Tag Archives: খেটে খাওয়া মানুষ বিল্লাল হোসেনের জীবনের গল্প

খেটে খাওয়া মানুষ বিল্লাল হোসেনের জীবনের গল্প

 

মোঃ রুহুল আমিন:

বেশ কয়েক মাস পর ব্যক্তিগত ও দাপ্তরিক প্রয়োজনে ২৮ মার্চ (রবিবার) রাত পৌণে ১ টায়  ঢাকায় এসে পৌঁছেছি আমি। গ্রাম থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছি রাত ৮টার মধ্যে ঢাকায় পৌঁছে যাবো এমন পরিকল্পনা নিয়ে । সারাদিন হেফাজতে ইসলামের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল শেষে রাস্তা ফ্রি থাকবে এই চিন্তা থেকে।

উদ্দীপ্ত যৌবনের ৩৫টি বছর যে শহরে পার করেছি আজ সেই শহর বড্ড অচেনা মনে হয়। এই শহরে আমি অনেক বেমানান হয়ত। ঢাকা শহরের এমন কোন গলি নেই যা আমার অচেনা। কিন্তু আজ ঢাকাকে অনেক অচেনা শহর বলে মনে হচ্ছে। সে যাকগে রাত পৌণে ১ টায় যখন বাস স্ট্যান্ডে পৌঁছলাম রাস্তায় নেমে ঠায় দাঁড়িয়ে আছি কোন রিকশা-সিএনজি নেই। মিনিট দশেক পর হঠাৎ একটি ব্যাটারি চালিত রিকশা সামনে এসে দাঁড়ালো। সালাম দিয়ে জানতে চাইলো স্যার কই যাবেন। ব্যাটারি চালিত রিকশা ঢাকা শহরে চলতে দেয়না তাই তেমন আগ্রহ দেখালাম না,মনে মনে ভাবছিলাম কোন বাহন যখন নেই তবে এই রিকশাটি আমার এই রাতের সঙ্গী হলে দোষ কি? মিনিট চারেক চুপচাপ থেকে জানতে চাইলাম শহরে রিকশা নিষিদ্ধ কিন্তু তুমি আমাকে গন্তব্যে পৌঁছাবে কিভাবে? রিকশা চালক জানালো রাত নয়টার পর শহরে ব্যাটারি চালিত রিকশা চলাচলে কোন সমস্যা হয় না। ওর কথায় দৃড়তা দেখে মনে মনে ভাবলাম ও আমাকে গন্তব্যে নিয়ে যেতে পারবে। ভাড়া কত জানতে চাইলাম কিন্তু সে এমন ভাড়া চাইলো মনে হলো এশহরে হয়তো সে নতুন এসেছে। জানতে চাইলাম তুমি আমার গন্তব্যের ঐ জায়গাটা চিন? জবাবে সে বললো হ্যাঁ চিনবো না কেন? আমি প্রতিদিন রাত ৯টা থেকে সকাল ৭ পর্যন্ত রিকশা চালাই। সারা শহর আমার চেনা জানা। আমি ভাড়া নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-গাবতলি যাই। শহরের কোন জায়গা আমার অচেনা নয়। এত কথা হল কিন্তু ওর নাম পরিচয় জানা হলো না। জানতে চাইলাম তোমার নাম কি ভাই? জবাব দিলো বিল্লাল হোসেন। বাড়ি শরিয়তপুর জেলার সুখিপুর উপজেলায়। ২পুত্র সন্তানের পিতা সে। ৪ সদস্যের পরিবার নিয়ে গত আঠারো বছর যাবত ঢাকায় রিকশা চালিয়ে জীবন যাপন করেন। বললাম আঠারো বছর সেতো মেলা সময়! এত বছরে রিকশা চালিয়ে তুমি একটি সিএনজি বা অন্যকোন বাহন কিনতে পারনি? জবাব দিলো না স্যার পারিনি। কারন জানতে চাইলে সে বললো চার সদস্য নিয়ে ৫ হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে শহরের মান্ডা এলাকায় থাকেন। করোনা ভাইরাসের পূর্বে দৈনিক আয় ছিলো ১২-১৫ টাকা আর করোনার শুরু থেকে এখন তার আয় ৮-৯ শত টাকা। বাড়িতে মা-বাবা’র জন্য টাকা পাঠাতে হয়। খরচ শেষে হাতে তেমন জমানো টাকা থাকে না। নিজে সিএনজি চালাতে পারেন কিন্তু কেউ ভাড়ায় সিএনজি দিতে চায় না। কথায় কথায় আমি আমার গন্তব্যে পৌঁছে গেছি।

জানতে চাইলাম জীবনের কোন কথা মানুষকে বলতে চান কি-না বিল্লাহ বললো আমাগো আবার কি কথা রিকশা চালাই পরিবার পরিজন নিয়ে চলছে আমাগো সংসার আমাগো কথা কে শুনবে। অতঃপর ভাড়া চুকিয়ে আমি আমার থাকার জায়গার পথ ধরলাম বিল্লাল রিকশার ক্রিং ক্রিং বেল বাজিয়ে অন্য যাত্রীকে গন্তব্যে পৌঁছে দিতে সামনে এগিয়ে গেল। এইভাবেই চলে বিল্লালদের জীবন। কপালের ঘাম পায়ে ফেলে হাড়ভাঙ্গা খাটুনিতে চলে তাদের দিন মাস বছর। জীবন চলে জীবনের নিয়মে। কারো জন্য অন্য কারো জীবন থেমে থাকে না।

লেখকঃ

মোঃ রুহুল আমিন, শিক্ষক ও সাংবাদিক