Tag Archives: খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ও কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ

খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ও কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ

স্টাফ রিপোর্টার:

ক্রিকেট খেলায় বহিরাগত খেলোয়াড় খেলানোর প্রতিবাদে কথাকাটাকাটির জেরে কুমিল্লা জিলা স্কুল এবং কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের  মধ্যে ব্যাপক  সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় একজন শিক্ষকসহ প্রায় ১০/১২ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। আহতদের প্রায় সবাই কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী।

বুধবার (১১ জানুয়ারি) দুপুরে কুমিল্লা জিলা স্কুল মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র ও কালেক্টরেট স্কুলের শিক্ষকরা জানায়, ৫১ তম শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার  ক্রিকেট ফাইনালে মুখোমুখি হয় কুমিল্লা জিলা স্কুল ও কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। ১৭ বছরের বয়স সীমাবদ্ধ এ খেলাটি ৬ ওভার করে। খেলায় প্রথমে টসে জিতে ব্যাট করে কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। জিলা স্কুলের অধিনায়কত্ব করেন স্নাতক  প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ইমন। যদি নিয়ম অনুযায়ী ইমন খেলতে পারে না। কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজ প্রথমে ব্যাট করে ৬ ওভারে ৬৯ রান করেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই এক হারিয়ে ফেলে জিলাস্কুল। প্রথম উইকেট পড়ার পর ব্যাট করতে নামেন হাইস্কুলের শিক্ষার্থী শাকিল। বহিরাগত  খেলোয়াড় খেলতে নামায় এ সময় কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা মাঠের আম্পায়ার ইকবাল ও আনোয়ারের কাছে এর প্রতিবাদ করে। এ সময় খেলোয়াড় ও আম্পায়ারের সাথে জিলা স্কুলের খেলোয়াড়দের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জিলাস্কুলের শিক্ষক ওবায়েদ খেলা বন্ধ ঘোষণা করেন। এরপর কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষকরা তাদের  শিক্ষার্থীদের নিয়ে বের হওয়ার সময় জিলা স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থীরা স্কুলের দুই ফটক আটকে দিয়ে কালেক্টরেট স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করে। এ সময় কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক সামিউলসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়টি নিয়ে চারপাশে বেশ সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে জানতে কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ নার্গিস আক্তারের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেন নি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আব্দুল হাফিজ  জানান, একটা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে শুনেছি। আমাদের অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা সংঘর্ষ করেনি। সাবেক শিক্ষার্থীরা এমন করেছে, এটাই বলেছে কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষকরা। বিষয়টি নিয়ে কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের সাথে কথা বলেছি। আশা করি ভাল একটি সমাধান হবে। আপাতত পরিস্থিতি শান্ত। শিক্ষার্থীরা যার যার বাড়িতে চলে গেছে। কোন উত্তেজনা নেই। বহিরাগত খেলোয়াড় খেলানোর বিষয়ে তিনি বলেন, আমি এ বিষয়টি জানতাম না। পরে শুনেছি। সংশ্লিষ্ট শিক্ষককে জিগেস করেছি এ বিষয়ে । তিনিও জানতেন না। এটা দু:খজনক। আমাদেরই তো ভাল মানের অনেক খেলোয়াড় রয়েছে। বহিরাগত খেলোয়াড়ের কোন প্রয়োজন ছিল না। আমি শুনেছি কালেক্টরেট স্কুলের পক্ষে ২ জন বহিরাগত খেলোয়াড় খেলেছে।

তিনি আরো বলেন, আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলেছিলাম খেলায় যেহেতু উত্তেজনা থাকে সেহেতু পুলিশ রাখার জন্য। তাহলে পরিবেশ শান্ত থাকতো। আশা করি ভবিষ্যতে এমন অপ্রীতিকর ঘটনা আর হবে না।

বহিরাগত খেলোয়াড় খেলানোর বিষয়টি অস্বীকার করে কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক আতিকুল্লাহ ও শিক্ষক সোহেল রানা জানান, আমরা কোন বহিরাগত খেলোয়াড় খেলাইনি। যদি প্রমাণ থাকতো মাঠেই তারা  প্রতিবাদ করতে পারতো। আমরা যেমন তাদের বিষয়ে প্রমাণ দিয়েছি।