Tag Archives: গণধর্ষণ

ভোটের রাতে গণধর্ষণ: ১০ জনের ফাঁসি, ৬ জনের যাবজ্জীন

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের দিন রাতে বহুল আলোচিত নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলায় ১০ জনের ফাঁসি ও অপর ছয় আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাদের অর্থদন্ড করা হয়।

সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নোয়াখালী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক (জেলা জজ) ফাতেমা ফেরদৌস এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আদালতে কাঠগড়ায় পনের আসামি উপস্থিত ছিলেন এবং এক আসামি পলাতক ছিলেন।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সুবর্ণচরের মধ্যম বাগ্যা গ্রামের মো. সোহেল (৩৮), মো. হানিফ (৩০), স্বপন (৪২), মো. চৌধুরী (২৫), ইব্রাহীম খলিল বেচু (২৫), মো. বাদশা আলম বসু (৪০), আবুল হোসেন আবু (৪০), মোশারফ (৩৫), মো. সালাউদ্দিন (৩২), মো. জসিম উদ্দিন (৩২), মো. হাসান আলী বুলু (৪৫), মো. মুরাদ (২৮), মো. জামাল ওরফে হেঞ্জু মাঝি (২৮) ও মো. সোহেল (২৮)। আসামি মো. মিন্টু ওরফে হেলাল (২৮) ঘটনার পর থেকে পলাতক।

মামলা ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রাতে স্বামী-সন্তানদের বেঁধে রেখে এক নারীকে (৪০) মারধর ও গণধর্ষণ করা হয়। নির্যাতনের শিকার নারী চার সন্তানের জননী। নির্যাতিত নারীর অভিযোগ ছিল, ভোটকেন্দ্রে থাকা ব্যক্তিদের পছন্দের প্রতীকে ভোট না দেওয়ার জের ধরে ওই হামলা ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ঘটনাটি তখন দেশে-বিদেশে ব্যাপক আলোচিত হয়। ওই ঘটনার পরদিন (৩১ ডিসেম্বর) নির্যাতনের শিকার নারীর স্বামী বাদী হয়ে চর জব্বর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে মামলার তদন্ত শেষে সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কার হওয়া প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন মেম্বারসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে বিগত ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর ছালেহ আহম্মদ সোহেল খান বলেন, এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ ২৩ জন সাক্ষী উপস্থাপন করে। আসামি পক্ষের পাঁচজন সাফাই সাক্ষী প্রদান করে। তবে কোনো সাক্ষীই ভোট কেন্দ্রে পছন্দের প্রতীকে ভোট না দেওয়ায় জেরে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে তাদের বক্তব্যে উল্লেখ করেনি।

মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে তরুণীকে গণধর্ষণ, প্রেমিকসহ গ্রেপ্তার ২

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগে দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের কামাল উদ্দিনের ছেলে মোশারফ হোসেন সোহাগ (২৫) ও সুবর্ণচর উপজেলার চর আলাউদ্দিনের শাহাব উদ্দিনের ছেলে আলাউদ্দিন ওরফে সুমন (২২)।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) এ ঘটনায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভুক্তভোগী তরুণী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। এর আগে, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত রাত ১১টার দিকে উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভিকটিম পেশায় একজন শিক্ষানবিশ নার্স। তার সাথে বাড়ির পাশের একটি পোল্ট্রি খামারের শ্রমিক সুবর্ণচর উপজেলার বাসিন্দা সুমনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে প্রেমিক সুমন মুঠোফোনে কল করে প্রেমিকাকে গোপনে পোল্ট্রি খামারে ডেকে নেয়। এরপর তারা সেখানে শারীরিক সম্পর্কে জড়ায়। তখন খামারের অপর শ্রমিক মোশারফ হোসেন সোহাগ তাদেরকে দেখে ফেলে। এরপর সোহাগ কৌশলে ভিকটিম এবং তার প্রেমিককে সবাইকে বলে দেওয়ার হুমকি দেয়। একপর্যায়ে সোহাগ ভিকটিমের প্রেমিকের সহযোগিতায় তরুণীকে ধর্ষণ করে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার আক্তার হোসেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে অভিযান চালিয়ে দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা নেওয়া হয়েছে। ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আসামিদের নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

