Tag Archives: ঘাতক গ্রেফতার

বুড়িচংয়ে চোর সন্দেহে যুবককে কুপিয়ে হত্যা, ঘাতক গ্রেফতার 

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার দূর্গাপুর নোয়াপাড়া এলাকায় চোর সন্দেহ করে মনজুরুল ইসলাম (২৬) নামের এক যুবককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে বস্তাবন্দি মরদেহ ডোবায় ফেলে দেয়া হয়েছে।

নিহত  মনজুরুল ইসলাম রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের বাসিন্দা ।

নিহত মনজুরুল উপজেলার মোকাম ইউনিয়ন এর দূর্গাপুর নোয়াপাড়া এলাকায় আক্তার হোসেনের গরুর খামারে কাজ করতো।

এ ঘটনায় ঘাতক নাহিদ হোসেনকে (১৯) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘাতক নাহিদের বাড়িও রংপুর জেলার তারাগঞ্জ থানার উজিয়াল ডাক্তারপাড়া এলাকায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ কামরান হোসেন।

সোমবার রাত সাড়ে ১১ টায় পুলিশ বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে এবং রাতেই ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

পুলিশ কর্মকর্তা কামরান জানান, গতকাল সোমবার ১৬ জানুয়ায়ী বিকেলে মোস্তাকিন মিয়া তার বড় ভাইকে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে বুড়িচং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে। পরে প্রযুক্তির সহয়তায় সন্দেহভাজন নাহিদ নামে একজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে নাহিদ স্বীকারোক্তি দেয় সে মনজুরুলকে হত্যা করে। নাহিদের দেখানোর পর পুলিশ ডোবা থেকে মনজুরুলের মরদেহ উদ্ধার করে।

নিহত মনজুরুল নোয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা আক্তার হোসেনের গরুর ফার্মে কর্মচারী ছিল। এছাড়াও সময় পেলে অন্যের বাড়িতে দৈনিক মজুরিতে কৃষি কাজ করতো। ঘাতক নাহিদও ওই ফার্মের কর্মচারী৷

গত ১৩ জানুয়ারী রাতে মনজুরুলের পকেটে থাকা ১৪ শ টাকা হারিয়ে যায়। মনজুরুলের দাবি তার টাকা হারিয়ে যায় নি। এ টাকা চুরি করেছে নাহিদ। বিষয়টি নিয়ে দুজনের মধ্য বাকবিতন্ডা হয়। পরে মনজুরুল স্থানীয়দের বিষয়টি জানিয়ে ঘুমিয়ে যায়। এদিকে চুরির অপবাদ সইতে না পেরে রাত সাড়ে ১১ টায় নাহিদ ঘুমন্ত অবস্থায় মনজুরুলকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে লাশ ফার্মের পাশে ডোবায় ফেলে রেখে যায়।

হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত মনজুরুলের ছোট ভাই মোস্তাকিন মিয়া বুড়িচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মারুফ রহমান জানান, গ্রেফতার নাহিদকে মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

কুমিল্লা উত্তর যুবলীগে স্থান পেতে শতাধিক প্রার্থীর লবিং, সভাপতি পদে আলোচনায় সারওয়ার

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
চলতি বছরের ২ অক্টোবর কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। বিলুপ্ত ঘোষণার পর নতুন কমিটির জন্য নেতাকর্মীদের কাছে জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়েছে। বিভিন্ন সূত্রমতে, যুবলীগের নতুন কমিটিতে স্থান পেতে প্রায় দেড় শতাধিক নেতাকর্মী কেন্দ্রে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে সভাপতি পদেই প্রার্থী রয়েছেন ৩৫ জন।

যুবলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে স্থান পেতে জোর লবিং করছে আগ্রহী প্রার্থীরা। সভাপতি পদে বেশ আলোচনায় রয়েছেন যুবলীগের বিলুপ্ত কমিটির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ সারওয়ার হোসেন বাবু । এছাড়া বিভিন্ন পদে আলোচনায় রয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র্রলীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক, সহ-সভাপতি আলামিন সরকার, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য আবুল কালাম আজাদ, দেবিদ্বার উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক শামীম, এড. মো: এনামুল হাছান খান (রিপন), দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্য্যান আবুল কালাম আজাদের ভাই মামুনুর রশীদ, দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার, হোমনা কলেজের সাবেক ভিপি লিটন, বাঙ্গরা থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ নজরুল প্রমুখ।

সভাপতি পদে আলোচনায় সারওয়ার হোসেন বাবু:
উত্তর জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সারওয়ার হোসেন বাবু নতুন কমিটির সভাপতি পদে প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন। সভাপতি কিংবা আহ্বায়ক পদে সারওয়ার হোসেন বাবুর বিকল্প আপাতত কেউ নেই বলে জানা গেছে। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন । ২০১৫ সালে তিনি কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক পদে দায়িত্ব পান। দায়িত্ব পালনকালে সাংগাঠনিক কার্যক্রমে তিনি বেশ সক্রিয় ছিলেন। বিশেষ করে করোনা মহামারিতে “হ্যালো যুবলীগ’’ গঠন করে প্রায় ১০ হাজার অসহায় ও কর্মহীন মানুষের ঘরে খাবার পৌছে দিয়েছেন। এছাড়া করোনা সুরক্ষাসামগ্রী নিয়মিত সরবরাহ করেছেন। দিয়েছেন অক্সিজেন সেবাও। সব মিলিয়ে করোনা সংকটময় সময়ে মানুষের পাশেই ছিলেন এই যুবলীগ নেতা।

