Tag Archives: কৌশলী প্রচারণায় ব্যস্ত কুমিল্লার সাংসদ প্রার্থীরা

কৌশলী প্রচারণায় সরব কুমিল্লার সাংসদ প্রার্থীরা

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন যাচাই বাছাই শেষ হয়েছে। দলীয় মনোনয়নও প্রায় শেষ পর্যায়ে। তবে এখনো প্রতীক বরাদ্দ হয়নি। তাই আনুষ্ঠানিকভাবে কোন প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারণা করতে পারবে না। তাই বলে থেমে নেই কুমিল্লার ১১ সংসদীয় আসনের দুই জোটের প্রার্থীরা। উঠোন বৈঠক , চা চক্র ও মত বিনিময়ের কৌশলে নির্বাচনী প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন প্রার্থীরা। তবে এক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে আ’লীগ তথা মহাজোটের প্রার্থীরা। তারা অনেকটা প্রকাশ্যেই প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা বেশ গোপনে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

কুমিল্লা-১ ও ২ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এবং বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন দাউদকান্দি ও মেঘনার নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করছেন। তিনি জানান, দেশে গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার আজ শৃংখলিত। এই সরকারের শাসনামলে কোন নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। এমনি এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতিতে বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে।

এদিকে একই আসনের আ’লীগের প্রার্থী দলীয় প্রার্থী এমপি মেজর জেনারেল(অবঃ)সুবিদ আলী ভূইয়া দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলায় উঠোন বৈঠক ও মতবিনিময় সভা করছেন। তিনি জানান, সব বিভেদ ভূলে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশ বাস্তবায়নে ব্যাক্তি স্বার্থ ত্যাগ করে দলের বৃহত্তর স্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে সবাইকে কাজ করতে হবে। বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত।

কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনে আ’লীগ প্রার্থী এমপি ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুণ উঠোন বৈঠক ও মত বিনিময় করে যাচ্ছেন। তিনি জানান, আমি গত ৫ বছর মুরাদনগরবাসির জন্য কাজ করেছি। সব জায়গায় উন্নয়ন হয়েছে। আশা করি জনগণের রায় আমার পক্ষেই যাবে।

অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী কেএম মজিবুল হক এখনো নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেননি। তিনি জানান, আমি নির্বাচন কমিশনের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল । তাই প্রতিক বরাদ্দ দেওয়ার পরই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবো। আমার নির্বাচনের একটি শ্লোগান থাকবে-“প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করুণ,সম্প্রীতির রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করুণ”। আমার এ শ্লোগান যারা পচ্ছন্দ করবে, তারাই আমাকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে বিজয়ী করে মুরাদনগর বাসিকে সেবা করার সুযোগ করে দিবেন। বিজয়ের বিষয়ে আমি ইনশাল্লাহ শতভাগ আশাবাদি ।

কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে মাঠে সরব রয়েছেন আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব অধ্যাপক মো.আলী আশরাফ এমপি। বিভিন্ন ইউনিয়নে তিনি নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করছেন। ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করছেন। এদিকে বাবার জন্য নৌকায় ভোট চাইতে মাঠে রয়েছেন এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মুনতাকিম আশরাফ । উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৪ থেকে ৫ টি উঠান বৈঠকে যোগদান করছেন মুনতাকিম আশরাফ টিটু । মুনতাকিম আশরাফ টিটু জানান, নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে অধ্যাপক আলী আশরাফ এমপিকে বিজয়ী করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। আমার বাবা চান্দিনাবাসির কল্যাণে কাজ করেছেন। ভবিষ্যতেও করবেন । আশা করি চান্দিনাবাসি আবার বাবার ভোটে জয়যুক্ত করে আবারো কাজের সুযোগ করে দিবেন।

কুমিল্লা-৫  (বুড়িচং- বি পাড়া) আসনে আ’লীগ দলীয় প্রার্থী এমপি আব্দুল মতিন খসরু উঠোন বৈঠক, মা সমাবেশে অংশ নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। অপরদিকে বিএনপির প্রার্থীকে এখনো নির্বাচনী প্রচারণায় দেখা যায়নি।

কুমিল্লা-৬ (সদর ও সদর দক্ষিণের আংশিক) আসনে উঠান বৈঠক করে ব্যস্ত সময় পার করছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী এমপি আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার। তিনি বিভিন্ন ইউনিয়নে উঠোন বৈঠক ও মহিলা সমাবেশ করে তরুণ ভোটারদের মনোআকর্ষণ করার চেষ্টা করছেন।
তিনি জানান, স্বাধীনতার পরে দুই মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারের মতো উন্নয়ন কেউ করেনি। মহানগরী থেকে গ্রামের রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ, কালভার্ট, সেতু উন্নয়নের ছোঁয়া পেয়েছে। কুমিল্লা সদরের মাঝে প্রবাহিত গোমতী নদীর উপরে তিনটি সেতু নির্মাণ করেছি। এলাকা থেকে ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ অপরাধ কমে গেছে। তাই জনগণের ভোটের রায় নৌকার পক্ষেই থাকবে।

