Tag Archives: গ্রুপ রানার্সআপ হলেন বাংলাদেশ মহিলা ফুটবলের দল

গ্রুপ রানার্সআপ হলেন বাংলাদেশ মহিলা ফুটবলের দল

ডেস্ক রিপোর্ট :
চূড়ান্ত পর্বের ছাড়পত্র মিলেছিল আগেই। তাই রোববার ‘বি’ গ্রুপের শেষ ম্যাচ ছিল গ্রুপ শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। গ্রুপ সেরা হিসেবে ফাইনাল রাউন্ডে যেতে জয় দরকার ছিল বাংলাদেশ দলের। অথচ জয়তো দূরের কথা নূন্যতম ড্র’ও করতে পারেনি লাল সবুজরা। উল্টো ০-৩ গোলের হার দিয়ে মিশন মিয়ানমার সম্পন্ন করলো ছোটন বাহিনী। এদিন মারিয়াদের হারিয়ে টানা তিন জয় দিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা ফুটবলের গ্রুপ সেরা হয়েছে চীন।

এটিই ছিল দুই দেশের মহিলা দলের প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ। অন্য দিকে গত দুই বছরে লাল সবুজ অনূর্ধ্ব- ১৫/১৬ দলের এটি দ্বিতীয় হার। গতবছর আগস্টে অনূর্ধ্ব-১৫ সাফের ফাইনালে সর্বশেষ হেরেছিল ভারতের কাছে।

গত খেলাগুলোর পারফরম্যান্স এবং আনুসঙ্গিক সব সুযোগ সুবিধার বিচারে লাল-সবুজদের চেয়ে ঢের এগিয়ে চীনারা। তাদের ১৫ র‌্যাংকিংয়ের বিপরীতে মনিকা, তহুরাদের র‌্যাংকিং ১২৫। এরপরও রোববার মিয়ানমারের মেন্ডালার থিরি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ যদি তাদের স্বাভাবিক খেলা উপহার দিতো তাহলে কি তিন গোলের পরাজয় বরণ করতে হতো? হয়তো ম্যাচটি একপেশে না হয়ে আরো আকর্ষনীয় হতো।

আগের দুই ম্যাচে অল আউট অ্যাটাকে খেলা দলটি এদিন চীনের বিপক্ষে প্রথম থেকেই খোলসে ঢুকে পড়ে। নিজেদের অর্ধেই ব্যয় করতে থাকে বেশী সময়। শামসুন্নাহার , মনিকারা তাদের গতানুগতিক খেলা রেখে বিপক্ষ ফুটবলারদের মার্কিংয়েই ব্যস্ত। এই সুযোগে চীন আরো চড়াও হয়। সেপ্টেম্বরে তাদের থাইল্যান্ডে খেলা নিশ্চিত হলেও এই ম্যাচকে মোটেই হালকা ভাবে নেয়নি তারা। বরং মিয়ানমারের বিপক্ষে যে প্রথম একাদশ তারা মাঠে নামায় বাংলাদেশের বিপক্ষেও বজায় ছিল তা। অন্য দিকে বাংলাদেশ আহত ছোট শামসুন্নাহারের পরিবর্তে একাদশে চান্স দেয় মোসাম্মত সুলতানাকে।

শুরুতে বাংলাদেশর মেয়েদের প্রতিরোধে তেমন সুবধিা করতে পারছিল না চীন। ২০১২ এবং ২০১৪ সালের অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে খেলা দলটি শেষ পর্যন্ত সফল হয় ২৯ মিনিটে। ৯নং জার্সীধারী ওয়াং জিং লিং একক প্রচেষ্টায় ডান দিক দিয়ে বল নিয়ে লেফট ব্যাক নীলাকে পরাস্ত করে ঢুক পড়েন বক্সে। এরপর তার কাট ব্যাক থেকে বল পেয়ে ফাঁকা পোষ্টে জালে ঠেলতে কোনো সমস্যাই হয়নি দাই জিন ইয়াওয়ের।