তিনি জানান, আমার অতীত কার্যক্রম এবং দলের প্রতি আস্থা বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ যদি চায় তাহলে আমি এ পদ নিতে ইচ্ছে পোষণ করছি । আমি কোন সময় পদলোভী ছিলাম না। এখনো নেই, ভবিষ্যতেও থাকবো না। আমি হিংসা ও কলহমুক্ত পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করতে পচ্ছন্দ করি। আমি ২০১৫ সাল হতে যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক পদে থেকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছি। যদি আমি সভাপতি কিংবা আহ্বায়ক পদে দায়িত্ব পাই তাহলে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি, স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুযায়ী যুবলীগকে পরিচালনা করবো।

যুবলীগের নতুন কমিটিতে আসতে পারেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র্রলীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক। যদিও অনিক এখনো ছাত্র্রলীগের দায়িত্ব পালন করছেন। হয়তো অচিরেই এ কমিটি ভেঙ্গে দেওয়া হতে পারে। সে হিসেবে অনিক যুবলীগে স্থান পেতে পারেন। করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে থেকে খাদ্য সহায়তা করেছেন এ নেতা। এ বিষয়ে আবু কাউছার অনিক বলেন, সাবেক ছাত্রনেতাদের সমন্বয়ে যুবলীগ গঠন করলে সাংগাঠনিক কার্যক্রম বেগবান হবে। আশা করি সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করা নেতাকর্মীরাই যুবলীগে স্থান পাবে।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে আগ্রহী কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র্রলীগের সহ-সভাপতি আল আমিন সরকার। কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের প্রবীণ রাজনীতিবিদ জাহাঙ্গীর আলম সরকারের নাতি আল আমিন ২০০৮ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। ২০১৪ সালে জেলা ছাত্র্রলীগের সহ সভাপতি পদে অধিষ্ঠিত হন। এখনো দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

আল আমিন সরকার জানান, আমি দীর্ঘদিন ধরে ছাত্ররাজনীতি করছি। আমার পরিবারের সবাই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। আমি কুমিল্লা উত্তর জেলা শাখা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী। আশা করি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমাকে উক্ত পদে সদয় বিবেচনা করবেন।

ডিসেম্বরেই ঘোষিত হতে পারে নতুন কমিটি :
চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসের শুরুতেই ঘোষিত হতে পারে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের নতুন কমিটি। একটি সূত্র জানায়, পূর্ণাঙ্গ কমিটি না দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে একজন আহ্বায়ক ও ৪/৫ জন যুগ্ম-আহ্বায়ক থাকতে পারেন।

মামলায় সহযোগিতা করার অভিযোগে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা, ঘাতক গ্রেফতার

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগরঃ

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন মেটংঘর এলাকায় প্রতিবেশীকে সম্পত্তি নিয়ে মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে সহযোগিতা করার অভিযোগে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

বুধবার সকালে উপজেলার মেটংঘর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত হাবিজ মিয়া (৬৫) মেটংঘর গ্রামের মৃত রহমানের ছেলে।

এঘটনায় নিহতের ছেলে লিটন মিয়া বাদী হয়ে বাঙ্গরা বাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলার এজাহার নামীয় অন্যতম আসামী মহিউদ্দিন (৩০)কে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে মেটংঘর গ্রামের তার বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। আটককৃত আসামি একই গ্রামের সূর্য মিয়ার ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার মেটংঘর গ্রামের মহিউদ্দিন ও একই গ্রামের শিবু ঠাকুরের সাথে সম্পত্তির দন্দ নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলায় শিবু ঠাকুরকে সহযোগিতার অভিযোগ এনে লিটন মিয়া ও তার পিতা হাবিজ উদ্দিনকে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিলো এই মহিউদ্দিন। এরই জের ধরে গত ৩ নভেম্বর বুধবার সকালে লিটনের ভাবি শাহিদা বেগমকে মারধর করে মহিউদ্দিন। এরপর মহিউদ্দিনকে পুত্রবধূকে মারধরের কারন জিজ্ঞেস করার উদ্দেশ্যে বের হয়ে মেটংঘর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার মুদি দোকানের সামনে আসা মাত্রই সেখানে পূর্ব থেকে অবস্থান করা মহিউদ্দিন কাঠের লাঠি দিয়ে হাবিজ মিয়াকে মাথা এবং শরীরে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তার শোর-চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে তার অবস্থার আরো অবনতি হলে তাকে ঢাকার মাতুয়াইল ফ্রেন্ডশিপ স্পেশালিস্ট হসপিটালে নিয়ে যায় তার স্বজনরা। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

