Tag Archives: ঘোড়া

শবে কদর উপলক্ষে অসুস্থ ঘোড়া-কুকুর জবাই করে গরু-ছাগলের মাংস বলে বিক্রি

ডেস্ক রিপোর্টঃ

পবিত্র শবে কদরে ফাতেহা উপলক্ষে মানুষ মাংস কিনেন। সেই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে রোগাক্রান্ত ঘোড়া জবাই করে গরুর মাংস হিসেবে বিক্রয়কারী কক্সবাজারের বহুল আলোচিত মাংস বিক্রেতা মাহবুবুল আলম ওরফে কসাই মাহাবুকে (৩৪) গ্রেফতার হয়েছেন।

বুধবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে কক্সবাজার র‍্যাব ক্যাম্পের কমান্ডার মো. আনোয়ার হোসেন শামীমের নেতৃত্বে র‍্যাবের একটি দল জেলার রামু উপজেলার পাহাড়ি বড় ঢেপা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে।

মাহাবুবুল কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানাধীন মরিচ্যা এলাকার বাসিন্দা মিয়া জানের ছেলে।

ভোক্তাদের গরুর মাংস বলে ঘোড়ার মাংস খাইয়ে জঘন্য প্রতারণাকারী কসাই মাহাবু’র বিরুদ্ধে হলদিয়া পালং ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য এম মনজুর আলম বাদী হয়ে উখিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

র‍্যাব সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে সমুদ্র সৈকতে পর্যটক মনোরঞ্জনে ব্যবহার করার পর অসুস্থ, বৃদ্ধ ঘোড়াগুলোকে কখনো অল্প মূল্যে, কখনো বিনামূল্যে বিভিন্ন কৌশলে সংগ্রহ করে সেগুলো জবাই করে গরুর মাংস হিসেবে বিক্রি করতেন কসাই মাহাবু। এভাবে মোট ২০-২৫টি ঘোড়া ইতোমধ্যে জবাই করে মাংস ভোক্তাদের খাইয়েছেন তিনি। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মাহাবুবুল তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ স্বীকার করে নেন। তবে, তার দাবি- যেহেতু গরুর চেয়ে ঘোড়া বেশি মূল্যবান প্রাণী, তাই ঘোড়ার মাংস বিক্রি করে তিনি কোনো অন্যায় করেননি।

হলদিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী বলেন, রাতের আঁধারে দীর্ঘদিন যাবত অসুস্থ ঘোড়া এনে জবাই করে সেই মাংস গরুর বলে বিক্রি করতেন মাহাবুবুল। এমনকি কুকুরও জবাই করে খাসির মাংস হিসেবে বিক্রির গুঞ্জনও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তাকে র‍্যাব গ্রেফতার করায় এলাকাবাসী খুশি। তাকে ধরতে পরিষদ র‍্যাবকে সহযোগিতা করেছে।

সূত্র মতে, গত ১৮ এপ্রিল উখিয়ার মরিচ্যা বাজারের কসাই মাহাবুবুল আলম রাতে অসুস্থ ঘোড়া জবাই করে গরুর মাংস বলে মানুষকে বিক্রি করছেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে উখিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সালেহ আহমেদের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই অভিযুক্ত মাহাবু পালিয়ে যাওয়ায় তার বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। তবে এসময় ঘোড়ার মাথা, চামড়াসহ মাংস জব্দ করা হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে তা দ্রুত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। নেটিজেনদের আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে কসাই মাহাবুকে আটকে অভিযানে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট। অবশেষে ঘটনার ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের ব্যবধানে র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হলেন তিনি।

কসাই মাহবুবুলকে গ্রেফতার অভিযানের নেতৃত্ব দেওয়া কক্সবাজার র‍্যাব ক্যাম্পের কমান্ডার মো. আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, ঘোড়ার মাংস বিক্রির বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই মাহবুবুল গা ঢাকা দেন। গ্রেফতার এড়াতে তিনি কবরস্থানের মতো জায়গা বেছে নিয়ে সেখানে অবস্থান শুরু করেন। প্রায় ২৪ ঘণ্টার টানা অভিযানে বুধবার ইফতারের আগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কসাই মাহাবুকে আমরা গ্রেফতার করতে সক্ষম হই।

তিনি আরো বলেন, ভবিষ্যতে এমন জঘন্য অপকর্মে কেউ যেন লিপ্ত হতে না পারে, র‍্যাব এ ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তাকে উখিয়া থানায় সোপর্দ করার প্রক্রিয়া চলছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।