Tag Archives: গল্পঃ ” মধ্য রাতের কলঙ্ক “

গল্পঃ ” মধ্য রাতের কলঙ্ক “

 

ফারহানা জান্নাত:
“কি লো তুই এইহানে কি করছ? তোরে না কইছি বাইরে বাইর হইবি না।  সোহাগ রে, সোহাগ এই বেজন্মা রে ঘরের ভিতরে ঢোহা। আমার মিজাজ কইলাম খারাপ হইতাছে”। বাইরে চিৎকার শুনে দৌড়ে আসে জুলেখা-“তোরে না কইছি ঘরের ভিতরে থাকবি। মোট্টে বাইর হইবি না। আয় ঘরে আয়”

মেয়েকে নিয়ে ঘড়ের ভিতর চলে যায় জুলেখা। বাহিরে তার শাশুড়ি গজগজ করতেই থাকে।
মেয়েটির নাম মহীমা।কিন্তু নাম তার যা ই হোক ডাকে কলঙ্কিনী নামেই। ডাকবে নাই বা কেনো? সে তো মধ্য রাতের কলঙ্ক।

ঘরে ঢুকে মহিমা একবার দরজার দিকে তাকায়, আরেকবার মায়ের দিকে। তারপর হুহু করে কেঁদে উঠে তার মাকে বলে “মাগো ভুক লাগছে, তাই বাইরে গেছিলাম। খানা দিবা না আইজ!”
মেয়ের এমন কথা শুনে জুলেখা আর নিজেকে সামলাতে পারলো না। মেয়েকে বুকে চেপে কাঁদতে কাঁদতে ফিসফিসিয়ে বলেন, “দাদীর আইজ মেজাজ বড্ড খারাপ রে মা আইজ মনে হয় খানা কপালে জুটব না”।  মা মেয়ে নিঃশব্দে কাঁদতে থাকে। কারণ তারা জানে এই কান্না আওয়াজ বাইরে যেতে নেই।শত সতর্কতা সত্ত্বেও উঠান থেকে দাদির গর্জন শুনা যায়

“কান্নার জো লাগছে দেহি। এতো কাইন্দা কাইট্টা কি হইব। যা কাম কর গা। ওই কলঙ্কিনী যা মার লগে কাম শিখ। হারাদিন বইয়া খাইলে কি চলব”?  ৭/৮ বছরের মেয়েটা জানেও না কিজন্য তাকে কলঙ্কিনী ডাকা হয়? আর এর মানে কি!তার ওই নাম টা তো সুন্দর কেন ডাকে না ওই নামে? আচ্ছা ওই নাম টা কি বাজে! এই নাম টা কি সুন্দর? দাদীমা কেন মায়ের সাথে এতো খারাপ করে কথা বলে?তাকে কেনো ভালোবাসে না? ভাইদা’র মতো আদর করে খেতে দেয় না কেনো? তার বুঝি খিদে পায় না!

এমন হাজার টা প্রশ্নের উত্থান পতন ঘটে তার মনে। কিন্তু নিরুত্তর। মাকে একদিন সাহস করে জিজ্ঞেস করেছিলো। মা শুধু জড়িয়ে ধরেছিলো কিছু বলে নি। বাবার মুখ কখনো দেখে নি। দেখবে কেমন করে বাবা তো জন্মের আগেই মারা গিয়েছে। এসব কিছুই একে একে ঘুড়তে থাকে মহিমার মনে। ঠিক সে সময় মায়ের সতর্কবাণী শুনতে পায় সে “কিরে তুই খাড়ায় আছোস যে! অহন ই তোর দাদী আইয়া গাইল পাড়ব। পাতা সব কুড়ায় ল”।  “কিন্তু মা, পা যে চলে না। কিচ্ছু দিবো না আইজ খাইতে? কাইল রাইতে হুদা ভাতের ফ্যান দিসিলো। হেইখানও লবন ছাড়া খাইছি মোট্টে ভাল্লাগে নাই মা”।

সারাদিন শেষে মা মেয়ে অনেক খেটেখুটে এসেছে। কিন্তু দিনের বেলায় পুকুরের পানি বাদে তাদের ভাগ্যে আরকিছু জুটেনি। তারা ঘরের দরজায় বসে আছে। মায়ের কোলে মেয়ে মাথা দিয়ে শুয়ে আছে। ছোট্ট মহিমার দেহ আর চলতে চায় না। এমন সময় হয়ত দাদীর মনে ম্যা জেগেছে। মহিমা দেখে দাদী একটা বড় গামলায় করে খাবার নিয়ে এসেছে
“নে খাইয়া ল”।
খাবার দেখেই মহিমা আশাহত হয়। ভাতের তুলনায় পানি অনেক বেশী। আর শুধু মরিচ দিয়ে কি ভাত খাওয়া যায়!
“দাদী এই তে কি হইব! এতে তো ভাত কম পানি বেশি। কি কইরা খামু দুইজনে”?
মেয়ের কথা শুনে জুলেখা তাড়াতাড়ি মেয়ের মুখ চেপে ধরে চুপ করাতে চায়। কিন্তু বিপদ যা ঘটার ঘটে গেছে।

“ওই বেজন্মা তোরে যে খাইতে দিছি থাকতে দিছি এই কি কম না? আবার মুখে মুখে কথা। মা এক বেশ্যা, মাইয়া আর এক বেশ্যা। হইব ই তো। পাঞ্জাবি গো রক্ত বহে শইলে”।
যা ঘটার তো ঘটেই গেছে। একগামলা পানি আর সামান্য ভাতই মরিচ দিয়ে খেয়ে নেয় তারা দুজনে। মেয়েকে খাইয়ে শুইয়ে দেয় জুলেখা। সারাদিন কম খাটনি তো খাটল না।
হঠাৎ কি মনে পড়তেই মহিমা উঠে বসে জুলেখাকে জিজ্ঞেস করে, “আচ্ছা আম্মা দাদী কেন কয় খালি পাঞ্জাবি গো রক্ত বয় শইলে। হেরা কেডা? কও না আম্মা”?

