Tag Archives: কুমিল্লা সেনাবাহিনী

দেশের যেকোনো প্রয়োজনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী মানুষের পাশে থাকবে – সেনাপ্রধান

ডেস্ক রিপোর্ট:

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, ‘অতীতের মতো আগামী দিনেও দেশের যেকোনো প্রয়োজনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী মানুষের পাশে থাকবে। যেমনটি এই করোনার সময়ে ছিল।’

রবিবার দুপুরে চাঁদপুরের মতলব উত্তরে দক্ষিণ টরকী এলাকায় তার বাবা আব্দুল ওয়াদুদ সরকারের নামে প্রতিষ্ঠিত মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র উদ্বোধন শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সেনাপ্রধান এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে আমাদের সীমান্তে তারা বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হচ্ছে। এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে কোনো ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ নেই। সরকারের নির্দেশে দেশের যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলার কাজে এগিয়ে যাচ্ছে সেনাবাহিনী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নূরুল আমিন রুহুল, জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ, জেলা পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান, জেলা সিভিল সার্জন ডা. সাখাওয়াত উল্লাহ, জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপপরিচালক ডা. মো. ইলিয়াসসহ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তরা।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ কুদ্দুস , কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান মেজর (অব:) মোহাম্মদ আলী সুমন এবং  ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ  ।

দুপুরে তাঁর গ্রামের বাড়িতে এই হাসপাতাল উদ্বোধন শেষে কুমিল্লা সেনানিবাসের উদ্দেশে তিনি রওনা দেন।

কুমিল্লা সেনাবাহিনীর ৪৪ পদাতিক ব্রিগেডের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার:

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কুমিল্লা এরিয়ার  ৪৪ পদাতিক ব্রিগেডের পরিচালনায় দি ম্যাজেষ্টিক এয়ারবোর্ন এর আয়োজনে  কুমিল্লার আলেখারচর বিশ্বরোড, দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ, সাহেবনগরের রাজাপুরে দরিদ্র ও অসহায় ১ শত মানুষের মাঝে ত্রাণ  এবং ৬৫ জনকে শীতবস্ত্র হিসেবে কম্বল বিতরণ করা হয়।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) সকালে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সেনাবাহিনীর মেজর হাসান, ক্যাপ্টেন মুহতাসিম, ক্যাপ্টেন জোবায়ের, লেফট্যানেন্ট মুসরাতুল ও ল্যাফট্যানেন্ট আফিফ প্রমুখ।

কুমিল্লা সেনাবাহিনীর ৩১ বীরের উদ্যোগে অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ

ইসতিয়াক আহমেদ :

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কুমিল্লা এরিয়ার ৪৪ পদাতিক ব্রিগেডের পরিচালনায় উজ্জীবিত একত্রিশ ব্যাটালিয়ন কয়েক শতাধিক  অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) বেলা ১১ টায় কুমিল্লার বেলতলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসব ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন উজ্জীবিত একত্রিশ (৩১ বীর) ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো: সাব্বির হাসান,পিএসসি। এ সময় এই  ব্যাটালিয়নের  অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

৩১ বীর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো: সাব্বির হাসান,পিএসসি বলেন, ববাংলাদেশ সেনাবাহিনী কুমিল্লা এরিয়ার ৪৪ পদাতিক ব্রিগেডের সার্বিক পরিচালনায় আমরা উজ্জীবিত একত্রিশ ব্যাটালিয়ন গরীব-অসহায় মানুষের মাঝে শীতকালীন শীতবস্ত্র ও ত্রাণ বিতরণ করে আসছি। মূলত দু:স্থ মানুষের পাশে দাড়ানো সেনাবাহিনীর একটি প্রয়াস। সেই প্রয়াসেই এই এলাকার অসহায় মানুষকে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র দিয়ে সহায়তা করা। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এই মানবিক কর্মকান্ড অব্যাহত থাকবে।

 

বুড়িচংয়ে ৫২০ জন অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ

নাছরিন আক্তার হীরা:
কুমিল্লা সেনাবাহিনীর ৬ ইষ্ট বেংগলের উদ্যোগে জেলার বুড়িচং উপজেলায় স্থানীয় ৫২০ জন দু:স্থ ও অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

শনিবার বেলা ১১ টায় উপজেলার নিমসার ইউনিয়নের শিকারপুর এলাকায় ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের অধিনস্থ ১০১ পদাতিক ব্রিগেড এর ৬ ইষ্ট বেংগল টিম সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ৫২০ জন অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ।

