Tag Archives: কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক হতে যাচ্ছেন মোস্তাফিজুর রহমান শুভ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক হতে যাচ্ছেন মোস্তাফিজুর রহমান শুভ

 

স্টাফ রির্পোটারঃ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামী কমিটিতে মোস্তাফিজুর রহমান শুভকে ছাত্রদলের আহ্বায়ক করা হতে পারে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের চলমান কার্যক্রমকে গতিশীল করতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দ্বিতীয় মেয়াদে কমিটি করার পক্রিয়া চলমান। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও ২০১৬ সালে আংশিক কমিটি ও ২০১৮ সালে পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় সংসদ। দীর্ঘদিন নতুন কমিটি না থাকায় অনেক কর্মী দল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

সম্প্রতি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ১২ ফেব্রুয়ারী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় সংসদ সহ-সভাপতি জাকিরুল ইসলাম জাকির। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় সংসদ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নাওয়াজ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক আবু আফসান মোঃ ইয়াহইয়া ও কেন্দ্রীয় সংসদ সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাদিমুর রহমান শিশির।

সভাপতিত্ব করেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী নোমান এবং সঞ্চালনা করেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাসির উদ্দিন।

জানা গেছে, জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির অঙ্গসংগঠন ছাত্রদলকে অতীতের চেয়ে আরো সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করতে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়, জেলা, মহানগর, কলেজ, উপজেলাসহ সকল ইউনিটে আহ্বায়ক কমিটি করতে হাত দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল।

বিভিন্ন তথ্য ও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি নিশ্চিত করেছেন যে, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের কমিটিতে মূল দুই পদের জন্য তদবির চালাচ্ছে বেশ কয়েকজন নেতা। তাদের মধ্যে বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক- মোস্তাফিজুর রহমান শুভ, সিনিয়র সহ-সভাপতি – আবদুল্লাহ আল মামুন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে আহ্বায়ক পদে।

তবে সাংগঠনিক কার্যক্রম করতে গিয়ে জেল,পুলিশের গুলিতে আহত, মামলা হামলা, বাড়ি ঘর ভাংচুরসহ সকল ত্যাগে এগিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান শুভ। ২০১৪-১৫ সালের আন্দোলনে তার ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলকে গতিশীল করতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ২য় মেয়াদে ভর্তি হয়ে দলীয় কর্মীদের সুসংগঠিত করছে বলে জানা গেছে।

সংগঠনকে গতিশীল করতে ১২ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভা ছিল তার কার্যক্রমের উল্লেখযোগ্য। প্রায় সকলে শুভকে আহ্বায়ক দাবী জানায় দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক টিমের কাছে।

এদিকে আরো জানা গেছে, মোস্তাফিজুর রহমান শুভ’র নামে বর্তমানে ৩টি মামলা চলমান রয়েছে। কেন্দ্রীয় কারাগারে জেল খেটেছেন। উনার বাড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশেই আগানগর গ্রামে। বরুড়া উপজেলা যেটি সদর আসন ও বরুড়া আসনের বর্ডার এরিয়া (যেটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সহাবস্থান নিশ্চিতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ)।

একাধিক ছাত্রনেতার কাছে শুভ’র বিষয়ে জানা গেছে , বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের কার্যক্রম ক্যাম্পাসে সুসংগঠিত না হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরিক্ষায় নবীনদের তারেক রহমানের পক্ষ থেকে সালাম ও শুভেচ্ছা জানান এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে তার বিভিন্ন পোস্টারিং দেখা গেছে ক্যাম্পাসসহ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে।

তার মধ্যে গত ১/২ মাস আগে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন থেকে আয়োজিত বিজ্ঞান মেলা এবং ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে তার নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পোস্টারিং করা হয় যা সত্যি প্রশংসনীয়।

একাধিক শিক্ষার্থীদের কাছে ‘কেমন নেতৃত্ব চান’ জনতে চাইলে তারা বলেন, আমরা শিক্ষার্থী, ডিরেক্ট কোনো ছাত্রসংগঠনে জড়িত নই, তবে সাধারন শিক্ষার্থীদের দাবী আদায়ে সোচ্চার, বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের অনিয়মের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে পারবে এমন নেতৃত্ব চাই। এদিক বিবেচনায় মোস্তাফিজুর রহমান শুভ নিঃসন্দেহে এগিয়ে। আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয় উন্মুক্ত রাজনীতির চর্চা হোক। সকল ছাত্র সংগঠনগুলো ক্যাম্পাসে সহাবস্থান নিক।

সদস্য সচিব পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন একাধিক ব্যাক্তি, তাদের মধ্যে সহ-সভাপতি এমদাদুল হক ও প্রচার সম্পাদক -আবুল বাশার। তবে সাংগঠনিক ভাবে আবুল বাশার সদস্য সচিব পদে এগিয়ে। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ম ব্যাচের শিক্সার্থী, লালমাই উপজেলার সন্তান, তার বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষাজীবনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দ্বারা একাদিক হামলার কারনে সম্পন্ন করতে না পারলেও সন্ধ্যাকালিন কোর্সে ভর্তি হয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের পূরাতন এবং নতুন সদস্যদের নিয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভার মধ্য দিয়ে বর্তমান কমিটির আনুষ্ঠানিক মেয়াদ শেষ হবার এবং নতুন অভিভাবক নির্বাচনের পথ উন্মুক্ত হয়েছে।