এদিকে, বিএনপির প্রার্থী কুমিল্লা (দ:) জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রশিদ ইয়াছিন বাড়িতে বসে, বিভিন্ন ওয়ার্ডে গিয়ে কুশল বিনিময়, চা চক্রসহ নানা কার্যক্রম চালাচ্ছেন। আমিনুর রশিদ ইয়াছিন বলেন, গণতন্ত্র, মানুষের ভোটের অধিকার, বাক স্বাধীনতার অধিকার ফিরিয়ে আনতে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। আশা করি অবাধ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা একটি স্বৈরশাসকমুক্ত বাংলাদেশ উপহার দিতে পারবো।

কুমিল্লা-১০ (নাঙ্গলকোট-লালমাই) আসনে আ’লীগের প্রার্থী পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালও বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে উঠোন বৈঠক করে ভোটারদের সাথে মতবিনিময় করছেন। লালমাইয়ের কনকশ্রী মধ্যমপাড়ার বাইন্না বাড়িতে আয়োজিত উঠান বৈঠকে নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আপনাদের কাছে একটা কথাই বলে যাই, তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করিনি, মামলা করব না। ২৭ তারিখ পর্যন্ত মামলা করব না। ২৭ তারিখের পর কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। আমি আবারও বলছি; জামায়াত কিংবা শিবির অথবা যে দলেরই হোক, তাদের চৌদ্দগোষ্ঠী শেষ করে ফেলব, ইনশা-আল্লাহ। এরা এখানে থাকতে পারবে না, আপনারা খুঁজে দেখবেন। যদি ২৭ তারিখের মধ্যে এলাকা ছেড়ে চলে না যায়, তাহলে তাদের রক্ষা নাই। ‘আগামী নির্বাচনে আমাকে নয়, উন্নয়নের মার্কা নৌকাকে বিজয়ী করে তাদের প্রতিরোধ করতে হবে।’

কুমিল্লা-১১ ( চৌদ্দগ্রাম) আসনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব ও তাঁর নেতাকর্মীরা প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নে উঠোন বেঠক ও মত বিনিময় সভা করছেন। অপরদিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা ডা.আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের বেশ গোপনে প্রচারণা চালাচ্ছেন। প্রকাশ্যে তাদের কোন কার্যক্রম নেই।

চৌদ্দগ্রাম আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র মো: মিজানুর রহমান জানান, গত ১০ বছরে রেলপথমন্ত্রী আমাদের প্রিয় নেতা মুজিবুল হক চৌদ্দগ্রামে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। চৌদ্দগ্রামে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি বিধবা ভাতা, বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান, শিক্ষিত যুবকদের চাকুরীসহ এমন কোন ক্ষেত্র নেই যেখানে মানুষদের জীবনমানের উন্নয়ন হয়নি। যার কারনে এ আসনে জননেতা মুজিবুল হক মুজিবের বিকল্প কিছু ভাবছেনা সাধারণ ভোটাররা।
উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক ও কাশিনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: মোশারেফ হোসেন বলেন, যে দল সাধারণ মানুষকে পেট্রোল বোমা দিয়ে পুড়িয়ে মারে সে দলের প্রার্থীকে কখনোই সাধারণ মানুষ ভোট দিবেনা। এখানে মুজিবুল হকের বিকল্প কেউ নাই। উনার জয় হবে সুনিশ্চিত।

এদিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর দৃশ্যমান কোন প্রচারণা না থাকলেও নানা কৌশলে গোপনীয়তা রক্ষা করে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। কুমিল্লা (দ:) জেলা জামায়েতের এ্যাসিস্যান্ট সেক্রেটারী এড. শাহাজান জানান, ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ডা.তাহেরের পক্ষে আমরা নির্বাচনী আচরণ বিধি মেনে প্রচার-প্রচারণা করবো। আগামী ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পরেই নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রচার-প্রচারের কথা বলা হয়েছে। সেদিন আমরা প্রচারণায় নামবো। এমনিতে আমাদের নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেফতার করছে পুলিশ। একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়। আমরা আশা করবো সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। নির্বাচন কমিশন একটি অবাধ সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে পারলে চৌদ্দগ্রামে ধানের শীষের প্রার্থী বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।