Tag Archives: গল্প- একজন কথিত রাজাকার

গল্প- একজন কথিত রাজাকার

হাফিজ পাশা:

১৯৯৬ সাল। শীতের সকাল। শিশির ভেজা প্রকৃতিতে কেমন ঘুমোটভাব রয়েছে। রবিরশ্মির প্রখরতা কুয়াশার চাদর ভেদ করে এখনও পৌঁছেনি।

শফিকুল্লাহ হাওলাদারের বাড়ির উঠোন জুড়ে বহু লোকের সমাগম। ভিড় ঠেলে কেউ কেউ এগিয়ে যাবার চেষ্টা করছে। উৎসুক জনতার ঢল একটি লাশকে ঘিরে।গতকাল রাত পৌনে বারোটার দিকে শফিকুল্লাহ হাওলাদার জেলখানার বদ্ধঘরে ধুঁকে ধুঁকে মারা গেছে। জরাজীর্ণ রোগগ্রস্থ লোকটি চিকিৎসার সুযোগ পর্যন্ত পায়নি। এই ৭৫ বছর বয়সেও জেলখানার নিপীড়ন সইতে হয়েছে।

একসপ্তাহ আগে জঙ্গিবাদের কথা বলে শফিকুল্লাহ হাওলাদারকে গ্রেফতার করে পুলিশ। নানা অত্যাচার করা হয়। অত্যাচারের মাত্রা এতটাই প্রকট ছিল যে শফিকুল্লাহ হাওলাদার রোগগ্রস্থ হয়ে পড়ে। পরিবার-স্বজনদের তেমন দেখা করতে দেয় না।

এসআই সানোয়ার সদ্য যোগদান করেছে এই থানায়। যোগদানের পর থেকেই ক্ষমতাধর নেতাদের তাবেদারী করতে শুরু করেছে। করবে না কেন? মহামূল্যবান এই এসআই পদে চাকরি পেয়েছে যে সরকার দলীয় ছাত্রনেতা হবার বদৌলতে।

গতকাল রাতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে এসআই সানোয়ার তার কক্ষে শফিকুল্লাহ হাওলাদারকে ডাকে। জীর্ণশীর্ণ অবস্থায় পৌঁছুতে একটু দেরি হলে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে।
একসময় একটা কাগজে সই করতে বলা হলো।শফিকুল্লাহ হাওলাদার কখনও মিথ্যে বলেনি, কারও সম্পদ নষ্ট করেনি। সারাজীবন সত্যের পথে চলে এসে কী করে এখন জঙ্গিবাদের স্বীকারে কাগজে সই করবে!

সই করাতে না পেরে লাঠিচার্জ শুরু হলো। তীব্র আঘাতে কুঁকিয়ে ওঠে শফিকুল্লাহ হাওলাদার। এই কনকনে শীতের রাতে পায়ের হাড়গুলোতে পিঠাচ্ছে। আর্তনাদে পুরো পুলিশপাড়া যেন কাঁপছে, তবু পুলিশি নির্যাতন থেমে নেই।

লক্ষ্য হাসিল করাতে না পেরে এক সময় ক্ষীপ্র হয়ে শফিকুল্লাহ হাওলাদারের বুকে লাথি মারে এসআই সানোয়ার। ধকল সামলাতে না পেরে ছিটকে মেঝেতে পড়ে গড়াগড়ি খেলো শফিকুল্লাহ হাওলাদার। নিথর পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ কর্তা দৌড়ে এসে বললো- ‘সালা, ভঙ ধরছ! তুই সই করবি না তো তোর বাপ করবে।’ গলার নিচে লাঠি দিয়ে চেপে ধরলো। শফিকুল্লাহ হাওলাদার ছটফটিয়ে যাচ্ছে। নির্যাতন সইতে না পেরে একসময় জ্ঞান হারালো।

কন্সটেবল রফিক মোল্লা দূর থেকে প্রায়শ এমন পুলিশি নির্যাতন দেখে চোখ ভেজায়। চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া কিছু করার নেই তার। চোখ মুছে, কয়েকজনকে সাথে নিয়ে ধরাধরি করে কয়েদখানায় নিয়ে যায় শফিকুল্লাহ হাওলাদারকে।