বরুড়ায় প্রতিবেশীদের দিয়ে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ, ৩ যুবক গ্রেফতার

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার বরুড়ায় প্রতিবেশীদের দিয়ে প্রেমিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) দুপুরে কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান বলেন, বরুড়ার শাকপুর গ্রামের রাফির (২১) সাথে একজন তরুণীর (১৯) ফেসবুকে পরিচয় হয়। তারা দু’জন গার্মেন্টস শ্রমিক। পরিচয়ের পর প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। গত ২৫ এপ্রিল রাতে ছেলের বাড়িতে মেয়ে আসে। রাত সাড়ে দশটায় রাফির মা তরুণীকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। শাকপুর ইঞ্জিনিয়ার গেইটের সামনে সিএনজি চালিত অটো রিকশার গতিরোধ করে। ভিকটিমকে বাগান বাড়িতে নিয়ে তিন যুবক মিলে পালাক্রমে রাত ১২টা পর্যন্ত গণধর্ষণ করে। সে রাতে ভিকটিম বরুড়া থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সিএনজি চালিত অটো রিকশা চালকের সূত্র ধরে আসামীদের গ্রেফতার করা হয়।

আসামীরা হলেন, রুবেল (২৭), শামিম (২৩) ও জাকির (৩৫)। তারা জানিয়েছে ধর্ষণের ঘটনায় ভিকটিমের প্রেমিক রাফির ইন্ধন আছে। তারা সবাই শাকপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা। একে অন্যের প্রতিবেশী।

এই মামলার তদন্ত চলমান। আসামী রুবেলের নামে তিনটি, শামিমের নামে একটি এবং জাকিরের নামে তিনটি মামলা আছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) খন্দকার আশফাকুজ্জামান, বরুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ফিরোজ হোসেনসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

বুড়িচংয়ে আম কুড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার এক সন্তানের জননী, আটক ৩

 

ডেস্ক রিপোর্ট:
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ষোলনল ইউনিয়নের চন্দ্রাবতী পোদ্দার বাড়ির বাগানে  বুধবার (১৮ মে) গভীর রাতে বাগানে আম কুড়াতে গিয়ে এক সন্তানের জননী (২৬) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পাওয়ার পরপরই জড়িত ৩ ধর্ষককে আটক করেছে বুড়িচং থানা পুলিশ।

বুড়িচং থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মাসুদ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সন্তান নিয়ে পিতার বাড়িতে বসবাস করেন ওই নারী। রাত আনুমানিক আড়াইটায় ভুক্তভোগী এক সন্তানের জননী ঝড়ের পরে আম কুড়াতে বের হয়। আম কুড়ানোর এক পর্যায়ে বাড়ির পাশের বাগানে প্রবেশ করলে ৪ জনের সংঘবদ্ধ দল ভুক্তভোগীর ওড়না দিয়ে মুখ বেঁধে হাত ও পা চেপে ধরে তার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। এ ঘটনায় ১৯মে বুধবার সকালে ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে বুড়িচং থানায় অভিযোগ দায়ের করলে তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ৩ আসামীকে আটক করে পুলিশ।

বুড়িচং থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মাসুদ বলেন, অভিযোগের পরপরই অভিযান চালিয়ে বুড়িচং উপজেলার বেড়াজাল এলাকার মৃত আকমত আলীর ছেলে আঃ রহিম (৩২), বুরবুরিয়া গ্রামের সিরাজ (সিরু) মিয়ার ছেলে স্বপণ (৩৫) ও রংপুর জেলার গঙ্গানগর উপজেলার মন্ডলপাড়া এলাকার মৃত মফিজ উদ্দিন এর ছেলে মমতাজ উদ্দিন (৩৫) কে আটক করা হয়েছে।

