Tag Archives: গোলাগুলি

বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় ৪০০ চাকমা, সীমান্তের ওপারে চলছে বিমান হামলা

ডেস্ক রিপোর্ট:

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তের ওপারে বেতবুনিয়া রাইট ক্যাম্প দখলে নিতে দেশটির সরকারি বাহিনী ও বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির মধ্যে প্রচণ্ড গোলাগুলি চলছে। এ গোলাগুলির মধ্যে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় আছে ৪০০ চাকমা। আর ইতোমধ্যে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী পুলিশের (বিজিপি) ৯৮ জন সদস্য।

আজ সোমবার সকাল থেকে মিয়ানমার সরকারি বাহিনী আরাকান আর্মির অবস্থান লক্ষ্য করে বিমান থেকে বোমা হামলা চালাচ্ছে। আরাকান আর্মির আক্রমণের মুখে বিজিপির ৯৮ জন সদস্য বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। তারা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) হেফাজতে রয়েছেন। বিজিবি পাহারায় গুলিবিদ্ধ ৯ জন বিজিপি সদস্যকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, আজ দুপুরে মিয়ানমার থেকে ছোড়া মর্টারশেলে বাংলাদেশে দুজন নিহত হয়েছেন। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের জলপায়তলী সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে একজন বাংলাদেশি, অপরজন রোহিঙ্গা।

ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১ নম্বর জলপায়তলীর ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে, মিয়ানমার সীমান্তে বসবাসকারী ৪০০ চাকমা খাদ্যাভাব এবং নিরাপত্তার ঝুঁকির কারণে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) কমিশনার মো. মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, মিয়ানমারে দেশটির সরকারের জান্তা বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরকান আর্মির সংঘর্ষ চলছে। এতে মিয়ানমার সীমান্তে বসবাসকারীদের মধ্যে খাদ্যসংকট দেখা দিয়েছে এবং তাদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এই অবস্থায় তারা জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করছে।

এদিকে, সীমান্ত অতিক্রম করে মিয়ানমার থেকে কোনো রোহিঙ্গা অথবা অন্য কোনো সম্প্রদায়ের লোকজন যাতে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সে জন্য সীমান্তে বিজিবি টহল জোরদার করা হয়েছে।

আজ সকালে বিজিবি পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখন পর্যন্ত মিয়ানমারের বিজিপির ৯৮ জন সদস্য অস্ত্রসহ বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। বিজিবি তাদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়েছে।

এদিকে, আজ বেলা ১১টার দিকে মিয়ানমার থেকে কক্সবাজারের টেকনাফের হোয়াইক্যং উলুবনিয়া সীমান্ত পার হয়ে একটি রোহিঙ্গা পরিবার বাংলাদেশে ঢুকে পড়লে দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরা তাদের আটক করে। স্বামী-স্ত্রী ছাড়াও তাদের সঙ্গে ৩ শিশু রয়েছে।

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘সীমান্তে আমরা সতর্ক অবস্থানে আছি এবং সীমান্তে বিজিবি টহল জোরদার করা হয়েছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য বিজিবি সদস্যরা সর্বাত্মক প্রস্তুতি রয়েছে।’

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের রয়েছে ২৭১ কিলোমিটার সীমান্ত। এর বড় অংশ বান্দরবান ও কক্সবাজার জেলায়। কয়েক সপ্তাহ ধরে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্ত–সংলগ্ন এলাকায় যুদ্ধ জোরালো করেছে আরাকান আর্মিসহ কয়েকটি গোষ্ঠী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কমিটিতে পদ নিয়ে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার রাত ১০টার দিকে জেলা শহরের কান্দীপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, গত বৃহস্পতিবার ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জেলা ছাত্রদলের ৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি ঘোষণা করে। কমিটিতে শাহিনুর রহমানকে আহবায়ক ও সমীর চক্রবর্তীকে সদস্যসচিব করা হয়। কমিটি গঠনের খবর ছড়িয়ে পড়লে পদবঞ্চিত ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ ফেটে পড়েন।

এর প্রতিক্রিয়ায় পরদিন শুক্রবার পদঞ্চিতরা বিক্ষোভ ও নেতাদের বাড়িতে হামলা চালায়। সে সময় কৃষকদলের আহ্বায়ক ভিপি শামীম ও নতুন কমিটির আহ্বায়ক শাহিনুর রহমানসহ কয়েকজন নেতাকর্মীর বাড়িতে হামলা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ওসি মো. এমরানুল ইসলাম জানান, ছাত্রদলের নতুন কমিটিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এখন পর্যন্ত হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থল থেকে অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করা হয়েছে।