শীতবস্ত্র ও ত্রাণ বিতরণ করেন ৬ ইস্ট বেংগলের অধিনায়ক লে: কর্ণেল মুনতাসির রহমান চৌধুরী, পিএসসি। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত উপ-অধিনায়ক মেজর মো: মাহফুজ আলমসহ অন্যান্য সদস্যগণ।

৬ ইষ্ট বেংগল এর অধিনায়ক লে: কর্ণেল মুনতাসির রহমান চৌধুরী, পিএসসি বলেন, “ ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও এরিয়া কমান্ডার, কুমিল্লা এরিয়ার উদ্যোগে ১০১ পদাতিক ব্রিগেডের নির্দেশনায় প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও এই কর্মসূচীকে সাফল্যমন্ডিত করার লক্ষ্যে নিমসার ইউনিয়নের স্থানীয় গরীব, দু:স্থ ও ছিন্নমূল পরিবারের মাঝে এ সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। ভবিষ্যতেও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এ ধরনের আর্তমানবতার সেবা ও দেশগঠনমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

উল্লেখ্য যে, বিগত বছরের ২৭ ডিসেম্বর থেকে ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের অধিনস্থ ১০১ পদাতিক ব্রিগেড এর ৬ ইষ্ট বেংগল নিমসার এলাকায় শীতকালীন অনুশীলন শুরু করে। অনুশীলনের শুরু থেকেই বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় গরীব-দু:স্থদের মাঝে ৬ ইষ্ট বেংগল ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণের পাশাপাশি বিভিন্ন জনসেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এছাড়া প্রতিবছরই শীতকালীন প্রশিক্ষণ চলাকালিন সময়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী স্থানীয় দু:স্থদের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করে থাকে।

কুমিল্লা মহাসড়কের বেদে পল্লীতে সেনাবাহিনীর বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও শীত বস্ত্র বিতরণ

নাছরিন আক্তার হীরা:

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার হাড়িখোলা বেদে পল্লীর গরীব , দুস্থ ও ছিন্নমুল বেদে পরিবারের সদস্যদের মাঝে স্থানীয় কুরছাপ হাইস্কুলে সেনা মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করে আজ দিনব্যাপি বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ঔষধসামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ সময় বেদে পল্লীর শতাধিক মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়।

সেনাবাহিনীর ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের ৩৫ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের ২৫ সদস্যের একটি চিকিৎসক দল এ সেবা কার্য্যক্রম আয়োজন করে। কুমিল্লা সেনানিবাসের ১০১ পদাতিক ব্রিগেডের মাইটি সিক্সার্সের সহযোগিতায় এ ক্যাম্পে চিকিৎসা সেবা প্রদানে অংশ নেন ক্যাপ্টেন আয়েশা সিদ্দিকা, ক্যাপ্টেন সামিহা জামান, ক্যাপ্টেন জেরিন আফরোজ ও ক্যাপ্টেন আসিফ ইকবালসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ । এছাড়া বেদে পল্লীর পরিবারের মাঝে ঘরে ঘরে শীতবস্ত্র পৌঁছে দেন এ দলের সদস্যগন, এ সময় তাদের মধ্যে করোনা প্রতিরোধে মাস্কসহ অন্যান্য সামগ্রীও বিতরণ করা হয়।

৩৫ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের অধিনায়ক লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান জানান, করোনা মহামারীর শুরুতে সেনাবাহিনীর কুমিল্লা এরিয়ার আটটি মেডিক্যাল টিম দায়িত্বপূর্ণ ছয়টি জেলায় গরীব ও দুস্থ সাধারণের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান, করোনা সচেতনতা সৃষ্টি ও গর্ভবতী মায়েদের মধ্যে চিকিৎসা সেবা ও বিনামুল্যে ঔষধ বিতরন কার্য্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। জিওসি এবং এরিয়া কমান্ডার মহোদয়ের উদ্যোগ ও নির্দেশনায় এ কর্মসূচীকে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টীর আরো দোড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে দায়িত্বপূর্ণ এলাকার বস্তি, বেদে পল্লী , এতিমখানা ইত্যাদি দুস্থ অঞ্চলের মানুষদের মাঝে এ সেবা কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে।

 

 

কুমিল্লা মহাসড়কে সেনাবাহিনীর বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা পেলেন সহস্রাধিক মানুষ 

নাছরিন আক্তার হীরা:

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় হাড়িখোলা বেদে পল্লীর গরীব , দুস্থ ও ছিন্নমুল বেদে পরিবারের সদস্যসহ স্থানীয় প্রায় এক হাজার ২ শত মানুষকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা ও ঔষধ সামগ্রী বিতরণ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, কুমিল্লা এরিয়া।

বুধবার (৬ জানুয়ারি) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কুরছাপ হাইস্কুলে সেনা মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করে দিনব্যাপি বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ঔষধসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

সেনাবাহিনীর ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের ৩৫ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের ২৫ সদস্যের একটি চিকিৎসক দল এ সেবা কার্য্যক্রম আয়োজন করে। কুমিল্লা সেনানিবাসের ১০১ পদাতিক ব্রিগেডের মাইটি সিক্সার্সের সহযোগিতায় এ ক্যাম্পে চিকিৎসা সেবা প্রদানে অংশ নেন ক্যাপ্টেন আয়েশা সিদ্দিকা, ক্যাপ্টেন সামিহা জামান, ক্যাপ্টেন জেরিন আফরোজ ও ক্যাপ্টেন আসিফ ইকবালসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ ।

৩৫ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের অধিনায়ক লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান জানান, করোনা মহামারীর শুরুতে সেনাবাহিনীর কুমিল্লা এরিয়ার আটটি মেডিক্যাল টিম দায়িত্ত্বপূর্ণ ছয়টি জেলায় গরীব ও দুস্থ সাধারণের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান, করোনা সচেতনতা সৃষ্টি ও গর্ভবতী মায়েদের মধ্যে চিকিৎসা সেবা ও বিনামুল্যে ঔষধ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। জিওসি এবং এরিয়া কমান্ডার মহোদয়ের উদ্যোগ ও নির্দেশনায় এ কর্মসূচীকে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির আরো দোড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে দায়িত্বপূর্ণ এলাকার বস্তি, বেদে পল্লী , এতিমখানা ইত্যাদি দুস্থ অঞ্চলের মানুষদের মাঝে এ সেবা কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে।

আজ দিনব্যাপি প্রায় সহস্রাধিক বিভিন্ন ধরনের রোগীর মাঝে চিকিৎসা সেবা, বিনামূল্যে ঔষধ ও মাষ্ক প্রদান করা হয় ।

সেনাবাহিনীর ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের এডিএমএস ও জেলার সিভিল সার্জন ডা. নিয়াতুজ্জামান কার্যক্রম চলাকালে এ চিকিৎসা শিবির পরিদর্শন করেন।

সেনাবাহিনীর সাইক্লিং এক্সপেডিশন টিম এখন কুমিল্লায়

নাছরিন আক্তার হীরা:
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে “মুজিব বর্ষ সাইক্লিং এক্সপেডিশন-২০২০” এর সাইক্লিং দল আজ রবিবার কুমিল্লার দাউদকান্দির হাসানপুর এস এন সরকারী ডিগ্রী কলেজে এসে পৌছে। পরে সাইক্লিং এক্সপেডিশন দল কুমিল্লা সেনানিবাসে আগমন করলে উক্ত সেনানিবাসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ তাদের অর্ভ্যথনা জানান।

উল্লেখ্য যে, সরকার চলতি বছরের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ  সাল পর্যন্ত সময়কালকে মুজিব বর্ষ হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৮ নভেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ও সৈনিকসহ সর্বমোট ১০০ জন সেনাসদস্য অদম্য শক্তি ও সাহসিকতার সাথে তেঁতুলিয়া বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ১০১০ কিঃমিঃ পথ পাড়ি জমানোর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। সম্পূর্ণ পথে জাতির পিতার জন্মশত বর্ষের চেতনাকে আরো তাৎপর্যপূর্ণ করে তোলার প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হয়েছে। একই সাথে একাত্তরের চেতনাকে মহিমান্বিত করে তোলার জন্য ৭১ জন সাইক্লিষ্ট এই অপরাজেয় সাইক্লিং এক্সপেডিশন চলমান রাখবে। আগামী ৩ ডিসেম্বর টেকনাফে (শাহ পরীর দ্বীপ) মুজিব বর্ষ সাইক্লিং এক্সপেডিশন-২০২০ শেষ হবে।