Tag Archives: জোড়কানন ইউনিয়ন

সদর দক্ষিণে পিক আপ ও কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২

 

মোঃ উজ্জ্বল হোসেন বিল্লালঃ

কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলায় পিক আপ ও কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে প্রায় ১০-১২ জন।

রবিবার (১১ জুন) বিকাল ৪টায় উপজেলার ৫নং পশ্চিম জোড়কানন ইউনিয়নের ইউটার্ন সংলগ্ন এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, উপজেলার ৬নং পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়নের লালবাগ গ্রামের মোহন মিয়ার ছেলে সৈকত (১৬) ও অপরজন একই গ্রামের আলী আহমেদের ছেলে মোর্শেদ (২৪)।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধু ফুটবল টূর্নামেন্ট খেলতে উপজেলার জোড়কানন ইউনিয়নের লালবাগ ও জগপুর গ্রাম থেকে পিক আপযোগে ক্ষুদে খেলোয়াড় ও সমর্থকরা যাচ্ছিল। পিক-আপটি উল্টো পথে লালবাগ রাস্তার মাথা থেকে কিছুটা দুরে গেলে ঢাকা থেকে আসা কাভার্ড ভ্যানের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এসময় রাস্তার পাশে থাকা জমিতে পড়ে যায় পিক-আপ। এতে ঘটনাস্থলে একজন মারা যায়।

এ বিষয়ে সদর দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবাশীষ চৌধুরী জানান, পিক-আপের সাথে কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষের খবর শুনে আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। ঘটনাস্থল থেকে আহত ১০-১২ জনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে এবং উদ্বার কাজ এখনো চলমান রয়েছে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ সূত্র জানায়, এ ঘটনায় আমাদের কাছে ১১ জনের হতাহতের খবর এসেছে। একজন ঘটনাস্থলে মারা গেছে এবং আরেকজন আসার পথে মারা গেছে। ৩ জনের অবস্থা গুরুতর দেখে আমরা তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পেরণ করেছি। আর বাকি ৬ জনের চিকিৎসা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চলমান রয়েছে।

সদর দক্ষিণে কোনো কিছুতেই বন্ধ হচ্ছে না ফসলি জমির মাটি কাটা

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলায় ফসলি জমির মাটি কাটা কিছুতেই বন্ধ হচ্ছে না। অভিযোগ উঠেছে এ কাজের সাথে জড়িত রয়েছে স্থানীয় একাধিক সিন্ডিকেট। এ সিন্ডিকেট সদস্যরা পাহাড়া বসিয়েই রাত-দিন মাটি কাটছে। সবচেয়ে বেশি ফসলি জমির মাটি কাটা হচ্ছে উপজেলার ৫নং পশ্চিম ও ৬ নং পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়নে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সদর দক্ষিণ উপজেলায় ১০ থেকে ১২টি ব্রিক ফিল্ড রয়েছে। ইট ভাটায় ইট তৈরির কাজে ও ভরাট কাজে ফসলি জমির মাটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। প্রতিটি মৌসুমে একটি ইটভাটার হাজার ট্রাক মাটি প্রয়োজন। সেই হিসেবে ইট ভাটায় প্রতি মৌসুমে বিপুল পরিমাণ মাটি নেওয়া হয়। মাটির এসব চাহিদা মেটানো হচ্ছে ফসলি জমির মাটি থেকে। এছাড়াও ফসলি মাটি নেওয়া হচ্ছে পার্শ্ববর্তী উপজেলার বিভিন্ন ব্রিক ফিল্ডেও। তাছাড়াও মাটি কাটাতে রয়েছে বিশাল বাণিজ্য।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সদর দক্ষিণ উপজেলার ৫নং পশ্চিমও ৬নং পূর্ব জোড়কাননের বেশ কয়েকজন বাসীন্দা জানান, সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে মাটি কাটা হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি মাটি কাটা হচ্ছে ইউনিয়নের ২,৩,৪,৫ নং ওয়ার্ডের বেশ কয়েকটি গ্রামে। ফসলি জমিতে একাধিক এক্সকাভেটার এর মাধ্যমে তারা অনবরত মাটি কাটতেছ। তাদের অনেকের রয়েছে একাধিক ড্রাম ট্রাক। তাছাড়াও বেপরোয়াভাবে চলছে মাাটি কাটার মহা উৎসব। আর ড্রাম ট্রাক দিয়ে মাটি নিয়ে যাওয়ার বেপরোয়া গতিতে উড়তে থাকে ধুলাবালি। মাটি কাটার পিছনে জড়িত সিন্ডিকেটধারীদের বিপক্ষে কেউ কিছু বলতে পারেনা। তাদের কিছু বললে তারা বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়। যারা বাধা দেওয়ার তারাই এই কাজের সাথে কোনো না কোনোভাবে জড়িত। আমরা সাধারণ জনগণ আমরা আর কি করতে পারি।

ফসলি জমির মাটি কাটার বিষয়ে জানতে সিন্ডিকেট ধারীর একাধিক সদস্যেদের মুঠোফোনে কল দিয়ে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে ৬ নং পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মমিনুল ইসলাম জানান, কিছুদিন আগে আমাদের অনুষ্ঠিত আইন শৃঙ্খলা কমিটি মিটিংয়ে এ প্রস্তাব তুলে ধরেছিলাম। সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এসিল্যান্ডকে জানানো হয়েছে। তারা বলছে তাদের অভিযান চলমান থাকবে। কিন্তু আমাদের পূর্ব জোড়কাননে বিট পুলিশিং কর্মকর্তা খালেদ মোশারফকে জানালে ওনি আমাকে বলেন আমাকে বলে কি হবে আপনি এসিল্যান্ডকে বলুন।

এ বিষয়ে সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভাশিস ঘোষ জানান, মাটি কাটার বিষয়ে আমরা বরাবরই কঠোর অবস্থানে রয়েছি। আমরা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করতেছি। হয়তো কেউ কেউ আমাদেরকে ফাঁকি দিয়ে রাতের অন্ধকারে কাটতে পারে। নিয়মিত অভিযানের মাধ্যমে তাদেরকে সাজা দিচ্ছি। চলতি মাসেও জেল দেওয়া হয়েছে দুই জনকে এবং জরিমানা করা হয়েছে কয়েকজনকে। ফসিল জমির মাটি কাটার বিষয়ে আমাদের অভিযান চলমান থাকবে।