Tag Archives: গদিতে এত মধু ?

গদিতে এত মধু ?

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

গতকাল ৭ জন মন্ত্রীকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভার বৈঠক করেছেন। এই বৈঠকে গার্মেন্টস খুলে দেয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ক্ষোভ এবং অসন্তোষ জানিয়েছেন এবং তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন যে বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সী, বিজেএমই এর সভাপতি রুবানা হক এবং এমপি আব্দুস সালাম মুর্শেদি এই ঘটনার জন্য দায়ী। এ নিয়ে তিনি রাগ-ঢাক ছাড়াই তাঁর ক্ষোভ এবং অসন্তোষ ব্যক্ত করেছেন।

একজন দায়িত্বশীল আর আত্মসম্মানপূর্ণ ব্যক্তি যিনি মন্ত্রী, তিনি প্রধানমন্ত্রীর এমন তিরষ্কার এবং ভৎসর্না শোনার পর সসম্মানে পদত্যাগ করতেন এটাই স্বাভাবিক। কারণ প্রধামন্ত্রীর ভৎসনা এবং তিরষ্কার আসলে তাঁকে বরখাস্ত করারই শামিল। কিন্তু ঐ মন্ত্রী এখন পর্যন্ত পদত্যাগ তো দূরের কথা, দায়িত্ব থেকে সরে যাওয়ার মতো কোন অভিপ্রায়ও ব্যক্ত করেননি।

এর আগে আরেকটি ঘটনা ঘটেছে। যখন পোশাক শিল্প কারখানাগুলো খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হলো এবং সমস্ত গার্মেন্টস মালিকরা তাঁদের গার্মেন্টস শ্রমিকদের ঢাকার আসার জন্য টেলিফোনে নির্দেশনা দিলেন এবনকি না এলে চাকরি চলে যাবার হুমকি দিলেন, তখন ঢাকামুখী জনস্রোত সৃষ্টি হয়। আর এই জনস্রোত যখন ভয়াবহ ঝুঁকির সৃষ্টি হলো, তখন সাংবাদিকরা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে জানতে চাইল যে এই ব্যাপারে তাঁর মতামত কি? স্বাস্থ্যমন্ত্রী পরের দিন এক অনুষ্ঠানে বললেন যে, করোনা মোকাবেলার জন্য একটি জাতীয় কমিটি গঠিত হয়েছে, যে কমিটির সভাপতি তিনি। এই কমিটিটি অত্যন্ত বড় একটি কমিটি, কিন্তু তিনি জানেন না যে গার্মেন্টস খোলার সিদ্ধান্ত কিভাবে নেয়া হয়েছে এবং এরকম অনেক কিছুই তিনি জানেন না। একজন ব্যক্তি যিনি একটি কমিটির সভাপতি এবং তাঁর অজ্ঞাতেই যদি এরকম ঘটনা ঘটে তাহলে তাঁর করণীয় দুটি। প্রথমত তিনি ঐ নির্দেশনাকে বাতিল করবেন এবং করোনা মোকাবেলার স্বার্থে গার্মেন্টস খোলা অনুচিৎ তাই গার্মেন্টসগুলো বন্ধ রাখার আনুষ্ঠানিক নির্দেশনা দিবেন। কারণ তাঁর সেই ক্ষমতা রয়েছে। তিনি যদি তা করতে ব্যর্থ হন, তাহলে তিনি আত্মসম্মান নিয়ে পদত্যাগ করবেন।

এই দুটি ঘটনার উদাহরণ দেয়া হলো এইজন্য যে, আমাদের এই দুই মন্ত্রী পদত্যাগ তো করেননি, উল্টো গণমাধ্যমের সামনে এসে আত্মপক্ষ সমর্থনের চেষ্টা করছেন। বাংলাদেশে পদত্যাগের সংস্কৃতি নেই। অতীতে দুই একটি ব্যতিক্রমী উদাহরণ বাদে কেউই পদত্যাগ করেননি। তাঁদেরকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়া হয়।

একজন যখন মন্ত্রী হন, তখন তিনি অনেক সুযোগ-সুবিধা পান। গাড়ি পান, বিলাস বহুল বাড়ি পান, লাল টেলিফোন পান এছাড়া আর কি পান সেটা আমরা জানি না। তবে নিশ্চিত মন্ত্রী হওয়ায় মধু আছে, নাহলে আত্মসম্মান খুইয়ে কেন তাঁরা মন্ত্রিত্ব ধরে রাখেন। যে মন্ত্রী গার্মেন্টস খোলার আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেই মন্ত্রী কিছুদিন আগে পেঁয়াজ কেলেঙ্কারি নিয়ে লেজেগোবরে করে ফেলেছিলেন এবং পেঁয়াজের দাম ডাবল সেঞ্চুরি করেছিল। সেসময় মন্ত্রী মুচকি হেসে বলেছিলেন, এখন আপাতত পেঁয়াজের দাম কমার কোন সম্ভাবনা নেই। তারপরেও সেসময় প্রধানমন্ত্রী তাঁকে সমর্থন দিয়েছিলেন এবং তাঁকে ঐ ব্যর্থতার জন্য দায়িত্ব থেকে সরাননি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত বছর যখন ডেঙ্গুর প্রকোপ সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছিল, তখন তিনি মালয়েশিয়া গিয়েছিলেন ব্যক্তিগত সফরে এবং সেই সফরের কথা তিনি গোপন করে তাঁর জনসংযোগ কর্মকর্তাকে দিয়ে বলিয়েছিলেন যে, তিনি ঢাকার মানিকগঞ্জেই আছেন। এই নিয়ে যখন গণমাধ্যমে তোলপাড়, তখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্ন প্রায় তেড়ে উঠেছিলেন। এবার দ্বিতীয় দফায় তিনি ব্যর্থ হলেন। কাউকে যদি কোন দায়িত্ব দেয়া হয় এবং তিনি যদি মনে করেন যে সেই দায়িত্ব পালনে তিনি অপারগ, অক্ষম- তাহলে তাঁর সেই দায়িত্ব থেকে অব্যহতি নেয়াই ভালো। ঐ পদ ছেড়ে দিলে তিনি যেমন সম্মানিত হবেন, তেমনিভাবে ঐ দায়িত্ব পালন করাও সহজতর হবে।

প্রধানমন্ত্রীকে কেন বরখাস্ত করতে হবে এবং প্রধানমন্ত্রী বরখাস্ত করবেন কিনা সেই সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করতে হবে? মন্ত্রিত্ব কোন চাকরি নয়, মন্ত্রিত্ব একটি দায়িত্ব। একজন নির্বাচিত প্রতিনিধিকে দায়িত্ব দেয়া হয় জনগণের সেবা করতে। যদি তিনি সেবা করতে না পারেন তাহলে তাঁর পদটি ছেড়ে দেয়াই ভালো।

উন্নত গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে এরকম নজির রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশের মন্ত্রীরা ব্যর্থ বা অযোগ্য হলেও দায়িত্ব ছেড়ে দেন না। কিন্তু কেন? তাহলে কি মন্ত্রীর গদিতে কোন মধু আছে? যে মধু ছাড়া অত্যন্ত কঠিন এবং ঐ মধুর সঙ্গে কি আরো কিছু আছে যেকারণে ঐ চেয়ার অনেক লোভনীয়? আর একবার সেই গদিতে বসলে গদি ছাড়তে মনটা হু হু করে ওঠে? আর একারণেই কি আমাদের ব্যর্থ মন্ত্রীরা পদত্যাগ করছেন না?

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার ।