Tag Archives: গ্রেফতার হয়নি সন্ত্রাসীরা

চাঁদা না পেয়ে অস্ত্র হাতে ফিল্মি স্টাইলে হামলার ঘটনায় উদ্ধার হয়নি সেই অস্ত্র, গ্রেফতার হয়নি সন্ত্রাসীরা

এমদাদুল হক সোহাগ:
কুমিল্লার শহরতলীর দৌলতপুর ও নগরীর গোবিন্দপুর রেলগেট এলাকায় চাঁদা না পেয়ে আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র হাতে হামলা ও শোডাউন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন অস্ত্র উদ্ধার এবং আগ্নেয়াস্ত্র হাতে থাকা মনিরকে গ্রেফতার করতে পারেনি আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। আলোচিত-সমালোচিত এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন অস্ত্র উদ্ধার না হওয়াতে ওই এলাকায় আতংকসহ পুরো কুমিল্লায় মানুষের মাঝে ক্ষোভ বেড়েছে। প্রকাশ্যে এভাবে ত্রাস সৃষ্টি করে দাপিয়ে বেড়ানো অস্ত্রধারীদের ক্ষমতার উৎস সম্পর্কে চলছে নানান কথা।

দৌলতপুর এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে, ওই এলাকার রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিভিন্ন অস্ত্র হাতে ভাইরাল হওয়া মনির ও বিজয়,মুহিন,কালা রণি,জুয়েল, ইমরান, সুজন, হাসান, টিটু, সৈকত, খাইরুল, বিদ্যুত, পেটলা হোসেন,মিথুনসহ প্রায় ত্রিশজন যুবকের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে ওই এলাকার মানুষ। বিশেষ করে, কুমিল্লার বাহির থেকে দৌলতপুর এলাকায় বাড়ি করতে আসা মানুষগুলো তাদের কাছে অসহায় হয়ে আছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিকজন বলেন, তাদের আধিপত্য রেলগেট থেকে চিশতিয়া মেইল এলাকা পর্যন্ত বেশি। ওই এলাকায় বাড়ি বানাতে হলে, মনির-বিজয় গ্রুপকে তিন লাখ টাকা চাঁদা দিতে হয়। টাকা না দিলে, বাড়ি বানানোর সকল মালামাল তাদের মাধ্যমে সংগ্রহ করতে হয়। কোটবাড়ী সড়কে দৌলতপুর এলাকায় মনির বিজয়ের ফ্রিডম বয়েজ নামে একটি গ্রুপ ও অফিস রয়েছে। ওই অফিস থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয় সব কিছু। চাঁদার টাকানা পেলেই চলে হামলা-আক্রমণ ও ভাংচুর। মনির-বিজয়ের নামে থানায়একাধিক মামলাও রয়েছে। মনির ও মুহিন দৌলতপুরপূর্ব পাড়ার খোকন খানের ছেলে। বিজয় দৌলতপুর রিফোজি কলোনির ফরহাদ ভূইয়ার ছেলে।

অপরদিকে, মনির বিজয় নেতৃত্বাধীন ফ্রিডম বয়েজ নামের এই হিংস্র  গ্রুপটিকে শেল্টার দিয়ে থাকেন দৌলতপুরএলাকার সফিক মিয়ার ছেলে শিমুল। তাঁর আশ্রয়েই চলে পুরো গ্রুপটি।এর আগে মনির-বিজয়কে শেল্টার দিতো কুমিল্লার আলোচিত জিরা সুমন। ইনসাফ হাউজিং এর প্রবেশ মুখে শিমুলের একটি রড সিমেন্টের দোকান রয়েছে। সেই দোকান থেকে মালামাল কিনতে ভয় দেখানোসহ বাধ্য করাহয় স্থাপনা নির্মাণকারীদের। অন্য কোথাও থেকে মালামাল নিয়ে আসলে গাড়ি থেকে মাল নামাতে দেয়া হয়না। ফেরত পাঠানো হয় নির্মাণসামগ্রী। তাদের ভয়ে মুখ খুলতে চায় না কেউ। বাজার দর থেকে অতিরিক্ত দাম দিয়ে নির্মাণ সামগ্রী কিনতে হয় বাড়ি বা স্থাপনা নির্মাণকারীদের।

এদিকে, মনির-বিজয় গ্রুপের প্রভাবে স্থানীয় উঠতি বয়সের শিশু-যুবকেরাও প্রভাবিত হচ্ছে। পড়ালেখা ফেলে অপরাধ জগতে পা রাখছে। গড়ে উঠছে গ্যাং কালচার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মো: শামীম বলেন,এখন পর্যন্ত মনিরকে গ্রেফতার করা যায় নিএবং অস্ত্রও উদ্ধার হয়নি। তবে, বিজয় ও আজাদ নামের দুই আসামীকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতার করার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ আগষ্ট শুক্রবার রাতে রেলগেট এলাকার চা দোকানদার হোসনেয়ারা বেগমের কাছে বিশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে মনির-বিজয়। চাঁদা না পেয়ে পরদিন শনিবার সকালে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে চা দোকানদার হোসনেয়ার বেগম ও তাঁর মেয়েকে কুপিয়ে জখম এবং বাড়িঘর ভাংচুর করে। এ ঘটনায় আড়াল থেকে ধারণ করা একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়ে পড়ে। ভিডিওতে পিস্তল হাতে মনিরকে দেখা যায়। তাছাড়া সকলের সাথে ছিলো বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, দৌলতপুর এলাকার কয়েকজন বলেন, মনির এখনো প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রায়ই তাকে দৌলতপুর ইনসাফ গার্ডেন সিটির ভেতর ও এলাকায় দেখা যায়।