শফিকুল্লাহ হাওলাদারের মাথায় পানি দিয়ে হুশ করা হয়েছে। পুরো নিথর হয়ে পড়ে আছে। আর্তনাদে কেবল গুঙ্গিয়ে যাচ্ছে। মাথার পাশে একথালা সবজি-ভাত পড়ে আছে। খাবার মতো দেহে বল নেই। পীড়ন জ্বালার কাছে এই খাবার নিছক তুচ্ছ। এই জরাজীর্ণ অবস্থায় তার মস্তিষ্কে স্মৃতিরা উঁকি দিচ্ছে বারবার। ঠিক মনে পড়ছে,

১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসের কথা। তখন দেশ স্বাধীন হওয়ার সুবাতাস বইছিল।
আজকের মতো ঠিক একইভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছিল সেদিন। পাকবাহিনীর হাতে নয়, মুক্তিযোদ্ধা বাঙালির কিছু অংশের কাছে যারা নিজেদেরকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে বাকী মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মমভাবে হত্যা করেছে। ভিন্ন মতাদর্শের লোকদের এই বাংলায় ঠাই নাই, এটা ছিল তাদের স্লোগান। এই দেশে থাকতে হলে একজনের মতাদর্শে আসতে হবে।

প্রতিটা মানুষের ব্যক্তিগত মতাদর্শ রয়েছে। কেউ একটা বিষয় পছন্দ করলে অপরজনেরও যে ঠিক সেই বিষয়টা পছন্দ করতে হবে তা কিন্তু নয়। তাছাড়া এদেশের মুক্তিযুদ্ধে কেবল একব্যক্তির মতাদর্শের লোকেরা যুদ্ধ করেনি। দেশের সর্বস্তরের জনগণ একযোগে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। অথচ যুদ্ধের শেষভাগে বিশেষ একটা মহল লুটেরা হয়ে ওঠলো। নিজেদের আধিপত্য বিস্তার ও স্বাধীনতার পুরো অর্জন ছিনিয়ে নিতে নিজেদের অনুসারীর বাইরের লোকদের গণহারে হত্যা করতে লাগলো। তাদের ভাষ্য ছিল আমাদের অনুসারী না হলে সবাই রাজাকার। রাজাকারের তকমা দিয়ে বহু মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করা হয়।

এমনই এক কবলে পড়েছিল শফিকুল্লাহ হাওলাদার। তৎকালীন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হলেও বেশভূশায় মাওলানা সাহেব যেন। ধর্মীয় পোশাকের জন্যে অনেকে তাকে পাকবাহিনীর সহযোগী আখ্যা দিতে চেয়েছিল। রাজাকার বলার কারণ হলো সে রাজনৈতিকভাবে ভিন্ন মতাদর্শী। রাজনৈতিক পার্থক্য থাকলেও তার দু’সন্তানকে এপ্রিল মাসের শুরুতে মুক্তিযুদ্ধের জন্যে পাঠিয়ে দেয়। জুন মাসের দিকে বড়ো ছেলে রহমতুল্লাহ পাকহানাদারদের বুলেটে প্রাণ হারায়। এমন শহীদি সন্তান জন্ম দিয়েও তাকে রাজাকার তকমা পেতে হয়, এ কেমন নোংরা রাজনীতির প্রতাপ!

এদিকে পাকহানাদাররা হুট করে শফিকুল্লাহ হাওলাদারের বাড়িতে হানা দেয়। দু’সন্তান মুক্তিযুদ্ধে পাঠিয়েছে বলে তাদের উপদ্রবে বাড়িতে ঘুমাতে পারে না। অন্যের বাড়িতে সিলিংয়ে, গরুর ঘরে রাতযাপন করতে হয়। একদিন তো ধরেই ফেলছিল বর্বরা, কোনো রকমে দৌড়ে গিয়ে পুকুরে কচুরিপানায় ডুব দেয়। পাক হানাদার বাহিনী পুরো পুকুর জুড়ে খুঁজেছে, পায়নি! দুটো বড়ো কচুরিপানা ডোগা ছিড়ে দুই নাকের ছিদ্রে ঢুকিয়ে ডুব দিয়ে পানির ওপরে নিঃশ্বাস ফেলে বেঁচেছে। মহান আল্লাহ সেদিন জীবন রক্ষা না করলে হয়তো পাক বর্বরদের হাতে শহীদ হতো।