আটককৃত আসামিরা দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেছে। বিজ্ঞ আদালত আসামীদের জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। জড়িত অপর এক আসামী পলাতক রয়েছে। ভুক্তভোগী মেডিকেল চেকআপের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছেন বলে জানা গেছে।

কুমিল্লার হোমনায় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগে ৪ জন আটক

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার হোমনার চারকুড়িয়া গ্রামে এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগে ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (০৯ জানুয়ারি) ভোরে চারকুড়িয়া গ্রাম থেকেই ৪ ধর্ষককে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, হোমনার চারকুড়িয়া গ্রামের মোঃ সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মোঃ হাসান (২৭), মোহন মিয়ার ছেলে মোঃ রাসেল (২০), জয়নাল আবেদীনের ছেলে মোঃ ইউসুফ প্রকাশ বাদশা (২৫), মৃত: মজিবুরের ছেলে মোঃ সোহাগ মিয়া (১৬)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চারকুড়িয়া গ্রামে মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) রাত আনুমানিক দুইটায় এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠে। পরে গ্রাম্য সালিশী বৈঠকে বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে গোপন রেখে সমাধান করার চেস্টা চালিয়ে সমাধানে ব্যর্থ হলে পুলিশকে জানায়।

পরবর্তীতে হোমনা সার্কেল সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ ফহলুল করিম ধর্ষণের বিষয়টি অবগত হলে তার নেতৃত্বে,অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল কায়েস আকন্দ, এসআই মোঃ আশেকুল ইসলাম, এএসআই রফিক, এএসআই মোরশেদসহ তার সংগীয় ফোর্স নিয়ে শুক্রবার ভোররাতে অভিযান চালিয়ে ৪ ধর্ষককে আটক করেন।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এক মাসেই ৩৫৩ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার, শিশু হত্যা ৩৮

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দেশে নভেম্বরে ১৮ জন গণধর্ষণসহ মোট ১৫৩ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। নারী ও কন্যাশিশু মিলিয়ে মোট নির্যাতনের শিকার ৩৫৩ জন বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। অক্টোবর মাসে ৪৩৬ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। এরমধ্যে ৪৪ জন গণধর্ষণসহ মোট ২১৬ জন ধর্ষণের শিকার।

মঙ্গলবার পরিষদের লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। যা তারা দেশের জাতীয় ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে তৈরী করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নভেম্বর মাসে মোট ৩৫৩ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে ১৮ জন গণধর্ষণসহ মোট ১৫৩ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ৯৪ জন কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার এবং ৭ জন কন্যাশিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এছাড়া ৭ জন শিশুসহ ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১৫ জনকে।

শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে ৫ জন। এর মধ্যে শিশু ৩ জন। ৬ জন শিশুসহ ৭ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন শিশু এবং এসিডদগ্ধের কারণে মৃত্যু হয়েছে ১ জনের। অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন, তার মধ্যে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ৭ জন। ১১ শিশু অপহরণের শিকার হয়েছে। পাচারের শিকার হয়েছে ৫ জন। বিভিন্ন কারণে ১২ জন শিশুসহ ৩৮ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া ৫ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।

যৌতুকের কারণে নির্যাতন হয়েছে ৯ জনের উপর, এদের মধ্যে ৪ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৪ জন শিশুসহ মোট ১১ জন। বিভিন্ন নির্যাতনের কারনে ৫ জন শিশুসহ আত্মহত্যা করেছে ১৩ জন এবং ১২ জন শিশুসহ ৪৩ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বাল্যবিবাহ সংক্রান্ত ঘটনা ঘটেছে ১৪ টি। সাইবার ক্রাইম অপরাধের শিকার ১ জন শিশুসহ ৩ জন।