ওই মনোভাবের কথা জানার পর কুমিল্লাজুড়ে আনন্দ মিছিল হয়। দীর্ঘদিনের দাবির কথা প্রধানমন্ত্রীর মুখে ফুটে উঠায় সমতট অঞ্চলের (প্রাচীনকালে কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চলকে সমতট নামে ডাকা হতো) বাসিন্দারা মহা খুশি হয়।

জাতীয় প্রেসক্লাবে ২০১৫ সালের ১৩ জুন কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়ন শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃতি সন্তান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছিলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়ন হলে কুমিল্লা বিভাগের নাম কুমিল্লাই থাকবে। কুমিল্লা নামেই আমরা গর্ববোধ করি। এতে আমাদের কোন আপত্তি নেই।’

২০১৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর কুমিল্লায় জাতীয় যুব সম্মেলনের একটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুমিল্লা-১০ আসনের এমপি পরিকল্পনামন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল বলেছিলেন, ‘কুমিল্লা বিভাগ হবে। বৃহত্তর নোয়াখালী আমাদের সাথেই থাকবে। কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়নের ঘোষণা সময়ের ব্যাপার মাত্র।’

কুমিল্লা বিভাগ প্রসঙ্গে একই অনুষ্ঠানে কুমিল্লা সদরের এমপি হাজী আকম বাহাউদ্দিন বাহার বলেছিলেন, মহান জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে আমি কুমিল্লার জনপ্রতিনিধি হিসেবে কুমিল্লার মানুষের দাবীগুলো উত্থাপন করি। কুমিল্লাকে বিভাগ করার দাবী আমিই প্রথম মহান জাতীয় সংসদে উত্থাপন করে সংসদনেতা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করি। প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লাকে বিভাগ করার ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু এখনো বাস্তবায়ন হচ্ছে না। অথচ কুমিল্লা সব দিক থেকে এগিয়ে। রেমিটেন্সে শীর্ষ, খাদ্যশস্য ও মৎস্য উৎপাদনে সেরা জায়গায় রয়েছে। ত্রিশ বছর বিভাগের আন্দোলন করছি। অথচ সিলেট, বরিশাল, রংপুর, ময়মনসিংহ বিভাগ হচ্ছে। এতোদিন কুমিল্লায় নেতৃত্বের দুর্বলতা ছিল। আজকে পরিকল্পনামন্ত্রীকে সাথে নিয়ে আমরা সেই দুবর্লতার উত্তরণ ঘটিয়ে বৃহত্তর কুমিল্লা ও বৃহত্তর নোয়াখালীকে নিয়েই কুমিল্লা বিভাগের বাস্তবায়ন চাই।

২০১৮ সালের ২৫ অক্টোবর কুমিল্লায় এক অনুষ্ঠানে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, কুমিল্লার নামেই বিভাগের নামকরণ করা হবে। ‘কুমিল্লা বিভাগের প্ল্যান হয়ে গেছে। কিছু কারণে বিভাগ ঘোষণা করতে বিলম্ব হচ্ছে। তবে কথা দিলাম কুমিল্লার নামেই কুমিল্লা বিভাগ হবে।’

আইনমন্ত্রী কথার সুরে বলতে হয়, কিছু কি কারনে কুমিল্লা বিভাগ হতে বিলম্ব হচ্ছে? গত ৩৫ বছর ধরে বিভাগ বাস্তবায়নের দাবিতে কুমিল্লাবাসী সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছে। তাতে বিলম্ব হচ্ছে কোথায়।

২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারীতে ইতালির রোমের পিয়াচ্ছা ভিত্তোরিওতে এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) বলেছেন, চার জেলা নিয়ে কুমিল্লা নামেই কুমিল্লা বিভাগ চাইবো।
বিভাগ করার জন্য চারটি জেলা দরকার হয়। কিন্তু আমাদের আছে তিনটি জেলা কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চাঁদপুর।

আমাদের পার্শ্ববর্তী ফেনি, নোয়াখালী ও লক্ষীপুর জেলাকে আমরা আমাদের সাথে চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা আসতে রাজি হয় নি।