একদিকে পাকবাহিনীর উপদ্রব, অন্যদিকে রাজনৈতিক মতাদর্শে ভিন্ন হওয়ার কারণে দেশীয় কিছু সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধার কাছে শফিকুল্লাহ হাওলাদার বারবার হামলার শিকার হয়েছে। অথচ তার উৎসাহ-উদ্দীপনায় এলাকার বহু ছেলে-যুবক যুদ্ধে গিয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের আর্থিক সুবিধে দেওয়া থেকে শুরু করে আশ্রয়দান ও আহত মুক্তিযোদ্ধাদের নিজ বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দিয়েছে। কিন্তু সেই জনদরদি মানব একদিন দেশীয় একদল মুক্তিযোদ্ধার কাছে হামলার শিকার হয়। তাকে ও তার পরিবারের সবাইকে লাঞ্চিত করা হয়। তাকে রাজনৈতিক মতার্দশ পরিবর্তন করতে বারবার বলা হয়, কিন্তু সে তাদের দলে যেতে পাক্কা নারাজ।  রোজ রোজ একইভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে যায়।
স্বার্থান্বেষী মুক্তিযোদ্ধারা যখন দেখলো শফিকুল্লাহ হাওলাদার তাদের দলে কিছুতেই আসবে না তখন তাকে নির্যাতন করতে থাকে। একপর্যায়ে তাকে রাইফেল দিয়ে মারধর করা হয়। পরে পড়শীদের অনুনয়ে সেদিনের মতো প্রাণভিক্ষা পায়।

একদিন যুদ্ধ শেষ হলো। শফিকুল্লাহ’র ছোটো ছেলে বরকতুল্লাহ স্বাধীন দেশের পতাকা নিয়ে এসে বিজয়ের উল্লাসে বাবার পা ধরে সালাম করে। বাবা-ছেলে জড়িয়ে বহুক্ষণ অশ্রু প্রবাহিত করেছিল সেদিন।  এই স্বাধীনতা অর্জনের কাছে তার সঙ্গে এতদিন ঘটে যাওয়া সবকিছু যেন ঢাকা পড়ে গেল।
শফিকুল্লাহ হাওলাদার এখন গলা উচিয়ে বলতে পারবে ‘আমি বীর মুক্তিযোদ্ধার বাবা। একছেলে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আর অন্যছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা!’ গর্বে বুকটা ভরে যায়।

স্মৃতি মনে করে অশ্রু ঝরাচ্ছে শফিকুল্লাহ হাওলাদার। বীর মুক্তিযোদ্ধার বাবা হয়ে বয়সকালে জঙ্গীবাদের সাথে জড়াতে চাইছে নোংরা রাজনীতি। এভাবে আর কত মিথ্যার কষাঘাতে ঢাকবে সত্য! প্রকৃত কি সত্য ঢাকে মিথ্যার কাছে? প্রকৃত সত্যের মৃত্যু নেই, হয়তো কিছুদিন অস্থায়ী মরীচিকার আড়ালে ঢাকা পড়ে। মরীচিকা সরলে পরে সত্যরা প্রজ্বলিত হয়ে ওঠে।

রাত এগারোটা বাজলে শফিকুল্লাহ হাওলাদারের শরীরের অবস্থার অবনতি হয়। কন্সটেবল রফিক মোল্লা দাঁড়িয়ে দেখছে একটা শীর্ণ আত্মার ছটফটানি। একটা মানুষ কীভাবে ধুঁকে ধুঁকে মরছে তা অশ্রুসজল চোখে দেখছে, কিছু করার নেই। চাকরি নামক বেড়ির কাছে বন্দি তার মানবতা। সে ভাবছে, মানুষ কতটা অসহায় এই নোংরা রাজনীতির কাছে।

 

লেখক- হাফিজ পাশা
আগারগাঁও, ঢাকা।
০১৬৭০০৯৬৮৫৯