চোখ দিয়ে পানি ফেলা ছাড়া আর কিছু করার নেই জুলেখার। কারন উত্তর দেয়ার মতো ভাষা তার কাছে নেই।তার চোখে সেই রাতের দৃশ্য ভেসে উঠে। আবার ও সেই মাঝ রাতের দরজায় কড়া নাড়া। ঠক্ ঠক্ ঠক্।  আজ তার বড্ড মনে পড়ছে সেই রাতের কথা।

জুলাই, ১৯৭১। সবে মাত্র রাতের খাবার খেয়ে শুয়েছে জুলেখা ও সেলিম। এমন সময় দরজায় কড়া নাড়ার শদনে চমকে উঠে দুজনেই।
“সেলিম মিয়া ঘরে আছো? বাইর হও তো। কতা আছে”
“কেডা! এত রাইতে কি
“আমি সরোয়ার। দরজাটা খোলো মিয়া। জরুরী কথা”।
দরজা খোলার সাথে সাথেই বেয়নেটের আঘাতে নিচে পড়ে গেলেন সেলিম। দোষ একটাই মুক্তিবাহিনী কে আশ্রয় দিয়েছিলেন কাল রাতে। সেই দোষেই আজ এই অবস্থা।

সেলিমের শরীরে এখন হাজারো আঘাতের চিহ্ন। রক্তাক্ত দেহ। বন্দুকের নলের সামনে তার কপাল। আর জুলেখা ঘরের ভিতরে। সে যে বেঁচে গেছে তা নয়। পাক হানাদার বাহিনী এখন পালা ক্রমে স্বাদ গ্রহন করছে জুলেখার শরীরের। এক পর্যায়ে জুলেখা অজ্ঞান হয়ে যায় গুলির শব্দে। সেই গুলি টা সেলিমের মাথার খুলি ঝাঝড়া করে বেড়িয়ে যায়। তাতে অবশ্য কষ্ট কম ই। একটু একটু করে অকথ্য নির্যাতনের শিকাড় হয়ে মরার থেকে এক গুলিতে মরে যাওয়াই ভাগ্যের ব্যাপার।
সেদিন ভোরের আগেই চলে গিয়েছিলো তারা পড়ে রয়েছিলো দুটো নিথর দেহ। একটায় প্রান নেই প্রান আছে।

২দিন পর জুলেখার শাশুড়ি এলেন তার নাতি সোহাগ কে নিয়ে। এসে দেখেন ছেলের দেহ টা পড়ে আছে উঠানে। জুলেখা দুই দিন ধরে এক ই ভাবে বসে আছে। দেখে বুঝার উপায় নেই যে শরীরে প্রাণ আছে। তার শাশুড়ি ই তাকে উঠায়। শক্তি নেই শরীরে। জুলেখার শাশুড়ি তার ছেলের নিথর দেহখানা নিয়ে গগনবিদারী কান্না জুড়ে দেয়। মায়ের কোল খালির বেদনায় যেন আশেপাশের সব ভেঙে পড়ে।

জুলেখা তার শাশুড়িকে জানায় নি যে তাকে পাক হানাদার বাহিনীরা অকথ্য নির্যাতন করেছে।
কিন্তু বাধ সাথে কিছুদিন পর। জুলেখা বুঝে সে অন্তঃসত্তা। শাশুড়ি কে বলতেই তিনি তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন

“তোর লাইগা আমার পোলা মরল আইজ তুই কস যে তুই পোয়াতি। তোর ওই দরদের লাইগাই তো মুক্তিবাহিনীগোরে ঘরে ঠাই দিছিলো আমার পোলা। নষ্টা মাইয়াপোলা। ঘরে পরপুরুষ ঢুকাইবার বড় শখ। তর শখের লেইগাই আইজ আমার পোলা মরল। আর অহন তুই কস যে ওই পাঞ্জাবিগো রক্ত আমার ঘরে আইব। তুই ঘর থিক্কা বাইর হ বেশ্যা। বাইর হ কইয়া দিলাম”।
বহু কষ্ট সহ্য করে তার মেয়েকে এই পৃথিবীর আলো দেখিয়েছে জুলেখা। দিন যায়,অত্যাচার বাড়ে, জুলেখা দমে যায় না। মেয়ের নাম মহীমা রাখে। ভাবে নামের বদৌলতেই হোক আর যেমন করেই হোক একদিন এই মেয়ে তার মহীমায় সব কষ্ট মোচন করবে।
ভোরের আভা ছড়িয়ে পড়ছে চারিদিকে।

লেখক:

ফারহানা জান্নাত

শিক্ষার্থী।