Tag Archives: কুমিল্লা-১ আসনে আয় বেশি সুবিদ আলীর-মামলা বেশি ড.মোশাররফের

কুমিল্লা-১ আসনে আয় বেশি সুবিদ আলীর-মামলা বেশি ড.মোশাররফের

 

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ
কুমিল্লা-১(দাউদকান্দি-মেঘনা) আসনে মূলত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মেজর(অব.) সুবিদ আলী ভুইয়া ও বিএনপির প্রার্থী ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেনের মধ্যে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশনে প্রার্থীদের জমা দেয়া হলফনামা থেকে জানা যায়, সুবিদ আলী ভুইয়ার আয় বেশি। মামলা বেশি বিএনপির প্রার্থী ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেনের।

হলফনামায় উল্লেখ করা হয়, সুবিদ আলী ভুইয়ার বাৎসরিক আয় এক কোটি ১২ লাখ ৪২ হাজার ২৩৫টাকা। তিনি কৃষি ও মৎস্য,বাড়ি ভাড়া,সংসদ সদস্যের সম্মানী এবং পেনশন,ব্যাংক সুদ থেকে এই টাকা আয় করেন। তার কাছে নগদ টাকা আছে ছয় লক্ষ ৫২হাজার ৭১৭টাকা। স্ত্রীর নিকট আছে ছয় লক্ষ ৩৬হাজার ৩১৫টাকা। ব্যাংকে জমা আছে ২৫ লক্ষ ১১হাজার৫৮০ টাকা। ব্যাংকে স্ত্রীর টাকা রয়েছে ছয় লক্ষ ২৬ হাজার ৮৫০টাকা, তার কাছে থাকা গাড়ির মূল্য ৬৪লক্ষ ২০হাজার টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ৩৪হাজার ১২০টাকার, ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী রয়েছে দুই লক্ষ ৭০ হাজার টাকার। আসবাবপত্র রয়েছে আড়াই লক্ষ টাকার।

ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন বছরে আয় করেন এক কোটি নয় লক্ষ ৭৯হাজার ৪৪০টাকা। তিনি আয় করেন কৃষি,বাড়ি ভাড়া, ব্যাংক আমানত সুদ থেকে। তার কাছে নগদ টাকা আছে চার লক্ষ এক হাজার ৫৪৯টাকা। ব্যাংকে জমা আছে নিজের নামে ১৮ লক্ষ ১৩হাজার ১৬৩ টাকা,স্ত্রীর নামে চার লক্ষ ৪১ হাজার ৪৭টাকা, তার কাছে থাকা গাড়ির মূল্য ১২লক্ষ ৩২হাজার ৫৫৩ টাকা,স্ত্রী প্রাইভেট কারের মূল্য ২০লক্ষ ৫০ হাজার। স্বর্ণ রয়েছে ১৫হাজার টাকার, তার স্ত্রীর নিকট রয়েছে বিবাহের উপহার ৪০ভরি স্বর্ণ, নিজের ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী রয়েছে তিন লক্ষ ৫২ হাজার টাকার,স্ত্রীর রয়েছে তিন লক্ষ ৮০হাজার টাকার। নিজ নামে আসবাবপত্র রয়েছে তিন লক্ষ টাকার,স্ত্রীর নামে রয়েছে পাঁচ লক্ষ টাকার আসবাবপত্র। এদিকে মামলা বেশি ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেনের। তার বিরুদ্ধে ১২টি ফৌজদারী মামলা রয়েছে। এগুলোতে তিনি জামিনে আছেন। অতীতেও তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা দায়ের করা হয়। সেগুলো বাতিল করা হয়েছে। এদিকে সুবিদ আলী ভুইয়ার তিনটি মামলা ছিলো। সেগুলো স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয় প্রত্যাহার করেছে।

সুজন কুমিল্লার সাধারণ সম্পাদক আলী আকবর মাসুম বলেন, হলফনামায় দেয়া প্রার্থীদের তথ্য নিয়ে মানুষের মনে সন্দেহ রয়েছে। মানুষ মনে করে হলফনামা যাছাই করে ভুল তথ্য পেলে ওই প্রার্থীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।