এখন কি আর করা। আরেকটি নতুন জেলা করে চারটি জেলা নিয়ে কুমিল্লা বিভাগ হবে। এ জন্য দেরি হচ্ছে। আশা করি অচিরেই কুমিল্লা বিভাগ হবে।

কুমিল্লা নামটি কয়েক বছর আগের দেয়া নাম নয়। কুমিল্লা নামের ঐতিহ্য আছে। কারণ, রসমালাই বললে আপনি বুঝেন দেশ-বিদেশখ্যাত কুমিল্লার রসমালাই, খাদি বললেও কুমিল্লার খাদি, শীতলপাটিতে খ্যাত কুমিল্লা। সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ’র বাড়ি কুমিল্লায়, ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা মেজর আবদুল গণি ছিলেন কুমিল্লার মানুষ। নারী জাগরণের অগ্রদূত হয়েও যিনি আড়াল হয়ে আছেন, যিনি বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের জন্মের ৪৬ বছর আগে জন্মেছিলেন তিনি হলেন নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরাণী।

ব্রিটিশ ভারতে সর্বপ্রথম ‘নওয়াব’ উপাধি পাওয়া এবং বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মানব সেবামূলক কাজের ক্ষেত্রে তৎকালে একমাত্র নারী নিদর্শন ছিলেন যিনি, তিনি এই কুমিল্লার মানুষ। ‘জননী সাহসিকা’ খ্যাত কবি সুফিয়া কামালও ছিলেন কুমিল্লার অধিবাসী। দেশের একমাত্র সার্ভে ইনস্টিটিউট কুমিল্লায়, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (ইঅজউ) কুমিল্লায়, প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘরের শহরটিও কুমিল্লা, বিভাগীয় শহর না হয়েও স্বতন্ত্র শিক্ষাবোর্ড একমাত্র কুমিল্লায় ইত্যাদি।
যদি বলা হয়, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিধন্য স্থানের কথা সেটিও আমাদের কুমিল্লা। বঙ্গবন্ধুর মুখেও কুমিল্লার মানুষের কথা ছিল, তিনি তাঁর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ তে বলেছিলেন “হাজী গিয়াসউদ্দিন নামে একজন বন্ধু ছিল আমার। তার বাড়ি কুমিল্লায়। যখন আর কোথাও টাকা জোগাড় করতে পারি নাই, তখন তার কাছে গেলে কখনও আমাকে খালি হাতে ফিরে আসতে হয় নাই।” এখন, বিভাগ করার বেলায় কুমিল্লা নামকে আড়াল করা মানে বঙ্গবন্ধুর প্রিয় বন্ধু হাজী গিয়াসউদ্দিন সাহেবের কুমিল্লাকে আড়াল করা।

কাজেই, কুমিল্লা নামটির পরিবর্তন মানে কুমিল্লার ঐতিহ্যকে আঁধারে ঠেলে দেয়া। সবকিছু ছাপিয়ে প্রতিটি মানুষের একটা অঞ্চলগত আইডেন্টিটি আছে, যা প্রতিটি মানুষ ধরে রাখতে চায়। এসব কারণে অন্যান্য বিভাগের নাগরিকদের চাওয়ার সাথে মিল রেখে কুমিল্লার মানুষদেরও এই একটি চাওয়া। আর তা হচ্ছে- ‘ময়নামতি’ কিংবা ‘মেঘনা’ কিংবা ‘গোমতী’ নয়, ‘কুমিল্লা’ নামেই কুমিল্লাকে বিভাগ ঘোষণা করা হোক।

কুমিল্লা বিভাগ হবে ঘোষনা দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০১৫ সালে, কিন্তু ২০২০ এ এসেও বিভাগ হওয়ার যে কায্ক্রমের প্রথম অধ্যায় শুরু হয়নি এখনো।

কুমিল্লাবাসীর দৃঢ় বিশ্বাস, বর্তমান সরকার সামাজিক সম্প্রীতির এক অনুকরণীয় জনপদ এই কুমিল্লায় বিভাগ বাস্তবায়ন করবে। এর মধ্য দিয়ে কুমিল্লাবাসীর সর্বশেষ স্বপ্ন পূরণ হবে।