Tag Archives: গোমতীতে অবৈধভাবে ১৩টি স্থান থেকে বালু উত্তোলন : হুমকিতে তিন সেতু ও বাঁধ

গোমতীতে অবৈধভাবে ১৩টি স্থান থেকে বালু উত্তোলন : হুমকিতে তিন সেতু ও বাঁধ

স্টাফ রিপোর্টার:
গোমতী নদীর আদর্শ সদর উপজেলা এলাকার অন্তত ১৩টি স্থান থেকে একটি চক্র অবৈধভাবে বালু উত্তোলনসহ নদীর বাঁধসংলগ্ন এলাকা থেকে মাটি কেটে বিক্রি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধ ও ৩টি সেতু হুমকির মুখে সম্মুখীন শনিবার দুপুরে কুমিল্লা নগরীর নজরুল এভিনিউ এলাকার মডার্ন কমিউনিটি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন নদীর পাঁচটি বালু মহালের ইজারাদার মাহাবুবুর রহমান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে মাহাবুবুর রহমান অভিযোগ করেন, কুমিল্লা জেলা প্রশাসন থেকে গত ১১ জুন গোমতী নদীর বালু মহাল ইজারা বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে মাহাবুবুর রহমানের মেসার্স এম রহমান ও মেসার্স রিফাত কনস্ট্রাকশনসহ (ভূতপূর্ব ইজারাদার) মোট পাঁচটি প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশগ্রহণ করে। এতে এক কোটি ৫০ লাখ টাকায় সর্বোচ্চ দরদাতা হওয়ায় মেসার্স এম রহমান প্রতিষ্ঠানটি নদীর পাঁচটি বালু মহালের ইজারা পায়। এদিকে দরপত্রে অংশগ্রহণকারী মেসার্স রিফাত কনস্ট্রাকশনসহ অন্যরা দরপত্রের শর্তানুযায়ী জেলা প্রশাসনে আবেদন দাখিল করে ৬ জুলাই দরপত্র জামানতের পে-অর্ডারের টাকা তুলে নেয়। পরদিন ৭ জুলাই ইজারার সকল টাকা পরিশোধের পর জেলা প্রশাসন কর্তৃক সাইনবোর্ড টানিয়ে মেসার্স এম রহমান প্রতিষ্ঠানকে পাঁচটি বালু মহালের দখল বুঝিয়ে দেয়া হয়। মেসার্স এম রহমান প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী মাহবুবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, প্রশাসন তাকে পাঁচটি বালু মহালের দখল বুঝিয়ে দেয়ার পর ভূতপূর্ব ইজারাদারের লোকজন নদীর অন্তত ১৩টি পয়েন্টে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ভূতপূর্ব ইজারাদার মেসার্স রিফাত কনস্ট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী আরফানুল হক রিফাত জানান, ‘আমার আগের উত্তোলনকৃত অনেক বালু করোনাভাইরাসের কারণে অবিক্রীত ছিল, এখন তা বিক্রি করা হচ্ছে। নতুন করে অবৈধভাব বালু উত্তোলনের সঙ্গে আমার কোন লোকজন জড়িত নাই।’

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর বলেন, আমরা ইজারাদার মাহবুবুর রহমানকে তার ইজারার স্থানগুলো বুঝিয়ে দিয়েছি। এর পরও যদি তিনি বালু উত্তোলন করতে না পারেন, সেটা তার ব্যর্থতা। এখানে আমাদের কী করার আছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম বাবুল, আওয়ামী লীগ নেতা মনির হোসেন, মাসুদুর রহমান, মোশারফ হোসেন শামীম, রাশেদ মিনহাজ, জাহেদুল আলম, আলী আক্কাছ, মো. সেলিম, শাহরিয়ার মাহমুদ ও মনিরুল হক ভূঁইয়া প্রমুখ।