Tag Archives: খাইয়া ফালামু একেবারে’ (ভিডিও)

আমি কুমিল্লা জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক, খাইয়া ফালামু একেবারে’ (ভিডিও)

 

 

অনলাইন ডেস্কঃ

মুদি দোকানির সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়েছেন আওয়ামী লীগের এক নেতা। দোকানিকে একনাগাড়ে বকাবকি করছেন তিনি। অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালও করছেন।

 

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে এমন একটি ভিডিও।

 

 

সূত্র জানায়, মুদি দোকানির ওপর চড়াও হওয়া ওই নেতার নাম এম হুমায়ুন মাহমুদ। আগামী ৯ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এম হুমায়ুন মাহমুদ ওই সম্মেলনের প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব এবং উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী।

 

গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ১৬ মিনিটে মোস্তফা মাহবুব বাপ্পি নামের এক ব্যক্তি তার ব্যক্তিগত ফেইসবুক অ্যাকাউন্টে ভিডিওটি পোস্ট করেন।

 

আর এরপরই ভিডিওটি ফেইসবুকে হু হু করে ছড়িয়ে পড়ে।

 

জানা গেছে, দোকানির সঙ্গে ওই আ’লীগ নেতার এমন আচরণের ঘটনাটি ঘটেঝে রাজধানীর বাংলামোটরের ১ নম্বর ইস্কাটন গার্ডেন রোডের ‘মেসার্স বাবুল স্টোর’র সামনে। গাড়ি পার্কিং নিয়ে দোকানির সঙ্গে এই বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হন কুমিল্লার সেই আ’লীগ নেতা।

 

ফেসবুকে ভাইরাল ওই ভিডিওতে দেখা যায়, আ’লীগ নেতা হুমায়ুন মাহমুদ ওই দোকানিকে চিৎকার করে বলছেন ‘ওই ব্যাটা আমাকে জয় বাংলা শিখাও?’। তখন ওই মুদি দোকানি বলেন, ‘আমি নড়িয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি।’

 

এ কথা শুনে তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠেন এম হুমায়ুন মাহমুদ। ক্ষুব্ধ হয়ে ওই দোকানিকে গালাগাল শুরু করেন তিনি।

 

এম হুমায়ুন মাহমুদ বলতে থাকেন, ‘ওই তোর নড়িয়ার গুষ্টি কিলাই, আমি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, খাইয়া ফালামু একেবারে, বাইরাইয়া এক্কেবারে সোজা কইরা দিমু।’

 

‘কথা সুন্দর করে বলেন বলে প্রতিবাদ জানায় মুদি দোকানি।’

 

এটা শুনে ওই নেতা বলেন, ‘দাড়া, তোরে আমি শেখাই, তোরে আমি শেখাই।’ পরে নিজের মোবাইল ফোনের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে প্রস্থান করেন এম হুমায়ুন।

 

ভিডিওতে ওই নেতা কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না হয়েও নিজেকে মুদি দোকানির কাছে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলে প্রকাশ্যে দাবি করছেন।

 

এদিকে এম হুমায়ূন মাহমুদের এমন আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দেবিদ্বারের তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

 

স্থানীয় একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বলেন, মুদি দোকানির সঙ্গে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের নেতা হুমায়ুন মাহমুদের এমন আচরণ দুঃখজনক। তার আচরণে আমরা সংগঠন থেকে হতাশ হয়েছি। দেশ ও দলের স্বার্থে হলেও তার এমন আচরণের পরিবর্তন আনা জরুরি।