এ ব্যাপারে বাঙ্গরা বাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, আটককৃত আসামিকে শুক্রবার দুপুরে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

১ মাসের মধ্যে লালমাইয়ে চাঞ্চল্যকর শিশু শাহ পরান হত্যার রহস্য উন্মোচন, ঘাতক গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার লালমাই উপজেলার চাঞ্চল্যকর শিশু শাহ পরান হত্যার ক্লুলেস রহস্য উন্মোচন করে প্রধান ঘাতক নুর উদ্দিন ওরফে নুরুসহ (২১) অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতার করেছে কুমিল্লা জেলা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকালে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতি: পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) আজিম উল আহসান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন অতি: পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তানভীর সালেহিন ইমন।

গ্রেফতার হওয়া আসামিরা হলেন,কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের জয়নগর গ্রামের দুধু মিয়ার ছেলে নুর উদ্দিন ওরফে নুরু(২১), একই উপজেলার নাগরীপাড়ার ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মোঃ মহিদ উল্লাহ ওরফে শহিদ (৩৫), ভুলইন গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে গোলাপ হোসেন (৩০) ও লাকসাম উপজেলার উত্তর লাকসাম গ্রামের সামছুল হকের ছেলে নাছির উদ্দিন (৩২)।

সংবাদ সম্মেলনে অতি: পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) আজিম উল আহসান জানান,লালমাই উপজেলার বড় চলুন্ডা ব্র্যাক স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র বেতাগাঁও গ্রামের শাহ পরান (১৩) তার বড় ভাই শাহাদাতের ৪ ব্যাটারি চালিত মিশুক গাড়িটি চালাতো। চলতি বছরের ১১ সেপ্টেম্বর সকাল সাদে ১০ টায় মিশুক অটোরিক্সা গাড়িটি নিয়ে বাগমারা বাজারে যায়। এরপর আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। তার পিতা-মাতা চারদিকে খোঁজ নেয়, মাইকিং করে। পরদিন বিকেল ৪ টায় লাইমাইয়ের বাগমারা দক্সিণ ইউনিয়নের জয়নগর পশ্চিম পাড়ার ডাকাতিয়া নদীর দক্ষিণ পাড়ের ঢালুতে ঝোঁপের মধ্যে হাত-পা ও গলায় দড়ি দিয়ে বাঁধা অবস্থায় শিশু শাহ পরানের মরদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আব্দুল মালেক বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। এরপর পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম(বার) পিপিএম নিজেই সার্বক্ষনিক তদারকিসহ সার্বিক দিক নির্দেশনা প্রদান করে লালমাই থানার ওসি মোহাম্মদ আইয়ুব এর নেতৃতত্বে একটি টিম গঠন করে হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনে কাজ শুরু করে। বাগমারা থেকে লাকসাম পর্যন্ত ১৩ টি সিসি টিভির ক্যামেরার প্রতিটির ৩২ ঘন্টা করে ফুটেজ বিশ্লেষন করা হয়। লাকসামের ২টি সিসি টিভির ক্যামেরায় ৫ সেকেন্ডের ভিডিও ফুটেজে মুখে মাস্ক পড়া ২০/২২ বছরের এক যুবককে ছিনতাই হওয়া মিশুক অটোরিক্সা একটি শিশু বাচ্চাসহ চালাতে দেখা যায়। এরপর নিবিড় বিশ্লেষনের মাধ্যমে সন্দেহভাজন খুনি ও ছিনতাইকারির শরীরের গঠন,জামা, পায়ের স্যান্ডেল পর্যবেক্ষণ ও প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে ঘাতক নুরুকে ১৪ অক্টোবর গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর ঘাতক নুরু পুলিশকে জানায়, ১১ সেপ্টেম্বর বেলা ১১ টার দিকে নুরু তার সহযোগিসহ বাগমারা বাজার থেকে ৬০ টাকা ভাড়ায় ভিকটিমের মিশুকটি গাড়িটি নিয়ে জয়নগর যাওয়ার কথা বলে ভাবকপাড়ায় গিয়ে একটি দোকান থেকে ১০ টাকার দড়ি কিনে শিশু শাহ পরানকে নির্জন ডাকাতিয়া নদীর পাড়ের ঝোপের মধ্যে নিয়ে হাত-পা দড়ি দিয়ে বেধে ও গলায় দড়ি পেঁচিয়ে হত্যা করে লাশটি ঝোপের মধ্যে ফেলে গাড়ি নিয়ে লাকসাম চলে যায়। লাকসাম জংশনের মিস্ত্রি পাড়ার ভাঙ্গারী দোকানদার গোলাপ হোসেনের কাছে ১৫ হাজার টাকায় মিশুক গাড়িটি বিক্র করে। দোকানদার গোলাপ আবার সেই গাড়িটি লাকসামের নাছির উদ্দিনের কাছে বিক্রি করে। এই দোকানদারকেও পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সেই সাথে মিশুক গাড়িটি চৌদ্দগ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।